Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১ জুন, ২০১৬ ২৩:৪০
স্বরাষ্ট্রসহ তিন মন্ত্রণালয় হচ্ছে সাত ভাগ
নিজস্ব প্রতিবেদক

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ তিনটি মন্ত্রণালয়কে ভেঙে নতুন সাতটি বিভাগ করা হচ্ছে। অপর দুটি মন্ত্রণালয় হচ্ছে শিক্ষা এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়। তিনটি মন্ত্রণালয় ভেঙে নতুন সাতটি বিভাগ গঠনের লক্ষ্যে রাজস্ব খাতে নতুন পদ সৃষ্টিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্মতি দিয়েছে। কাজের চাপ কমাতেই এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। বেশ কিছুদিন ধরেই আলোচনা চলে আসছে স্বরাষ্ট্রসহ তিনটি মন্ত্রণালয়কে ভাগ করা হবে।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে ‘জননিরাপত্তা বিভাগ’ এবং ‘সুরক্ষা সেবা বিভাগ’ নামে দুটি ভাগে ভাগ করা সংক্রান্ত চিঠি গতকালই জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো হয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। এ দুটি বিভাগ গঠন চূড়ান্ত হলে দুই বিভাগে থাকবেন দুজন সচিব। দুই ভাগে বিভক্ত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের অধীনে থাকবে— রাজনৈতিক ও আইসিটি, পুলিশ, আনসার ও সীমান্ত, আইন ও শৃঙ্খলা, প্রশাসন ও অর্থ এবং উন্নয়ন বিভাগ। এ বিভাগে মোট পদ ১৬৩টি। অন্যদিকে সুরক্ষা সেবা বিভাগের আওতায় থাকবে— নিরাপত্তা ও এনটিএমসি (ন্যাশনাল টেলিকম মনিটরিং সেন্টার), অগ্নি ও মাদকদ্রব্য, আইন ও শৃঙ্খলা, বহিরাগমন, কারা ও সমন্বয়, প্রশাসন ও অর্থ এবং উন্নয়ন বিভাগ। সুরক্ষা সেবা বিভাগে সৃজিত পদের সংখ্যা ২৪৩। আর সব মিলিয়ে দুই বিভাগে ৪৯৩টি পদে কাজ করবেন কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিবকে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়েছে, বিভাগ ভাগ করার পাশাপাশি এ বিষয়ে অর্থ বিভাগের সম্মতি গ্রহণসহ বিধিগত সব আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করতে হবে। এরপর নিতে হবে প্রশাসনিক উন্নয়ন-সংক্রান্ত সচিব কমিটি এবং প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ছাড়াও শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ভেঙে নতুন পাঁচটি বিভাগ গঠনের জন্য রাজস্ব খাতে পদ সৃষ্টির বিষয়ে ইতিমধ্যে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্মতি দেয়। শিক্ষা মন্ত্রণালয় ভেঙে করা হচ্ছে ‘উচ্চশিক্ষা’, ‘মাধ্যমিক শিক্ষা’ এবং ‘কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা’ বিভাগ।  আর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ভেঙে গঠিত হচ্ছে ‘স্বাস্থ্যসেবা’ এবং ‘স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ’ বিভাগ। প্রশাসনিক উন্নয়ন-সংক্রান্ত সচিব কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, শিক্ষা মন্ত্রণালয় ভেঙে বিশ্ববিদ্যালয় এবং অনার্স, মাস্টার্স ও ডিগ্রি কলেজগুলো নিয়ে হবে ‘উচ্চশিক্ষা’ বিভাগ। প্রাথমিক শিক্ষার পর থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষাব্যবস্থার জন্য গঠন করা হবে ‘মাধ্যমিক শিক্ষা’ বিভাগ। সব মাদ্রাসা, কারিগরি ও ভোকেশনাল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নিয়ে হবে ‘কারিগরি ও মাদ্রাসাশিক্ষা’ বিভাগ। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ভেঙে গঠিত ‘স্বাস্থ্যসেবা’ বিভাগে থাকবে স্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর (মেডিকেল কলেজ, সব হাসপাতাল ও কমিউনিটি ক্লিনিক), স্বাস্থ্য অধিদফতর, সেবা পরিদফতর, ঔষধ প্রশাসন অধিদফতর, স্বাস্থ্য অর্থনীতি ইউনিট, নিমিউ অ্যান্ড টিসি ও টেমো। অন্যদিকে ‘স্বাস্থ্যশিক্ষা ও পরিবার কল্যাণ’ বিভাগে থাকবে মেডিকেল কলেজ, মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিশেষায়িত চিকিৎসাপ্রতিষ্ঠান। এ ছাড়া থাকবে নার্সিং কলেজ ও ইনস্টিটিউট, পরিবার পরিকল্পনা অধিদফতর, জাতীয় জনসংখ্যা গবেষণা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, মেডিকেল ও ডেন্টাল কাউন্সিল, বাংলাদেশ নার্সিং কাউন্সিল এবং ইউনানি, আয়ুর্বেদিক ও হোমিওপ্যাথিক বোর্ড। এসবের প্রতিটি বিভাগে থাকবেন একজন করে সচিব। নতুন বিভাগের জন্য পদ সৃষ্টিতে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সম্মতির পর এখন তা অনুমোদনের জন্য অর্থ মন্ত্রণালয়ে যাবে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পর প্রশাসনিক উন্নয়ন-সংক্রান্ত সচিব কমিটি নতুন বিভাগ গঠন ও জনবল-সংক্রান্ত বিষয়ে সম্মতি দিলে তা চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিসভায় উপস্থাপন করা হবে। মন্ত্রিসভার অনুমোদন পেলে তবেই নতুন বিভাগ গঠন করা হবে বলে জানা গেছে।




up-arrow