Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ১৯:৫৫ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ২২:২২
'পশ্চিমবঙ্গ থেকে বাংলাদেশিদের বিতাড়িত করা হবে না'
দীপক দেবনাথ, কলকাতা:
'পশ্চিমবঙ্গ থেকে বাংলাদেশিদের বিতাড়িত করা হবে না'

জাতীয় নাগরিক পঞ্জি বা ন্যাশনাল রেজিস্টার অব সিটিজেনস'র (এনআরসি) নামে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ থেকে একজনকেও বিতাড়িত করা হবে না বলে জানিয়েছেন রাজ্যটির খাদ্য সরবরাহ মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। রাজ্যটিতে বসবাসকারী বাংলাদেশি অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের বিতাড়িত করার বিষয়ে বিজেপির বক্তব্যকে নস্যাৎ করে আজ বৃহস্পতিবার উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলার ব্যারাকপুরে এক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে মন্ত্রী জানান, পশ্চিমবঙ্গে যে জন্মেছে এবং পশ্চিমবঙ্গে যে বসবাস করছে তারা পশ্চিমবঙ্গেরই নাগরিক। 

তিনি বলেন, দিলীপ ঘোষ বা অমিত শাহরা চেষ্টা করলেও পশ্চিমবঙ্গ থেকে সেইসব মানুষদের বিতাড়িত করতে পারবে না। এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নাম হল মমতা ব্যানার্জি। অন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সাথে এরাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে গুলিয়ে ফেললে হবে না। মমতা ব্যানার্জির গায়ে যতক্ষণ পর্যন্ত এক বিন্দু রক্ত আছে ততক্ষণ পর্যন্ত এরাজ্য থেকে একটা মানুষকেও তারা (বিজেপি) বিতাড়িত করতে পারবে না।

উল্লেখ্য, গতকাল বুধবারই রাজ্যটির হাবড়াতে এক অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ দাবি করেছিলেন, পশ্চিমবঙ্গে প্রায় ১ কোটি অবৈধ বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারী রয়েছে। তাদের বিতাড়িত করতে অাসামের মতো এরাজ্যেও জাতীয় নাগরিক পঞ্জি চালু করা দরকার। দিলীপ ঘোষের সেই মন্তব্যের প্রেক্ষিতেই এদিন রাজ্যটির ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক এসব কথা বলেন। 

পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি চালু করা নিয়ে মন্ত্রী বলেন, এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পশ্চিমবঙ্গে এনআরসি চালু করতে গেলে ১৪ জন নরেন্দ্র মোদি, ১৪ জন অমিত শাহ এবং ১৪ জন দিলীপ ঘোষকে আসতে হবে। 

গত ৩০ জুলাই অাসামে প্রকাশিত হয় জাতীয় নাগরিক পঞ্জি (এনআরসি)-এর চূড়ান্ত খসড়া তালিকা। এনআরসি’এর কাছে জমা পড়া ৩.২৯ কোটি আবেদনকারীর মধ্যে চূড়ান্ত খসড়া তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয় ২.৮৯ কোটির কিছু বেশি মানুষের নাম। তালিকা থেকে বাদ পড়ে প্রায় ৪০ লাখ বাসিন্দা। আর তার পর থেকেই বিভিন্ন সময়ে এই ইস্যুতে বিতর্ক চলছেই। 

বিডি প্রতিদিন/মজুমদার

আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর
up-arrow