Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : ১৬ মার্চ, ২০১৯ ০৯:৩০
আপডেট : ১৬ মার্চ, ২০১৯ ১১:০৭

নুসরাত-মিমির চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তুললেন দিলীপ ঘোষ

অনলাইন ডেস্ক

নুসরাত-মিমির চরিত্র নিয়ে প্রশ্ন তুললেন দিলীপ ঘোষ

ভারতের আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গের যাদবপুর এবং বসিরহাটের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থীদের সম্পর্কে আপত্তিকর ইঙ্গিত রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ। অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী এবং নুসরাত জাহান সম্পর্কে গত কয়েক দিন ধরে যে সব কুরুচিকর পোস্ট ভেসে বেড়াচ্ছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়, সে প্রসঙ্গে কথা বলতে গিয়ে ওই দুই প্রার্থীর ‘চরিত্র’ নিয়ে প্রশ্ন তুললেন দিলীপ। এরপর থেকে গোটা রাজনৈতিক শিবিরে দিলীপের এই মন্তব্যের নিন্দা শুরু হয়েছে।

আনন্দবাজার পত্রিকার খবর, মিমি চক্রবর্তী এবং নুসরাত জাহান এবারের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের টিকিট পেয়েছেন। প্রার্থী হিসেবে তাদের নাম ঘোষিত হওয়ার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় শুরু হয়েছে তাদের নিয়ে নানা ঠাট্টা-তামাশা, যেগুলির অধিকাংশই অত্যন্ত কুরুচিকর। তাদের যোগ্যতা সম্পর্কে প্রশ্ন তোলা শুরু হয়েছে আপত্তিকর ভঙ্গিতে। অন্য সব পেশার মানুষ যদি রাজনীতিতে যোগ দিতে পারেন, তা হলে ফিল্ম ইনডাস্ট্রির কেউ পারবেন না কেন? মিমি-নুসরতদের হয়ে এই প্রশ্নও কেউ কেউ তুলতে শুরু করেছেন। কিন্তু কুরুচিকর মন্তব্যের স্রোতে সে সব কণ্ঠস্বর ভেসে যাচ্ছে।

কোনো নির্দিষ্ট রাজনৈতিক দলের ব্যানারে এই সব হাস্যকর ও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য ও ছবি তৈরি হচ্ছে, এমন নয়। কিন্তু শালীনতার সীমা ছাড়িয়ে যেভাবে মিমি চক্রবর্তী বা নুসরাত জাহানকে আক্রমণ করা হচ্ছে, তা যে তৃণমূলের কর্মী-সমর্থকরা করবেন না, সে কথা বলাই বাহুল্য।

শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ নিজেই মিমি-নুসরাত প্রসঙ্গে মুখ খোলেন। মমতা ব্যানার্জির আত্মবিশ্বাস কমে গেছে বলেই মিমি-নুসরাতদের প্রার্থী করা হচ্ছে বলে তিনি মন্তব্য করেন। তার কথায়, ‘‘কোথায় সুগত বসু, কোথায় মিমি! কোথায় ইদ্রিস আলি, কোথায় নুসরাত!’’ এদের কী অবদান রয়েছে, এরা মানুষের জন্য কী করেছেন, এদের অভিজ্ঞতা কতটা— তা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন দিলীপ ঘোষ।

রাজ্য বিজেপি সভাপতির এই মন্তব্যের প্রেক্ষিতেই মিমি-নুসরাতদের সম্পর্কে ভেসে বেড়ানো সেই আপত্তিকর পোস্টগুলির প্রসঙ্গও ওঠে সংবাদ সম্মেলনে? মিমি-নুসরাতকে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় যে সব চর্চা চলছে, সে সম্পর্কে তার মতামত জানতে চাওয়া হয়। তাতেই সুস্থ রুচির সীমা ছাড়িয়ে যান দিলীপ। তিনি বলেন, ‘‘চর্চা ওদের নিয়ে হবে না তো কি আপনাকে-আমাকে নিয়ে হবে? যারা যে গোত্রের, যাদের চরিত্র যে রকম, তাদের নিয়েই চর্চা হয়। আপনাকে-আমাকে নিয়ে এই রকম চর্চা কখনও হবে না।’’ রাজ্য বিজেপির সভাপতি তাতেই থামেননি। তিনি আরও বলেন, ‘‘কোথা থেকে আপনি এসেছেন, কোথা থেকে কোথায় পৌঁছেছেন, আপনাকে ভাবতে হবে তো। বাংলা কি এত ভিখারি হয়ে গেছে।’’

দিলীপের এই মন্তব্যকে চূড়ান্ত অসংবেদনশীল হিসেবেই দেখছে রাজনৈতিক শিবির। সোশ্যাল মিডিয়ায় চলতে থাকা কুরুচিকর পোস্টগুলোকে দিলীপ ঘোষ কি তা হলে সমর্থন করেছেন? প্রশ্ন উঠে গেছে নানা মহল থেকে।

অবশ্য বিজেপির সকলেও যে দিলীপের মতোই ভাবছেন, তা কিন্তু নয়। সোশ্যাল মিডিয়ায় মিমি-নুসরতকে অসংবেদনশীলতার শিকার হতে হচ্ছে, সে প্রসঙ্গে শুক্রবার সকালেই প্রশ্ন করা হয়েছিল আর এক সেলিব্রিটি রাজনীতিক বাবুল সুপ্রিয়কে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী তথা আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী বাবুল অবশ্য সংবেদনশীলতার পরিচয় দেন। মিমি-নুসরাতের পাশে দাঁড়িয়ে তিনি জানান, সোশ্যাল মিডিয়ার এই প্রবণতাকে তিনি সমর্থন করেন না। বাবুল বলেন, ‘‘আমি নিজেও ফেসবুকে-টুইটারে এগুলো দেখেছি, আমার বন্ধুবান্ধবরা মজার ছলে সে সব আমাকেও পাঠাচ্ছেন। কিন্তু আমি মনে করি যে, যদি একজন ডাক্তারের ছেলে ভোটে নামতে পারেন, যদি একজন উকিলের ছেলে ভোটে নামতে পারেন, তা হলে ওঁরাও (মিমি-নুসরাত) পারেন।’’ বাবুল সুপ্রিয় আরও বলেন, ‘‘মিমি এবং নুসরাত আমার সহকর্মী, আমরা একসঙ্গে কাজ করেছি। তাঁরা যদি ভোটে নামার সিদ্ধান্ত নেন, তা হলে তাঁদের নিয়ে এই রকম কুরুচিকর মিম ছড়ানো উচিত নয়। আমি মানুষকে অনুরোধ করব, এটা করবেন না।’’

 বিডি-প্রতিদিন/১৬ মার্চ, ২০১৯/মাহবুব


আপনার মন্তব্য