Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২০ জুন, ২০১৮ ১৭:১১ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২০ জুন, ২০১৮ ১৮:২২
হিজড়াদের নিয়ে কলকাতায় সাহিত্য সম্মেলন
দীপক দেবনাথ, কলকাতা:
হিজড়াদের নিয়ে কলকাতায় সাহিত্য সম্মেলন
bd-pratidin

লিঙ্গ পরিবর্তন কারী বা হিজড়াদের সৃজনশীলতাকে সকলের সামনে তুলে ধরতে এবার ‘লিটারারি মিট’ আয়োজন করতে চলেছে ভারতের সাহিত্য একাডেমী। আগামী মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে কলকাতায় বসতে চলেছে এই সাহিত্য সম্মেলন। সেখানে অংশ নেবেন রাজ্যের হিজড়া লেখক, কবি, সাহিত্যিকরা। সেক্ষেত্রে এই প্রথমবারের মতো একদিনের জন্য এই ধরনের ‘লিটারারি মিট’এর আসর বসতে চলেছে কলকাতা শহরে। যদিও অনুষ্ঠানের দিনক্ষণসহ অন্য বিষয়গুলি এখনও আলোচনা স্তরে রয়েছে বলে জানা গেছে। 

কলকাতায় এই অনুষ্ঠানের আসর বসলেও এর সাথে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের কোন ভূমিকা নেই। একথা জানিয়ে অনুষ্ঠানের উপদেষ্টা কমিটির সদস্য মানবী বন্দোপাধ্যায় জানান ‘এটা রাজ্য সরকারের কোন অনুষ্টান নয়। সাহিত্য একাডেমী এই অনুষ্ঠানে আয়োজক। হিজড়া লেখকদের লেখাকে তুলে ধরার ক্ষেত্রে এটা একটা অসামান্য উদ্যোগ’।

ভারতের প্রথম লিঙ্গ পরিবর্তন কারী (পুরুষ থেকে নারীতে রূপান্তরিত) কলেজ প্রিন্সিপাল মানবী বন্দোপাধ্যায় জানান ‘আমি এই অনুষ্ঠানের অ্যাডভাইজারি কমিটির একজন সদস্য। সাহিত্য একাডেমীর এক কর্মকর্তা যখন আমার সাথে এই অনুষ্ঠানের বিষয়ে যোাযোগ করলেন, আমি তখন কয়েকজন হিজড়া কবি, লেখক ও তাদের লেখা দিয়ে সহায়তা করি। ইতিমধ্যেই পাঁচ জন লেখক এই মিটে অংশগ্রহণ করবেন বলে তাদের সম্মতি জানিয়েছেন। যদিও আরও বেশি সংখ্যক যোগদানকারীকে এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে’।
  
রূপান্তরকামী ব্যক্তিদের প্রতিভা তুলে ধরার ক্ষেত্রে এই ‘লিটারারি মিট’কে একটা শক্তিশালি মঞ্চ বলে উল্লেখ করে মানবী জানান এই সম্প্রদায়ের অনেকেই সমাজে তাদেরকে মেলে ধরতে চায়। এই সম্প্রদায়ের একজন সদস্য হিসাবে আমি মনে করি যে আমাদের মধ্যে শিক্ষাবিদ, লেখক, কবি, সৃজনশীল ব্যক্তিরা প্রমাণ করতে চায় যে তাদের মধ্যেও কল্পনা, সৃজনশীলতা আছে। আমাদের স্বপ্ন রয়েছে। সাহিত্য একাডেমী একটা বড় প্ল্যাটফর্ম। তাই আমি মনে করি আমাদের নিজেদেরকে প্রমাণ করার ক্ষেত্রে এটা একটা বড় সুযোগ’। 

সাহিত্য একাডেমীর (পূর্বাঞ্চল) দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিহির সাহু জানান ‘লিটারারি মিট-এর দিন এখনও পর্যন্ত চূড়ান্ত হয় নি। এই ধরনের উদ্যোগের লক্ষ্য হল পশ্চিমবঙ্গের তৃতীয় লিঙ্গের কবি, লেখকদের সামনে নিয়ে আসা। আমরা আশা করছি ভবিষ্যতে এই ধরনের উগ্যোগ আরও নেওয়া হবে’। 

লিটারারি মিটে অংশ নিতে ইচ্ছুক এক রূপান্তরকারী এক ব্যক্তি অঞ্জলি মন্ডল জানান ‘আমি মনে করি হিজড়াদের সম্পর্কে সাধারণ মানুষের মনোভাব অনেক পরিবর্তন হয়েছে এবং পরিবর্তনের আরও সুযোগ রয়েছে। আমরা আমাদের পরিচয় প্রকাশ করতে কোন বিব্রত বোধ করি না এবং আমরা মানুষের উপহাসের পাত্র নই। এই লিটারারি মিট কেবলমাত্র আমাদের উদ্যেশ্যকে আরও শক্তিশালী করবে’।  

বিডি প্রতিদিন/এ মজুমদার

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow