Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ মার্চ, ২০১৭ ২৩:৩৯
ট্রাম্পের নতুন নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধেও মামলা
ট্রাম্পের নতুন নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধেও মামলা

ছয়টি মুসলিম দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করে দ্বিতীয় দফায় যে নির্বাহী আদেশ জারি করেছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প, সেটির বিরুদ্ধে মামলা করেছে হাওয়াই অঙ্গরাজ্য। আগামী ১৫ মার্চ ওই মামলার শুনানির তারিখ নির্ধারণ করেছে ফেডারেল আদালত।

এর পরের দিন থেকেই আদেশটি কার্যকর হওয়ার কথা রয়েছে।

প্রথম দফার নির্বাহী আদেশের বিরুদ্ধেও মামলা করেছিল এই রাজ্য। তবে আগেই অন্য রাজ্যে নির্বাহী আদেশটি স্থগিত হয়ে যায়। দ্বিতীয় দফার ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে সেই মামলাটি সংশোধন করে দাখিল করেছে হাওয়াই রাজ্য। প্রথম আদেশে সাতটি দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও, দ্বিতীয় দফার আদেশ ইরাককে বাদ দেওয়া হয়েছে। হাওয়াই রাজ্যের মামলায় বলা হয়েছে, এই নির্বাহী আদেশের ফলে হাওয়াইয়ের মুসলিম জনগোষ্ঠী, পর্যটন আর বিদেশি ছাত্ররা ক্ষতিগ্রস্ত হবে। হাওয়াইয়ের অ্যাটর্নি জেনারেল ডগলাস চেন বলেন, এই রাজ্যের বিশেষত্ব হলো যে, ইতিহাস এবং সাংবিধানিকভাবে এখানে কোনো বৈষম্য করা হয় না। এখানে কুড়ি শতাংশ বাসিন্দা বিদেশে জন্ম নেওয়া, এক লাখ প্রবাসী বাস করে আর অন্তত কুড়ি শতাংশ কর্মী বিদেশি নাগরিক। হাওয়াইয়ের মানুষ মনে করে, নতুন মানুষদের প্রতি ভীতি একটি খারাপ নীতি, তিনি যোগ করেন। তবে এই মামলার বিষয়ে এখনো কোনো মন্তব্য করেনি মার্কিন বিচার বিভাগ।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের প্রশাসনের যুক্তি হচ্ছে এই নিষেধাজ্ঞা আমেরিকাকে সন্ত্রাসবাদের হাত থেকে নিরাপদ রাখার জন্য দরকার।

এদিকে মার্কিন হোমল্যান্ড সিকিউরিটিমন্ত্রী জন কেলি জানিয়েছেন, ডোনাল্ড ট্রাম্প দায়িত্ব নেওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধ অভিবাসীদের প্রবেশের হার অন্তত ৪০ শতাংশ কমেছে। বিবিসি।

রুশ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে সাক্ষাতের কথা স্বীকার ট্রাম্পের সাবেক উপদেষ্টার : প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের রুশ প্রীতি নিয়ে নানা তথ্য দিনে দিনে বেরিয়ে আসছে। এর মধ্যে ট্রাম্পের একজন সাবেক উপদেষ্টা যিনি প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় ট্রাম্পের হয়ে কাজ করছিলেন। তিনি স্বীকার করেছেন নির্বাচিত হওয়ার ৫ মাস আগে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত সের্গেই কিসলায়েকের সঙ্গে সাক্ষাত্ করেছিলেন। ট্রাম্পের ওই উপদেষ্টার নাম জেফ্রে জেজি গর্ডন। ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে মস্কো ও ওয়াশিংটনের মধ্যে সম্পর্ক কেমন হবে, তারা কীভাবে ইসলামপন্থি জঙ্গিদের মোকাবিলা করবে সে সব বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছিলেন তিনি। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের নীতি অনুযায়ী কূটনৈতিক পর্যায়ে সরকারে নেই এমন ব্যক্তি বা ব্যক্তিদের এমন বৈঠক অন্যায়, অবৈধ। এ খবর দিয়েছে লন্ডনের অনলাইন দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট। এতে বলা হয়, গত জুলাই মাসে যখন রিপাবলিকান দলের জাতীয় সম্মেলন হয় তখন সেখানে সের্গেই কিলায়েকের সঙ্গে তিনি কথা বলেছেন। তাতে রাশিয়ার সঙ্গে সম্পর্কের স্ট্র্যাটেজি বা কৌশল পুনর্নিধারণে ট্রাম্পের খায়েশ নিয়ে আলোচনা করা হয়।

up-arrow