Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ১২:০৬ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৪:৪৬
দেওয়াল টপকে সিংহের সামনে যুবক, অতঃপর...
দীপক দেবনাথ, কলকাতা
দেওয়াল টপকে সিংহের সামনে যুবক, অতঃপর...
প্রতীকী ছবি

ইচ্ছা ছিল সিংহকে একেবারে সামনে থেকে দেখা। আর সেই বাসনা নিয়ে ৩০ ফুট উঁচু দেওয়াল টপকে সিংহের সামনে আসতেই দুই সিংহ হামলে পড়ল, খুবলে খেল সারা শরীর। পরে হাসপাতালে নিয়ে গেলে মৃত্যু হয় তাঁর। রবিবার বিকালে মর্মান্তিক দুর্ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের চন্ডীগড় শহর থেকে বিশ কিলোমিটার দূরে মহেন্দ্র চৌধুরী জুলোজিক্যাল পার্ক (ছাতবির চিড়িয়াখানা নামেই অধিক পরিচিত)। 

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে করা প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, সাফারি পার্ক-এর সীমানা লাগোয়া ঘাঘর নদী টপকে নির্দিষ্ট এলাকায় প্রবেশ করেন ওই যুবক। ২ কিলোমিটার জুড়ে অবস্থান করা ওই সাফারি পার্কে চারটি সিংহ রয়েছে, যার মধ্যে একটি সিংহ ও একটি সিংহিকে গত রবিবার সাফারি এলাকায় ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। 

সাফারি পার্কের নিরাপত্তা প্রধান হরপাল সিং জানান, ‘রবিবার বিকাল আড়াইটার দিকে ওই অপরিচিত যুবককে পার্কের ভিতরে পড়ে থাকতে দেখা যায়। এরপর মাত্র ছয় মিনিটের মধ্যেই কর্মকর্তারা তার কাছে পৌঁছে যায় এবং সিংহ দুইটিকে তাড়িয়ে দেওয়া হয়। যদিও তার আগেই পশুর হামলায় ক্ষত-বিক্ষত হয়ে যায় ওই যুবকের শরীর। এরপর স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে আসা হলেও তাঁকে বাঁচানো যায়নি।’  

সাফারি পার্কে আগত পর্যটকদের বহনকারী বাসের চালক জনি জানান, ‘আমি যখন ওই যুবককে দেখলাম, তখনও তিনি জীবিত ছিলেন। সম্ভবত তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন ছিলেন, নয়তো মদ্যপ ছিলেন।’ জনির দাবি শিল্পা নামে একটি সিংহি ওই যুবকের ঘাঁড় ধরে টেনে নিয়ে যাচ্ছে। এরপর সেখানে জড়ো হয় যুবরাজ নামে একটি সিংহ। সাথেই সাথেই বাসের কন্ডাক্টরকে বিষয়টি জানান। এরপরই তিনিই পার্কের কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানায়। সেই সাথে জনি ক্রমাগত বাসের হর্ন বাজাতে থাকেন যাতে ওই দুই সিংহ-সিংহিকে জায়গা পরিবর্তন করেন। 

সিংহের হামলায় গুরুতর আহত ওই যুবকের নাম জানা না গেলেও তার বয়স আনুমানিক ৩০ বছর। তার শরীরে চোখ, মুখ, ঘাঁড় এবং বুকে ক্ষতের দাগ রয়েছে। পুলিশও তার কাছ থেকে কোনো পরিচয়পত্র বা মোবাইল উদ্ধার করতে পারেনি। ওই ঘটনার পরই ওই পার্কটি সাময়িক বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

বিডি-প্রতিদিন/২১ জানুয়ারি, ২০১৯/মাহবুব 

আপনার মন্তব্য

up-arrow