Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৮ মার্চ, ২০১৮ ০৯:০৫ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৮ মার্চ, ২০১৮ ১৩:০৫
স্ত্রীকে ছেড়ে শ্যালিকার ওপর নজর, অতঃপর...!
অনলাইন ডেস্ক
স্ত্রীকে ছেড়ে শ্যালিকার ওপর নজর, অতঃপর...!
ফাইল ছবি

চলতি মাসের ২ তারিখ মাধ্যমিক পরীক্ষার জন্য স্কুলে অ্যাডমিট কার্ড আনতে গিয়ে রহস্যজনক ভাবে নিখোঁজ হয়ে যায় ১৬ বছরের এক স্কুল ছাত্রী। পরিবারের তরফ থেকে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। পুলিশের পাশাপাশি নাবালিকার পরিবারের সদস্যরাও ওই কিশোরীর খোঁজ শুরু করেন। তখনই জানা যায় যে নাবালিকার বড় বোনের স্বামী তপন বারুইও নিখোঁজ রয়েছে। 

কিশোরীর খোঁজ করতে গিয়েই সংশ্লিষ্ট পরিবার জানতে পারে যে, তপন উত্তরপ্রদেশে তার শ্যালিকাকে লুকিয়ে রেখেছে। সেই মতো উত্তরপ্রদেশ থেকে তপনের কাছ থেকে সেই নাবালিকাকে উদ্ধার করে আনেন পরিবারের সদস্যেরা। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের উত্তর ২৪ পরগণা জেলার হাবরা এলাকায়।

ছাত্রীর বাবা কেনা দাস জানান, তার বড় মেয়ে টুম্পা দাসকে ভালোবেসে বিয়ে করে তপন এবং তাদের চার বছরের একটি পুত্রসন্তানও রয়েছে। টুম্পা দাসের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই যৌতুকের জন্য প্রবল অত্যাচার চালাত তপন। পাশাপাশি তপন তাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দিত বলেও অভিযোগ করেছেন তিনি।

ছাত্রীর পরিবারের অভিযোগ, ঠান্ডা পানীয়ের সঙ্গে কিছু খাইয়ে সেই কিশোরীকে গাড়িতে তুলে উত্তরপ্রদেশে নিয়ে যায় তপন। বোনের অপহরণের সঙ্গে স্বামী যুক্ত থাকার খবর পেয়ে তপনের কড়া শাস্তি চেয়েছেন টুম্পা। তপন নারীপাচার কাণ্ডেও জড়িত থাকতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন অপহৃত নাবালিকার বাবা।

ইতিমধ্যে তপনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে পকসো আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে। তবে ঘটনার জেরে সেই নাবালিকার এবছর আর মাধ্যমিক দেওয়া হল না বলে জানা গেছে।

 
বিডি প্রতিদিন/ আব্দুল্লাহ সিফাত তাফসীর 

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow