Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : ১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ০৯:২৮ অনলাইন ভার্সন
আপডেট : ১৯ নভেম্বর, ২০১৮ ১২:২২
অস্ত্রোপচার ছাড়াই গলায় আটকে থাকা কৈ মাছ উদ্ধার
অনলাইন ডেস্ক
অস্ত্রোপচার ছাড়াই গলায় আটকে থাকা কৈ মাছ উদ্ধার
প্রতীকী ছবি

গলার নলির মধ্যে একটি কৈ মাছ আটকে যাওয়ায় অসুস্থ অবস্থায় ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যের পূর্ব মেদিনীপুর জেলার তমলুক জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এক কিশোরকে। তবে কোন অস্ত্রোপচার ছাড়াই হাসপাতালের চিকিৎসকের চেস্টায় সুস্থ হয়ে উঠল সেই কিশোর।

জানা যায়, হাসপাতালে ভর্তির পর ক্রমেই তার অবস্থার অবনতি হতে থাকে। তমলুক জেলা হাসপাতালের চিকিৎসক ঝুঁকি নিয়ে অস্ত্রোপচার ছাড়াই কিশোরের গলা থেকে কৈ মাছ উদ্ধার করে তাকে সুস্থ করে তোলে। খুব স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনা এক নজির গড়েছে। চিকিৎসকদের প্রশংসায় পঞ্চমুখ কিশোরের পরিজনেরা।

সেই কিশোরের পরিবারের সদস্যরা জানায়, বাড়ির কাছে মাঠে বসার সময় আচমকা সেই কিশোরের চোখে পড়ে, পাশেই জলাশয়ে ভাসছে কৈ মাছের ঝাঁক। পানিতে ঝাঁপিয়ে একটি মাছ ধরে সেটি মুখে কামড়ে আরও মাছের সন্ধানে পানিতে হাতড়াচ্ছিলেন তমলুকের শিউরির বাসিন্দা ১৫ বছরের কিশোর আমিনুল মল্লিক।

কিন্তু কথা বলতে গিয়ে মুখে কামড়ে ধরে থাকা মাছটি চলে যায় গলায়। ধারাল কাঁটায় ক্ষত-বিক্ষত হতে থাকে গলার ভিতরের অংশ। যন্ত্রণায় ছটফট করতে করতে প্রায় নিস্তেজ হয়ে পড়ে আমিনুল। শেষ পর্যন্ত রক্ষা হল চিকিৎসকদের চেষ্টায়। অস্ত্রপচার ছাড়াই ইন্ডোস্কোপ পদ্ধতিতে জ্যান্ত কইমাছই গলা থেকে বের করতে সক্ষম হন চিকিৎসকরা।

রবিবার দুপুরে সাড়ে ১২ টা নাগাদ এই ঘটনার পর পরিবারের লোকেরা আমিনুলকে নিয়ে যান স্থানীয় কাঁকটিয়া স্বাস্থ্যকেন্দ্রে। সেখান থেকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর তমলুক জেলা হাসপাতালে রেফার করে দেওয়া হয় আমিনুলকে। এমন পরিস্থিতিতে অনেক ক্ষেত্রেই রোগীকে কলকাতার হাসপাতালে ‘রেফার’ করে দেওয়া হয়।

কিন্তু তমলুক জেলা হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক(ইএনটি সার্জন) বুঝতে পারেন, কলকাতায় পৌঁছানোর আগেই রোগীর স্বাস্থের অবনতি ঘটতে পারে। সে কারণে ঝুঁকি না নিয়েই তমলুক হাসপাতালেই আমিনুলের গলা থেকে কৈ মাছ বের করার চেষ্টা করেন তিনি এবং সফলও হন। বর্তমানে সুস্থ আছে আমিনুল।


বিডি-প্রতিদিন/আব্দুল্লাহ আল সিফাত

আপনার মন্তব্য

up-arrow