Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০১৫ ০০:০০ টা
আপলোড : ১৭ অক্টোবর, ২০১৫ ০২:২৮

খুঁড়িয়ে চলছে কুষ্টিয়ার জেনারেল হাসপাতাল

নিজস্ব প্রতিবেদক

খুঁড়িয়ে চলছে কুষ্টিয়ার জেনারেল হাসপাতাল

জনবল সংকটে কাহিল হয়ে পড়েছে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতাল। জেলার ২২ লাখ মানুষের উন্নত চিকিৎসার একমাত্র ২৫০ শয্যার এ হাসপাতালটি কার্যত চলছে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে। চিকিৎসাসেবায় খুলনা বিভাগীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ন এবং সারা দেশে রানারআপ হওয়ার গৌরব অর্জন করলেও এ প্রতিষ্ঠানের চিকিৎসাসেবার মান নিয়ে রোগীদের রয়েছে বিস্তর অভিযোগ।

১৯৬৩ সালে স্থাপিত এ হাসপাতালের শুরুতে শয্যা সংখ্যা ছিল ১৫০। ২০০৫ সালে উদ্বোধন হলেও ২০১০ সালে হাসপাতালটিতে ২৫০ শয্যার কার্যক্রম শুরু হয়। ২০১১ সালে কুষ্টিয়া মেডিকেল স্কুলে (ম্যাটস) কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ চালুর দুই বছর পর কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালকে অস্থায়ী ভিত্তিতে মেডিকেল কলেজ হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়। ফলে এখন শুধু কুষ্টিয়া নয়, আশপাশের জেলা ঝিনাইদহ, মেহেরপুর, চুয়াডাঙ্গা ও রাজবাড়ীর মানুষের উন্নত চিকিৎসার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে এ হাসপাতাল। তবে সেভাবে বাড়েনি লোকবল, বাজেট এবং সেবার মান। হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) ডা. তাপস কুমার সরকার জানান, জনবল কাঠামো অনুযায়ী হাসপাতালে সব মিলিয়ে ৬০ জন চিকিৎসক থাকার কথা। সেখানে আছে মাত্র ৩৩ জন। এ ছাড়া সেবিকা ও বিভিন্ন বিভাগের টেকনোলজিস্টসহ অন্যান্য ৭১টি পদেও লোকবল নেই। আরএমও আরও জানান, হাসপাতাল ২৫০ শয্যার হলেও প্রতিদিন ৫০০ থেকে ৫৫০ জন রোগী ভর্তি থাকেন। এ ছাড়া প্রতিদিন বহির্বিভাগে আসা প্রায় ১৫০০ রোগীর সেবা দিতে অন্তত ১৫ জন চিকিৎসকের প্রয়োজন থাকলেও তা সামলাতে হচ্ছে ৫ জন চিকিৎসককে দিয়ে। জরুরি বিভাগের ৪টি পদ থাকলেও পদশূন্যতায় মাত্র একজন চিকিৎসককে দিয়ে কাজ চালাতে হয়। সার্জিক্যাল বিভাগে কনসালটেন্ট চিকিৎসকের তিনটি পদের মধ্যে একজনকে দিয়েই কাজ চালাতে হচ্ছে। হাসপাতালের একমাত্র মেডিসিন কনসালটেন্ট সালেক মাসুদ এক বছর আগে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজে বদলি হয়েছেন। এরপর আজ পর্যন্ত ওই পদে কোনো কনসালটেন্টকে স্থলাভিষিক্ত করা হয়নি। এক বছর আগে গাইনি কনসালটেন্ট রুমী ফরহাদ আরা কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজে বদলি হলেও সেখানে নতুন কাউকে নিয়োগ দেওয়া হয়নি। দুই বছর ধরে নেই অ্যানেসথেসিয়া কনসালটেন্ট। ডা. তাপস কুমার আরও বলেন, হাসপাতালে মাত্র তিনটি অপারেশন থিয়েটার রয়েছে। রোগীর যে চাপ তাতে আরও তিনটি অপারেশন থিয়েটার দরকার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন চিকিৎসক জানান, কেবলমাত্র কুষ্টিয়া জেলার রোগী হলেও সেবার মান আরেকটু বাড়ানো যেত। কিন্তু মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা দেওয়ায় বাইরে থেকেও অনেক রোগী উন্নত চিকিৎসার আশায় এখানে আসছেন। তাদের বেশির ভাগের চিকিৎসা নিজ নিজ জেলা হাসপাতালেই করা সম্ভব। ওইসব হাসপাতালের চিকিৎসকরা নিজেদের ফ্রি রাখতে সাধারণ রোগীদেরও কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠিয়ে দিচ্ছেন। এতে দিন দিন সংকট আরও প্রকট আকার ধারণ করছে। ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, হাসপাতালে দালালচক্রের খপ্পরে পড়ে হয়রানির ঘটনা নিয়মিত হয়ে দাঁড়িয়েছে। কতিপয় অসাধু চিকিৎসকের বিরুদ্ধে রোগীদের ভালো চিকিৎসার প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন ক্লিনিকে প্রেরণের বিষয়টি এখন ওপেন সিক্রেট। অপ্রয়োজনে বিভিন্ন ডায়াগোনসিস আইটেমের তালিকা রোগীর হাতে ধরিয়ে দিয়ে চিকিৎসকের পছন্দের ক্লিনিকে যেতে বাধ্য করানোর ঘটনা ঘটছে। অন্যথায় রিপোর্ট ছুড়ে ফেলে দেওয়ার ঘটনাও ঘটে। এ ছাড়া শল্যচিকিৎসার রোগীদের ক্ষেত্রে ভোগান্তি সবচেয়ে বেশি। সিরিয়ালের জটিলতায় মাসের পর মাস ধরে ঘুরতে থাকার অভিযোগ রয়েছে। বহির্বিভাগে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের দিনভর লাইনে দাঁড়িয়ে থেকে চিকিৎসা না পেয়ে ফিরে যাওয়ার ঘটনা হরহামেশাই ঘটছে। উদাহরণস্বরূপ  নৌকা শ্রমিক আসগার আলীর স্ত্রীর কথা উলে­খযোগ্য। দৌলতপুর উপজেলার চিলমারী থেকে এই নৌকা শ্রমিক অপারেশনের জন্য তার স্ত্রীকে ভর্তি করিয়েছিলেন হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে। আসগার জানান, মাসাধিককাল অপারেশনের অপেক্ষায় থেকে অবশেষে এক দালালের মাধ্যমে চিকিৎসকের পরামর্শে শহরের একটি ক্লিনিকে গিয়ে ভর্তি হয়ে দুই দিনের মাথায় চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরতে হয়েছে। মাঝখান থেকে তার একমাত্র মাথা গোঁজার ঠাঁই টিনের ঘরটি বিক্রি করতে হয়েছে ক্লিনিকের বিল মেটাতে। এ ছাড়া সদর উপজেলার উজানগ্রামের কৃষক আলাউদ্দিনের স্ত্রী রোমেলা খাতুন প্রসব বেদনায় ভর্তি হয়েছিলেন হাসপাতালে। জরুরি সিজারের প্রয়োজন হলেও হাসপাতালে সম্ভব হয়নি। গাইনি ওয়ার্ডের নার্সের পরামর্শে জরুরি ভিত্তিতে শহরের একটি ক্লিনিকে নিয়ে ৮ হাজার টাকার চুক্তিতে সিজার করতে হয়েছে। ভেড়ামারা উপজেলার চণ্ডীপুর গ্রামের আয়েশা খাতুন তার সাড়ে তিন মাসের বাচ্চাকে শ্বাসকষ্টজনিত সমস্যায় ডাক্তার দেখাতে বহির্বিভাগের টিকিট নিতে লাইনে দাঁড়িয়ে সময় দিতে হয়েছিল দুই ঘণ্টা। টিকিট নিয়ে শিশু বিভাগের ডাক্তারের কক্ষে সিরিয়াল দিয়ে দুপুর ২টা পর্যন্ত অপেক্ষা করা অবস্থায় ডাক্তার বেরিয়ে চলে যান। অবশেষে চিকিৎসা না পেয়ে সেখানে বিচরণকারী এক দালালের মোবাইল ব্যবহার করে বাড়িতে ফোন করে টাকা ধার এনে শহরের কলেজ মোড়ের একটি ক্লিনিকে হাসপাতালের চেম্বার থেকে বেরিয়ে আসা ওই একই চিকিৎসকের কাছেই বাচ্চাকে দেখানো হয়। তারপর চিকিৎসাপত্র নিয়ে বাড়ি ফিরে যান আয়েশা খাতুন। কুমারখালী উপজেলার বানিয়াপাড়া গ্রামের ভ্যানচালক আজিজুল (৩৮) মূত্রনালির জটিলতায় ভর্তি হয়েছিলেন এ হাসপাতালে। ভর্তি পর সাত দিন চিকিৎসা চলাকালীন থেকে ছাড়পত্র পাওয়া পর্যন্ত সব ওষুধ বাইরের দোকান থেকে ক্রয় করতে তার জীবিকার একমাত্র বাহন ভ্যানগাড়িটি বিক্রি করতে হয়েছে। এমন সব অভিযোগ হাসপাতালের চিকিৎসাসেবাকে কেন্দ্র করে। সিভিল সার্জন ডা. মুস্তাফিজুর রহমান জানান, জেলার ছয়টি উপজেলার স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে অপেক্ষাকৃত নবীন চিকিৎসকদের দিয়ে কোনোভাবে কাজ চালাতে পারলেও উন্নত চিকিৎসার জন্য জেনারেল হাসপাতালে আসা রোগীদের সেবা কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে। কারণ চিকিৎসক সংকট। এ ছাড়া রোগীদের বিভিন্ন ক্লিনিকে পাঠানোর অভিযোগও আসে কিছু কিছু চিকিৎসকের বিরুদ্ধে।

হাসপাতালের উপপরিচালক (ভারপ্রাপ্ত) ডা. আবদুল মান্নান অভিযোগের বিষয়ে জানান, জেলা পর্যায়ের হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানদণ্ডের বিবেচনায় এখানে আগত রোগীর চাহিদা হিসেবে অন্তত তিনটি এক্সরে, একটি এমআরআই, একটি সিটিস্ক্যান, একটি অটো এনালাইজার, একটি বায়োকেমিস্ট্রি এনালাইজারসহ এরসঙ্গে সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞ/টেকনিশিয়ান প্রয়োজন থাকলেও আজ পর্যন্ত এসব শূন্যতা পূরণ হয়নি। ক্রমবর্ধমান রোগীর সেবা নিশ্চিত করতে ২৪ ঘণ্টার কাজ চালাতে এক্সরে অপারেটর ৬-৮ জনের স্থলে আছে মাত্র একজন, প্যাথলজি ল্যাবের কাজ চালাতে ৬-৮ জনের স্থলে আছে মাত্র দুজন। ২৫০ শয্যার হাসপাতালে বরাদ্দকৃত ওষুধপথ্যে ৫০০-৬০০ রোগীর সেবা দিতে হলে অতিরিক্ত ওষুধ বাইরের দোকান থেকে নেওয়া ছাড়া বিকল্প নেই। এমন বাস্তব চিত্রে সেবা নিশ্চিত করা দুরূহ ব্যাপার। এই সংকটের উত্তরণ ব্যতীত রোগীদের অভিযোগ দূর করা সম্ভব নয়। এই পরিস্থিতির সুযোগকেই কাজে লাগাচ্ছে ক্লিনিক ব্যবসায়ীদের দুষ্টচক্র। তাদের পাল্লায় পড়ে রোগীরা সীমাহীন হয়রানির শিকার হয়ে চলেছেন। তার মতে, সীমাবদ্ধতার মধ্যে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা সত্তে¡ও কাক্সিক্ষত সেবা নিশ্চিত করা সম্ভব হচ্ছে না।


আপনার মন্তব্য