Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২৩:৫৪
ভারতে আলোচনায় ইভিএম নাকি ব্যালট
ভারতে আলোচনায় ইভিএম নাকি ব্যালট

ভারতে নির্বাচনের আর মাস ছয়েক বাকি। কিন্তু দেশটিতে নির্বাচনের আগে মাথা চাড়া দিয়েছে ইভিএম বিতর্ক। ভারতের সাধারণ নির্বাচন ‘ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন’-এ হবে, নাকি সাবেক ব্যালট পেপারে এই প্রশ্নে রাজনীতি সরগরম। তবে কেন্দ্রীয় সরকার ও শাসক দল ভারতীয় জনতা পার্টি এবং স্বতন্ত্র সংস্থা জাতীয় নির্বাচন কমিশন ইভিএমে ভোট গ্রহণের পক্ষে। কিন্তু কংগ্রেস, তৃণমূল, সিপিএম, সিপিআই, সমাজবাদী পার্টি, বহুজন সমাজ পার্টি, ডিএমকে, টিডিপি, আম আদমি পার্টি, রাষ্ট্রীয় জনতা দল, ন্যাশনাল কনফারেন্সসহ প্রায় সবকটি বিরোধী দল ইভিএমের পরিবর্তে ব্যালটে ভোট করানোর দাবি তুলেছে। এমনকি বিজেপির দীর্ঘদিনের সঙ্গী, তথা এনডিএ শরিক মহারাষ্ট্রের শিবসেনাও ইভিএমের পরিবর্তে ব্যালটে ভোট করানোর পক্ষে। শিবসেনাপ্রধান উদ্ধভ ঠাকরে এ-ও বলেছেন, ইভিএমে ভোট করানো হলে বিরোধীদের উচিত সেই ভোট বয়কট করা। সম্প্রতি রাজধানী দিল্লিতে নির্বাচন কমিশন আয়োজিত এক সর্বদল বৈঠকে আরও একবার এই দাবি জানিয়েছে বিরোধী শিবির। ওই বৈঠকে ৭টি জাতীয় দল ও ৫১টি রাজ্যস্তরের দলের প্রতিনিধিরা অংশ নেয়। বৈঠকের পর ভারতের মুখ্য নির্বাচন কমিশনার ওমপ্রকাশ রাওয়াত সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘কয়েকটি রাজনৈতিক দল ইভিএম নিয়ে তাদের আপত্তির কথা জানিয়েছে। তবে কমিশন এখনই কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি।’ যদিও বিশেষজ্ঞরা বলছেন ভারতে ব্যালট ফিরে আসার সম্ভাবনা প্রায় নেই বললেই চলে।    

উল্লেখ্য কংগ্রেস আমলেই ইভিএমে ভোটগ্রহণ পদ্ধতি শুরু হয়েছে। তাহলে এখন কেন এমন দাবি? আসলে এর পেছনে রয়েছে কিছু সন্দেহ। কিছু সংশয়। কিছু অবিশ্বাস। বিরোধীরা মনে করছে, ইভিএমে ভোট হলে যেভাবেই হোক জয় ছিনিয়ে নেবে শাসক দল বিজেপি। যুক্তি-পাল্টা যুক্তি সামনে আসছে। তবে আজ অবধি ইভিএমে নির্দিষ্টভাবে কারচুপির কোনো সঠিক তথ্য-প্রমাণ মেলেনি। এর আগে নির্বাচন কমিশন সর্বসমক্ষে ইভিএমে কারচুপি করে দেখানোর চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছিল রাজনৈতিক দলগুলোকে। কিছু দল তাতে অংশ নিলেও কয়েকটি দল অংশ নেয়নি।  তৃণমূল কংগ্রেসের প্রবীণ সংসদ সদস্য সুখেন্দুশেখর রায় জার্মানির গণমাধ্যম ডয়চে ভেলেকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ‘বিশ্বের বহু উন্নত দেশ ইভিএম ছেড়ে ব্যালটে ফিরে এসেছে। কারণ, অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে ইভিএমে কারচুপি করার সম্ভাবনা থেকেই যায়। এই বিতর্কের মধ্যে নির্বাচন কমিশন ভিভিপ্যাট আমদানি করেছে তারা। বর্তমান নিয়মে ইভিএমের সঙ্গে যু্ক্ত রাখা হয় এই ভিভিপ্যাট। প্রতিটি ভোটার ভোটদানের পর এই মেশিন থেকে একটি ছোট্ট কাগজ বের হয়। ফল ঘোষণার আগে মোট ভোটের সঙ্গে এই কাগজের হিসেব মিলিয়ে দেখা হয়। ডয়েচে ভেলে

এই পাতার আরো খবর
up-arrow