Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৬:২২ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ৩ জানুয়ারি, ২০১৮ ১৬:২৮
প্রথমবারের মতো পাহাড়ে শুরু হচ্ছে ইজতেমা
ফাতেমা জান্নাত মুমু, রাঙামাটি
প্রথমবারের মতো পাহাড়ে শুরু হচ্ছে ইজতেমা

প্রথমবারের মতো পাহাড়ে শুরু হচ্ছে ইজতেমা। ধারণা করা হচ্ছে এখানে সমাগম হবে লাখো মানুষের। এরই মধ্যে সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। আগামীকাল বৃহস্পতিবার (০৪ জানুয়ারি) সকাল ৯টায় শহরের প্রবেশমুখ মানিকছড়ি বিসিক শিল্প নগরী মাঠে আম বয়ানের মধ্যদিয়ে শুরু হবে রাঙামাটির ইজতেমা। আগামী শনিবার (০৬ জানুয়ারি) আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে এ ইজতেমা। 

ইজতেমা মাঠে রাঙামাটি জেলার প্রায় ১০টি উপজেলাসহ অপর দুই পাহাড়ি জেলা খাগড়াছড়ি ও বান্দরবানের তাবলিগ অনুসারী ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা অংশ নিবেন। তাই পুরো এলাকা নিরাপত্তা চাদরের ঢেকে দিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। চারদিকে এখন সাজ সাজ রব। ইজতেমা আমেজে দূর-দূরান্ত থেকে ছুঠে আসছে হাজার হাজার মানুষ।

ইজতেমা আয়োজক কমিটি সূত্রে জানা গেছে, এবার এক পর্বে ইজতেমা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে রাঙামাটিতে। তবে প্রথমবার অনুষ্ঠিত এ ইজতেমায় পাহাড়ের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকেও হাজার হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করবে। এ ইজতেমা চলবে টানা তিনদিন পর্যন্ত। অনেকটা টঙ্গীর তুরাগ তীরের বিশ্ব ইজতেমার আদলে আয়োজন করা হয়েছে রাঙামাটির ইজতেমা। স্বেচ্ছাশ্রমের বিভিন্ন পেশার মুসলমান ধর্মাবলম্বীরা ইজতেমার মাঠে প্রস্তুতিমূলক কাজে অংশ নিয়েছেন। ময়দানে মুসল্লিদের কাতারবদ্ধ হওয়ার জন্য পুরো মাঠে দাগ কাটা সম্পন্ন হয়েছে। এছাড়া ইজতেমা ময়দানে মুসল্লিদের স্থানও (খিত্তা) নির্দিষ্ট করা হয়েছে।

তাবলীগ জামাত সুরা সদস্য মো. রমজান আলী জানান, সব কাজ করা হচ্ছে ঢাকার কাকরাইল মার্কাজ মসজিদের তত্ত্বাবধানে। পর্যাপ্ত পানি ও পয়ঃনিষ্কাষণ ব্যবস্থার পাশাপশি নিরিবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও প্যান্ডেল তৈরিসহ প্রতিটি কাজই আলাদা আলাদা গ্রুপের মাধ্যমে সম্পন্ন করা হচ্ছে। বিশেষ করে টঙ্গীর বিশ্ব ইজতেমার ভিড় কমাতে ও যারা ঢাকায় ইজতেমায় অংশ নিতে পারেন না তাদের জন্য এবার রাঙামাটিতে আঞ্চলিক ইজতেমার আয়োজন করা হয়েছে।

এদিকে ইজতেমাকে ঘিরে দূর-দূরান্ত থেকে আগত তাবলিগ অনুসারীদের জন্য ব্যাপক নিরাপত্তা জোরদার করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

এ ব্যাপারে রাঙামাটি মানিকছড়ি পুলিশ ক্যাম্প কর্মকর্তা আবু ইউসুপ জানান, এবার প্রথম রাঙামাটি ইজতেমার আয়োজন করা হয়েছে। হাজার হাজার মানুষের সমাগম হতে পারে ইজতেমার ময়দানে। তাই পুলিশের পক্ষ থেকে ব্যাপক নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। যাতে দূর-দূরান্ত থেকে আগত ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা নিরাপদে আল্লাহর ইবাদত বন্দেগী করতে পারেন। পুরো ইজতেমা এলাকায় জুড়ে যৌথবাহিনীর টহল থাকবে। কোন বিশৃঙ্খলাকারীকে ছাড় দেওয়া হবে না বলেও হুঁশিয়ারি করেন তিনি। 

বিডি-প্রতিদিন/০৩ জানুয়ারি, ২০১৭/মাহবুব

আপনার মন্তব্য

up-arrow