Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ আগস্ট, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৯ আগস্ট, ২০১৮ ২৩:৪৩
পরকীয়া কি অপরাধ?
প্রশ্ন ভারতের সুপ্রিম কোর্টের
পরকীয়া কি অপরাধ?

পরকীয়া কি আদৌ অপরাধ, নাকি একটি সামাজিক সমস্যা? এই প্রশ্ন তুলেছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। বিবাহ বহির্ভূত শারীরিক সম্পর্ক ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৭ নম্বর ধারা অনুযায়ী একটি অপরাধ এবং যে পুরুষ এ ধরনের সম্পর্কে যুক্ত থাকবেন বলে আদালতে প্রমাণিত হবে, তার সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের কারাদণ্ডের ব্যবস্থা রয়েছে দণ্ডবিধিতে। কিন্তু প্রায় দেড়শ বছর আগে দণ্ডবিধিতে যুক্ত হওয়া ওই ধারার যৌক্তিকতা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছে সর্বোচ্চ আদালত। দেড়শ বছর আগে যেভাবে নারী-পুরুষের সম্পর্ককে দেখা হতো, সেটা তো এখন হয় না। নারী-পুরুষ উভয়েই এক সঙ্গে কাজ করেন, হয়তো অফিসের প্রয়োজনে বাইরেও যান একই সঙ্গে। তাই মেলামেশার ধরন যেমন পাল্টেছে, তেমনই বদল এসেছে সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গিতেও। পরকীয়া শব্দটাকে আগে যেভাবে দেখা হতো, এখন আমরা নিশ্চয়ই সেভাবে দেখি না। অন্যদিকে পরিবার, সমাজ- এগুলোকেও রক্ষা করার প্রয়োজন। তাই দেড়শ বছরের পুরনো আইনের এই ধারাটার বদল ঘটানো প্রয়োজন - সব দিকে সামঞ্জস্য রেখে, বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন কলকাতা হাই কোর্টের আইনজীবী জয়ন্ত নারায়ণ চ্যাটার্জি। প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন পাঁচ সদস্যের এক বেঞ্চ বুধবার পরকীয়া নিয়ে কোনো চূড়ান্ত নির্দেশ না দিলেও কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে প্রশ্ন তুলেছেন। কেরালার এক বাসিন্দা কোর্টের কাছে আবেদন করেছিলেন ৪৯৭ নম্বর ধারাটি বাতিল করা হোক। মামলার শুনানিতেই আদালত প্রশ্ন তোলে একটি সম্পর্কে দুজন জড়িত হলেও তাদের মধ্যে পুরুষ মানুষটির সাজা হবে, আর নারীর সাজা হবে না, এটা অনুচিত। তবে আইনজীবী চ্যাটার্জি মনে করেন, বিধানটি একেবারে তুলে দিলে তা ব্যভিচারের আগলটা খুলে দেবে গোটা সমাজে। সেটাও অনুচিত হবে। তাই তিনি মনে করেন, যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পরকীয়া বা বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ককে নতুন আইনি দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখা উচিত। বিবিসি বাংলা

up-arrow