Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ টা প্রিন্ট ভার্সন আপলোড : ২১ জানুয়ারি, ২০১৯ ২৩:১৭
নাগরিকত্ব বিলে অল্পসংখ্যক বাংলাদেশি উপকৃত হবেন
ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়
কলকাতা প্রতিনিধি

নাগরিকত্ব (সংশোধনী) বিল আইনে পরিণত হলেও এর মাধ্যমে খুব অল্প সংখ্যক বাংলাদেশি নাগরিক লাভবান হবেন বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সিনিয়র কর্মকর্তা। তার দাবি, ২০১৫ সালে থেকে দীর্ঘমেয়াদি ভিসা ব্যবস্থা (লং টার্ম ভিসা বা এলটিভি) চালু হওয়ার পর এখনো পর্যন্ত প্রতিবেশী বাংলাদেশের দুই শতাধিকেরও কম মানুষ এর সুবিধা নিয়েছেন। তাই খুব সংখ্যক মানুষই এই আইনের সুবিধা নিতে পারবেন। নাম না প্রকাশ করার শর্তে রবিবার দিল্লিতে ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘২০১১ সাল থেকে ২০১৯ সালের ৮ জানুয়ারি পর্যন্ত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মাত্র ১৮৭ জন বাংলাদেশি নাগরিককে দীর্ঘমেয়াদি ভিসা দিয়েছে। যেখানে ওই একই সময়ে পাকিস্তানের প্রায় ৩৫ হাজার নাগরিক এই দীর্ঘমেয়াদি ভিসা গ্রহণ করেছেন। ওই কর্মকর্তা জানান, ‘দীর্ঘমেয়াদি ভিসা পেতে যেসব শর্ত পূরণ করতে হয় এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাসের পর ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতেও একই শর্ত পূরণ করে আবেদন করতে হবে। স্বাভাবিকভাবেই প্রস্তাবিত এই নতুন আইনে ভারতীয় নাগরিকত্ব পেতে খুব বেশি সংখ্যক বাংলাদেশি নাগরিক আবেদন করবেন না বলেই মনে করা হচ্ছে। একটি তথ্য দিয়ে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশি নাগরিকদের প্রদান করা ১৮৭টি দীর্ঘমেয়াদি ভিসার মধ্যে ২০১১ সালে চারটি, ২০১২ সালে ২৭টি, ২০১৪ সালে ৭৪টি, ২০১৫ সালে ২৬টি, ২০১৬ সালে ৫০টি, ২০১৭ সালে তিনটি এবং ২০১৮ সালে মাত্র দুটি এলটিভি দেওয়া হয়। ২০১৩ সালে কোনো বাংলাদেশি নাগরিককেই এলটিভি দেওয়া হয়নি।

অন্যদিকে পাকিস্তানি নাগরিকদের ক্ষেত্রে ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি থেকে গত ১৪ জানুয়ারি পর্যন্ত ৩৪ হাজার ৮৮৭ দীর্ঘমেয়াদি ভিসা প্রদান করা হয়েছে। উল্লেখ্য, প্রস্তাবিত নাগরিকত্ব (সংশোধনী) বিলটিতে ২০১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগে পর্যন্ত  আফগানিস্তান, পাকিস্তান ও বাংলাদেশ- এই তিন রাষ্ট্র থেকে হিন্দু, শিখ, বৌদ্ধ, জৈন, পার্শি ও খ্রিস্টান- এই ছয়টি সম্প্রদায়ের নাগরিকদের ধর্মীয় নির্যাতনের শিকার হয়ে ভারতে আসাদের নাগরিকত্ব দেওয়ার প্রস্তাব রাখা হয়েছে।

 ইতিমধ্যেই গত ৮ জানুয়ারি ভারতের লোকসভায় পাস হয়েছে এ বিলটি। যদিও রাজ্যসভায় তা এখনো পাস হয়নি।

up-arrow