Bangladesh Pratidin

ঢাকা, সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১০ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৪৯
ক্যান্সার জয়ে নতুন দিগন্ত
ক্যান্সার জয়ে নতুন দিগন্ত

ক্যান্সার একটি মরণব্যাধি রোগ। যে রোগকে জয় করতে দশকের পর দশক চলছে গবেষণা। এ রোগের চিকিৎসায় একটি ইমিউনিথেরাপি ওষুধ আবিষ্কার করা হয়েছে যার ফলাফল দেখে বিজ্ঞানীরা একে এক যুগান্তকারী ঘটনা হিসেবে বর্ণনা করছেন। বলা হচ্ছে, এ ওষুধ মস্তিষ্ক ও গলার ক্যান্সার রোগীদের মধ্যে নতুন আশার সঞ্চার করবে। ইউরোপীয় ক্যান্সার কংগ্রেসে এ ওষুধের ফলাফল তুলে ধরা হয়েছে।

মস্তিষ্ক ও গলার ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীদের ওপর চালানো এক গবেষণায় দেখা গেছে, যাদের নিভোলুম্যাব ওষুধ দেওয়া হয়েছে তারা, যাদের কেমোথেরাপি দেওয়া হয়েছে তাদের তুলনায় বেশি দিন বাঁচেন।  আরেকটি গবেষণায় দেখা যায়, কিডনির ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে যারা নিভোলুম্যাবের সঙ্গে আরও একটি ওষুধ নিয়েছেন তাদের টিউমারও ধীরে ধীরে সংকুচিত বা ছোট হয়ে গেছে। চিকিৎসকরা বলছেন, এই ইমিউনিথেরাপি ওষুধ নেওয়ার ফলে রোগীদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায় যা শরীরের ভিতরে লুকিয়ে থাকা ক্যান্সারের কোষগুলোকে ধ্বংস করে ফেলে। ক্যান্সার রোগের মধ্যে মস্তিষ্ক ও গলার ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগীদের বেঁচে যাওয়ার সম্ভাবনা খুব কম। কিন্তু সাড়ে তিনশো রোগীর ওপর এ গবেষণাটি চালানো হয়েছে। দেখা গেছে যেসব রোগীকে ইমিউনিথেরাপি ওষুধ নিভোলুম্যাব দিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে তাদের ৩৬ শতাংশ এক বছর পরেও বেঁচে ছিলেন। কিন্তু কেমোথেরাপি নেওয়া রোগীদের ক্ষেত্রে এ হার মাত্র ১৭ শতাংশ। যেসব রোগীর ওপর এ গবেষণাটি চালানো হয়েছে তারা ছয় মাসেরও কম সময় বেঁচে ছিল। বিজ্ঞানীরা বলছেন, এই ইমিউনিথেরাপি চিকিৎসার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াও তুলনামূলক ভাবে কম। তাদের দশ জনের একজনের শরীরে এখন ক্যান্সারের কোনো লক্ষণও অবশিষ্ট নেই। বিবিসি

এই পাতার আরো খবর
up-arrow