Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১ জুন, ২০১৬ ২৩:৩১
মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে প্রচারণা
বিভিন্ন স্থানে হামলা সংঘর্ষ, নিহত ১
নিজস্ব প্রতিবেদক
মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে প্রচারণা

ষষ্ঠ ধাপের ৭১৮ ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) ভোট গ্রহণ আগামী ৪ জুন। ফলে আজ মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে প্রচার-প্রচারণা।

প্রার্থীরা শেষ সময়ের আগ পর্যন্ত শেষ মুহূর্তের প্রচারণা চালাতে পারবেন। নির্বাচন সামনে রেখে আজই মাঠে নামছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা।

বিভিন্ন সূত্র    জানিয়েছে, ভোট গ্রহণের যাবতীয় প্রস্তুতি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। তবে বিভিন্ন ইউপিতে নির্বাচনী সহিংসতা অব্যাহত থাকায় নানা শঙ্কার মধ্যে রয়েছেন প্রার্থীরা। ভোটাররাও উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। বিশ্লেষকরা বলছেন, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি ইসির নিয়ন্ত্রণের বাইরে বলে মনে হচ্ছে। সূত্রমতে, প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়, চতুর্থ ও পঞ্চম ধাপে ব্যাপক সংঘাতের পর ষষ্ঠ ধাপের নির্বাচন সামনে রেখেও সংঘাত-সহিংসতা হচ্ছে। প্রতিনিয়ত ঘটছে প্রাণহানি। এ নিয়ে উদ্বিগ্ন খোদ নির্বাচন কমিশনও। যদিও ইসি ভোটারদের অভয় দিয়ে নির্বিঘ্নে ভোট কেন্দ্রে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। নির্বাচন কমিশন সূত্র জানিয়েছে, ষষ্ঠ ধাপে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রয়েছেন ৩ হাজারের বেশি। এ ধাপেও ২৮ জন একক প্রার্থী হিসেবে ভোটের আগেই নির্বাচিত হয়েছেন। তবে আগের পাঁচটি ধাপে বিনা ভোটে নির্বাচিত ১৯৩ জনের সবাই ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থী হলেও ষষ্ঠ ধাপে দুজন স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। নির্বাচন কমিশন সচিবালয় থেকে পাওয়া তথ্যানুযায়ী, ২২ মার্চ প্রথম ধাপের ইউপি নির্বাচনে ৫৪, ৩১ মার্চ দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে ৩৪, ২৩ এপ্রিল তৃতীয় ধাপে ২৯, ৭ মে অনুষ্ঠিত চতুর্থ ধাপে ৩৫ এবং পঞ্চম ধাপে ৪১ জন বিজয়ী হন। ফলে ছয় ধাপে ২২১ জন বিনা ভোটে চেয়ারম্যান হলেন। মাঠে পুলিশ-র‌্যাব-বিজিবি : ষষ্ঠ ধাপের ইউপি নির্বাচন সামনে রেখে আজ মাঠে নামছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। সব নির্বাচনী এলাকায় আজ থেকে ৫ জুন পর্যন্ত তারা মোতায়েন থাকবেন। এ ক্ষেত্রে পুলিশ, র‌্যাব, আনসার, বিজিবি, কোস্টগার্ডসহ বিভিন্ন সংস্থার ফোর্স মাঠে থাকবে। ইসি সূত্রগুলো জানিয়েছে, সাধারণ ও ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রভেদে ১৭ থেকে ২০ জনের ফোর্স মোতায়েন থাকবে। এ ক্ষেত্রে কেবল ভোটের দিনই লক্ষাধিক ফোর্স ভোট কেন্দ্রের নিরাপত্তায় নিয়োজিত থাকবে। এ ছাড়া আজ থেকে ভোটের পর দিন পর্যন্ত মোট চার দিনের জন্য মাঠে থাকবে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি, কোস্টগার্ডের মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স। আজ প্রচারণা শেষ : নির্বাচন আচরণবিধি অনুযায়ী ভোট গ্রহণ শুরুর ৩২ ঘণ্টা আগে সব ধরনের নির্বাচনী প্রচারণায় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এজন্য আজ মধ্যরাত অর্থাৎ ১২টা থেকে সব ধরনের প্রচারণা বন্ধ করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। মোটরসাইকেলসহ যান চলাচল নিষিদ্ধ : গতকাল মধ্যরাত থেকে নির্বাচনী এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। এ ছাড়া ভোটের আগের রাত থেকে ৩২ ঘণ্টা সব ধরনের যান চলাচল নিষিদ্ধ করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের এক নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ভোট গ্রহণের পূর্ববর্তী দিন থেকে ভোট গ্রহণের দিন মধ্যরাত পর্যন্ত নির্বাচনী এলাকায় মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে। এ ছাড়াও ভোট গ্রহণের আগের মধ্যরাত থেকে ভোটের দিন মধ্যরাত পর্যন্ত সব ধরনের যানবাহন চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

বিভিন্ন স্থানে হামলা সংঘর্ষ, নিহত ১ : ইউপি নির্বাচন নিয়ে সহিংসতা চলছেই। দীর্ঘ হচ্ছে মৃত্যুর মিছিল। এ তালিকায় সর্বশেষ যোগ হয়েছেন নরসিংদীর এক পথচারী। গতকাল নির্বাচন-পরবর্তী আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের টেঁটাযুদ্ধে প্রাণ হারান তিনি। এ সময় আহত হন ৩০ জন। এ নিয়ে চলমান ইউপি নির্বাচনে নিহতের সংখ্যা দাঁড়াল ১২৩। এ ছাড়া ঢাকার সাভার, রংপুরের বদরগঞ্জ, ফেনী, বগুড়া, ময়মনসিংহে হামলা, সংঘর্ষ, ভাঙচুর হয়েছে। এসব ঘটনায় জখম হয়েছেন ৪৫ জন। যশোরে আটক হয়েছেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী। নিজস্ব প্রতিবেদক ও প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর—

নরসিংদী : রায়পুরার নীলক্ষ্যা ইউনিয়নে নির্বাচন-পরবর্তী সহিংসতাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই পক্ষে গতকাল সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় এলাকায় আতঙ্ক সৃষ্টি করতে ২০-২৫টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটানো হয়। একটি ককটেল লিটন মিয়া (২৮) নামে এক পথচারীর বুকে লেগে বিস্ফোরিত হলে ঘটনাস্থলেই মারা যান তিনি। সংঘর্ষের সময় টেঁটাবিদ্ধ হয়ে আহত হয়েছেন তিন পুলিশ সদস্যসহ ৩০ জন। ভাঙচুর করা হয়েছে প্রায় ২৫টি বাড়িঘর। পঞ্চম দফা নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিজয়ী প্রার্থী ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী পরাজিত প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে এ সংঘর্ষ ঘটে। নিহত লিটন নীলক্ষ্যার আমিরাবাদ গ্রামের মহারাজ মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল হক ও তার ছেলে কাইয়ুমকে আটক করেছে পুলিশ। এএসপি (সার্কেল) খালেদ বিন মালেক জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। সংঘর্ষ থামাতে গিয়ে কয়েক পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন। সাভার : ঢাকা সাভারের বিরুলিয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ-বিএনপি সংঘর্ষ, গোলাগুলি হয়েছে। গত রাতের এ ঘটনায় আহত হয়েছেন ২৫ জন। এ সময় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা একটি বেসরকারি টেলিভিশনের গাড়িসহ কয়েকটি যানবাহন ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার সন্ধ্যার পর বিরুলিয়া ইউপির বিএনপি প্রার্থী মাহমুদুল হাসান আলাল নেতা-সমর্থক নিয়ে শ্যামপুর এলাকায় প্রচারণা চালান। রাত সাড়ে ৮টার ফেরার পথে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সুজনের লোকজন দুই শতাধিক নেতা-কর্মী নিয়ে তাদের উপর হামলা চালায়। এ সময় দুই পক্ষে সংঘর্ষ বেধে যায়। বদরগঞ্জ : রংপুরের বদরগঞ্জে সংঘর্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। তাদের উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। মধুপুর ইউনিয়নের কাজিপাড়ায় গতকাল এ ঘটনা ঘটে। এলাকাবাসী ও পুলিশ জানায়, মধুপুর ইউনিয়নের কাজিপাড়ায় বিজয়ী (স্বতন্ত্র) ও বিজিত আওয়ামী লীগ প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে সংঘর্ষ বাধে। খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। বগুড়া : শাজাহানপুর ইউনিয়নে বিএনপি প্রার্থীর সমাবেশে হামলায় তিনজন আহত হয়েছেন। তাদের বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেলে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। মঙ্গলবার রাতে গোহাইল ইউনিয়নে ধানের শীষের প্রার্থী মিজানুর রহমান মতিনের পক্ষে গোহাইল বন্দরে সমাবেশ আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা বিএনপির সভাপতি ভিপি সাইফুল ইসলাম। সন্ধ্যা থেকে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর কর্মী-সমর্থকরা সমাবেশ করতে দেবে না বলে ঘোষণা দেন। রাত সাড়ে ৮টায় সমাবেশ শুরু হলে একদল যুবক হামলা করে।   ময়মনসিংহ : গফরগাঁওয়ে ষষ্ঠ দফা নির্বাচন সামনে রেখে বিএনপি প্রার্থীর উঠোন বৈঠকে হামলা করেছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। পাগলা থানার পাঁচবাগ ইউনিয়নে গতকাল এ ঘটনা ঘটে। এ সময় দুজনকে কুপিয়ে জখম করা হয়। ভাঙচুর করে একটি ডেকোরেটরের দোকান ও রিকশা গ্যারেজ। পাগলা থানার ওসি জানান, দুই পক্ষের মধ্যে একটু সংঘর্ষ হয়েছে।

তেমন কিছু না। ফেনী : সদর উপজেলার ধর্মপুর ইউনিয়নে তিনটি বাড়ি ও ২৫টি দোকানে ভাঙচুর করেছে দুর্বৃত্তরা। আমতলী বাজারে গতকাল ভোরে এ ঘটনা ঘটে। প্রতিবাদে সকাল থেকে বাজারে ধর্মঘট ডেকেছে ব্যবসায়ী সমিতি। হামলা চলাকালে ওই ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী শাহাদাত হোসেন শাকা ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আজহারুল হক আরজুর নির্বাচনী অফিসেও ভাঙচুর করা হয়। যশোর : চৌগাছায় আতিয়ার রহমান নামে এক চেয়ারম্যান প্রার্থীকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। ধুলিয়ানী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৪ জুন শেষ ধাপে এ উপজেলার ইউনিয়নগুলোতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। চৌগাছা থানার ওসি জানান, আতিয়ার একটি মামলার পরোয়ানার আসামি।

up-arrow