Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : বুধবার, ১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ২৩:৩৬
মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদত্যাগ
ট্রাম্প প্রশাসনে বড় ধাক্কা
মার্কিন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার পদত্যাগ
মাইকেল ফিন

সাতটি মুসলিম দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ট্রাম্পের নির্বাহী আদেশ অকার্যকর হওয়ার রেশ এখনো কাটেনি। এরই মধ্যে নতুন করে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়লো ট্রাম্প প্রশাসন।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হিসেবে জেনারেল মাইকেল ফিনকে নিয়োগ দিয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। অথচ নিয়োগের এক সপ্তাহ না হতেই পদত্যাগ করেছেন তিনি। রাশিয়ার সঙ্গে প্রশ্নবিদ্ধ যোগাযোগ রাখার দায়ে জোরাল বিতর্কের মধ্যেই সোমবার পদত্যাগ করেন ফিন।   তবে তার পদত্যাগে ওয়াশিংটনে নিযুক্ত রুশ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে ফিনের কী কথা হয়েছে এ প্রশ্নের সমাপ্তি ঘটবে না বলে ডেমোক্রেটদের মত। তাই তারা মার্কিন বিচার বিভাগ ও এফবিআইয়ের মাধ্যমে বিষয়টির তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। রাশিয়া অবশ্য ফিনের পদত্যাগকে ‘যুক্তরাষ্ট্রের অভ্যন্তরীণ বিষয়’ হিসেবে জানিয়ে এ ব্যাপারে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্পের আনুষ্ঠানিক শপথ গ্রহণের আগেই ওয়াশিংটনে নিযুক্ত রুশ রাষ্ট্রদূত সের্গেই কিসলিয়াকের সঙ্গে বেশ কয়েকবার ফোনে কথা বলেছিলেন জেনারেল ফিন। রাশিয়ার বিরুদ্ধে তৎকালীন ওবামা প্রশাসনের আরোপিত নিষেধাজ্ঞা নিয়ে তাদের মধ্যে কথা হয়েছিল বলে অভিযোগ উঠে। এমনকি ফিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে, রুশ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে আলোচনার ব্যাপারে জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার আগে খোদ মার্কিন কর্মকর্তাদেরও বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়েছেন তিনি। ফিন ফোনালাপে রুশ রাষ্ট্রদূতকে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য  দিয়েছেন বলেও অভিযোগ। তাই তাদের মধ্যকার ফোনালাপের বিষয়বস্তু নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠে। ডেমোক্রেটরা তার পদত্যাগও দাবি করে আসছিল। বিষয়টি পরিষ্কার করার জন্য ট্রাম্প প্রশাসনের প্রতি চাপ ছিল। এ ইস্যুতে ট্রাম্প প্রশাসন এক ধরনের অস্বস্তিকর অবস্থার মধ্যেও ছিল।   পদত্যাগের কথা জানিয়ে এক বিবৃতিতে ফিন বলেন, ‘রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে ফোনালাপের ব্যাপারে আমি অসম্পূর্ণ তথ্য দিয়ে ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স (তখনও এ পদে শপথ নেননি তিনি) ও অন্যদের সংক্ষিপ্তভাবে জানিয়েছিলাম। তবে আমি তা ইচ্ছাকৃতভাবে করিনি। ’ ফিনের জায়গায় ভারপ্রাপ্ত জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা হিসেবে লেফটেন্যান্ট জেনারেল জোসেফ কেইথ কেলগকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। হোয়াইট হাউস এক বিবৃতিতে তাকে এ পদে সাময়িকভাবে নিয়োগের জানায়। মার্কিন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত লেফটেন্যান্ট জেনারেল মাইকেল ফিন ছিলেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের একজন জোরালো সমর্থক।   নির্বাচনে ট্রাম্পের জয়লাভের পর তিনি ট্রাম্প ও তার প্রধান কৌশলবিদ স্টিভ ব্যাননের ঘনিষ্ঠ মিত্রে পরিণত হন। তিনি ট্রাম্প প্রশাসনকে ইরানের ব্যাপারে কঠোর নীতি ও রাশিয়ার ব্যাপারে নরম নীতির উৎসাহ দিয়ে আসছিলেন। তবে রাশিয়ার সঙ্গে তার কথিত ঘনিষ্ঠতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছিল। বিবিসি, রাশিয়া টুডে।

up-arrow