Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:১৮
বিচারকের ওপরও চটলেন ট্রাম্প
বিচারকের ওপরও চটলেন ট্রাম্প

বিশ্বের কোনো দেশেই বিচারককে নিয়ে প্রকাশ্য কেউ সমালোচনা করেন না। কিন্তু এসবকে থোরাই কেয়ার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের।

সাত দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে ট্রাম্পের নিষেধাজ্ঞা জারিকে দেশটির একাধিক বিচারক অবৈধ ঘোষণা করেছেন। এমন কী ট্রাম্প সেই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেও হেরে গেছেন। ফলে এখন তার সব রাগ উগড়ে পড়ছে বিচারকদের ওপর। বিচারক ও বিচারব্যবস্থার ওপর বেজায় চটেছেন ট্রাম্প। ট্রাম্প ওই বিচারক ও বিচারব্যবস্থার প্রতি নিজের ক্ষোভ  ঢেলেছেন টুইটারে। এক টুইটে তিনি লেখেন, ‘বিচারক দেশকে এমন বিপদে ফেলতে পারেন, এটা আমি বিশ্বাস করতে পারছি না। যদি কিছু ঘটে, তাহলে ওই বিচারক আর বিচারব্যবস্থা দায়ী। জনতা খারাপ কিছুর জন্য তাকেও ঢালাওভাবে দোষ দেবে। ’ আদালতের ওই স্থগিতাদেশের পর নিজের টুইটারে ওই বিচারককে প্রায় ‘দেখে নেওয়ারই’ হুমকি দিয়েছেন ট্রাম্প। এমনকি ওই বিচারককে ‘তথাকথিত’ বলেও আখ্যায়িত করেন। তবে সম্ভবত তার উপদেষ্টারা বিচারককে গালিগালাজ বন্ধের পরামর্শ দেওয়ার পর বাধ্য হয়েই কি না সুর নরম করে সীমান্তে ‘সতর্ক’ তল্লাশির পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। এর আগে শুক্রবার সিয়াটল আদালতের বিচারক জেমস রবার্ট ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশ সাময়িক স্থগিতের নির্দেশ দেন। তিনি মিনেসোটা ও ওয়াশিংটন অঙ্গরাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেলদের আবেদন আমলে এনে এ রায় দেন। এরপর রবিবার সানফ্রান্সিসকোর আপিল আদালত ট্রাম্প প্রশাসনের যুক্তি অগ্রাহ্য করে সিয়াটল আদালতের আদেশ বহাল রাখেন। এ প্রেক্ষিতে বিমান সংস্থাগুলোকে যুক্তরাষ্ট্রের কাস্টমস কর্তৃপক্ষ এরই মধ্যে বলে দিয়েছে, ওই সাতটি দেশের লোকদের যুক্তরাষ্ট্রগামী বিমানে যেন উঠতে দেওয়া হয়। ফলে ট্রাম্পের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা একপ্রকার বাতিল হয়ে যায়। এএফপি, বিবিসি।

up-arrow