Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ২২ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২১ জুলাই, ২০১৬ ২৩:১৬
তুরস্কে জরুরি অবস্থা জারি
তুরস্কে জরুরি অবস্থা জারি

ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানের পর দেশজুড়ে ব্যাপক ধরপাকড় চলার মধ্যেই তিন মাসের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করলেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তায়েপ এরদোগান। গত শুক্রবার রাতে তুর্কি সামরিক বাহিনীর একটি অংশ ক্ষমতা থেকে এরদোগানকে উত্খাতের জন্য বিদ্রোহ করে।

কিন্তু সেই চেষ্টা ব্যর্থ হয়। এরপর দেশজুড়ে শুরু হয় গণগ্রেফতার ও চাকরিচ্যুতি। এরমধ্যে বুধবার রাজধানী আঙ্কারার প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে মন্ত্রিসভাকে সামনে রেখে টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত এক ঘোষণায় এরদোগান জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন। জরুরি অবস্থা ঘোষণার আগে প্রায় ৫ ঘণ্টা ধরে জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। ভাষণে এরদোগান বলেন, তুরস্কে ব্যর্থ সেনা অভ্যুত্থানের জন্য দায়ীদের বিরুদ্ধে যাতে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া যায়, তার জন্যই জারি করা হয়েছে এই জরুরি অবস্থা। গণতন্ত্রের জন্য হুমকি মোকাবিলার প্রতিশ্রুতির পাশাপাশি, এ সময় তিনি জনগণের মৌলিক স্বাধীনতা রক্ষার  ঘোষণাও দেন। তিন মাসের এই জরুরি অবস্থাকালে ‘সশস্ত্র বাহিনীর মধ্যে থাকা সব ভাইরাস পরিষ্কার করার’ প্রত্যয় জানান তিনি। জরুরি অবস্থায় পার্লামেন্টের অনুমোদন ছাড়াই নতুন আইন জারি ও প্রয়োজন হলে নাগরিক অধিকার স্থগিত বা সীমিত করতে পারবেন প্রেসিডেন্ট ও তার মন্ত্রিসভা। ব্যর্থ অভ্যুত্থানের পর গ্রেফতার হাজার হাজার ব্যক্তির আটকাদেশ দীর্ঘায়িত করতেও জরুরি অবস্থার সাহায্য নেওয়া যাবে। ‘এই পদক্ষেপ কোনোভাবেই গণতন্ত্র, আইন ও স্বাধীনতার বিরুদ্ধে নয়’ বলেন এরদোগান। অভ্যুত্থান চেষ্টার প্রতিক্রিয়ায় এরই মধ্যে ৬০০ স্কুল বন্ধ ও হাজার হাজার রাষ্ট্রীয় কর্মীকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে। এএফপি।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow