Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, শুক্রবার, ২৪ নভেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : ১ মার্চ, ২০১৭ ২১:২৬ অনলাইন ভার্সন
শিশু পাচারের অভিযোগে বিজেপিনেত্রী জুহি চৌধুরী আটক!
দীপক দেবনাথ, কলকাতা

শিশু পাচারের অভিযোগে বিজেপিনেত্রী জুহি চৌধুরী আটক!

শিশু পাচারের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে বিজেপি নেত্রী জুহি চৌধুরীকে রীতিমতো নাটকীয়ভাবে আটক করেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের সিআইডি গোয়েন্দারা। মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১১টার দিকে দার্জিলিং জেলার খড়িবাড়ি থানার নেপাল সীমান্তবর্তী বাতাসি থেকে তাকে আটক করা হয়।

জানা গেছে, ওই গ্রামে এক আত্মীয়ের বাড়িতে গা ঢাকা দিয়েছিলেন জুহি-এই খবর পেয়েই গত কয়েকদিন তার ওপর নজরদারি রাখছিলেন গোয়েন্দারা। নির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতেই তাকে ধরতে সিআইডির দুই গোয়েন্দা সন্ন্যাসীর ছদ্মবেশে সেখানে যান। জুহির আত্মীয়ের বাড়ির কাছের শনি মন্দিরে ছদ্মবেশে যাতায়াত শুরু করেন সিআইডি-র দুই ইন্সপেক্টর সৌগত ঘোষ ও কাকলি ঘোষ। জুহির আত্মীয়ের পরিজনদের সঙ্গে নিজেদের পরিচয়ও সেরে ফেলেন তাঁরা। এরপর জুহি ওই বাড়িতেই রয়েছেন-এই বিষয়টিতে নিশ্চিত হয়েই মঙ্গলবার রাতে আচমকাই ওই বাড়িতে প্রবেশ করেন গোয়েন্দারা। জুহিকে দেখতে পেয়েই নিজেদের পরিচয়পত্র দেখান তাঁরা। এরপর হাতে-নাতে বিজেপির এই নারী নেত্রীকে আটক করা হয়। তবে গোয়েন্দাদের হাতে ধরা না পড়লে বিদেশে পালানোর পরিকল্পনা ছিল শিশু পাচারের ঘটনায় অন্যতম অভিযুক্ত। এই পাচার চক্রে নাম জড়িয়েছে বিজেপি নেত্রী রূপা গাঙ্গুলী ও দলের কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয়েরও।

জলপাইগুড়ির শিশু হোমের প্রধান চন্দনা চক্রবর্তীর অভিযোগ এই দুইজনের সঙ্গেই নিয়মিত যোগাযোগ রাখতেন জুহি। যদিও বিজেপির এই নেতা-নেত্রীই তাদের বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন।

বুধবার জলপাইগুড়ি জেলা আদালতে তোলা হলে তাঁকে ১২ দিনের সিআইডি রিমান্ডের নির্দেশ দেয় আদালতের বিচারক। তবে আদালত থেকে বেরোনোর পথে নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করেছেন জুহি। তিনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়েও আমার মনোবল কেউ ভাঙতে পারবে না, আমার সিদ্ধান্ত বদল হবে না। সত্যকে কোন দিন ঢাকা দেওয়া যাবে না। সত্য একদিন সামনে আসবেই’।

এদিকে শিশু পাচারের মতো অভিযোগ ওঠায় বিজেপির সমস্ত পদ থেকে জুহি চৌধুরী ও তার বাবা রবীন্দ্রনাথ চৌধুরীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এদিন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানান, ‘নারী মোর্চার সাধারণ সম্পাদক থেকে জুহিকে বহিষ্কার করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। দলকে না জানিয়ে তারা যেভাবে দিল্লি গেছেন এবং তা নিয়ে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে এতে দলের ভাবমূর্তি নষ্ট হয়েছে। আইন তার কাজ করছে, যদি তিনি দোষী প্রমাণিত হন তবে তার শাস্তি হবে এবং তারা যদি নিজেদের নির্দোষ বলে প্রমাণিত করতে পারেন তখন দল আবার তাদের বিষয়টি ভেবে দেখবে’।

বিডি-প্রতিদিন/০১ মার্চ, ২০১৭/মাহবুব

 

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow