Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ৩ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৩ জুন, ২০১৬ ০০:০৩
ঈদে ৬ দিন মহাসড়কে চলবে না ট্রাক-লরি
নিজস্ব প্রতিবেদক

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রোজার ঈদ সামনে রেখে মহাসড়কে ট্রাক ও লরি চলাচলে ছয় দিনের কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। একই সঙ্গে রোজার ঈদের আগে-পরে মিলিয়ে মোট ১০ দিন সারা দেশে সব সিএনজি ফিলিং স্টেশন ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

রোজার ঈদ সামনে রেখে গতকাল রাজধানীর রমনা রেস্তোরাঁয় এক আন্তমন্ত্রণালয় সভার পর সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এসব কথা বলেন। ঈদে সড়ক-মহাসড়কে নিরবচ্ছিন্ন যান চলাচল নিশ্চিত করতে আয়োজিত এ সভায় উপস্থিত ছিলেন রেলমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ পরিবহন মালিকরা।   ওবায়দুল কাদের বলেন, ১ থেকে ১০ জুলাই দেশের সব সিএনজি ফিলিং স্টেশন  দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ঈদে ঘরমুখো যাত্রীদের সুবিধার জন্য অন্যান্য বছরের মতো এবারও কয়েক দিনের জন্য নিয়মে কিছুটা শিথিলতা এনে ২৪ ঘণ্টা গ্যাস বিক্রির অনুমতি দেওয়া হয়। এ বিষয়ে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সাধারণত বিকাল ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলো বন্ধ থাকে। তিনি আরও বলেন, ঘরমুখো মানুষের যাতায়াত নির্বিঘ্ন করতে এবারও ঈদের আগে তিন দিন ও পরে তিন দিন মহাসড়কে পণ্যবাহী ট্রাক, লরি ও কাভার্ড ভ্যান চলবে না। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য, পচনশীল দ্রব্য, তৈরি পোশাক, ওষুধ, কাঁচা চামড়া ও জ্বালানিবাহী গাড়ি এর আওতামুক্ত থাকবে। ওবায়দুল কাদের বলেন, ঈদযাত্রায় জটিলতা এড়াতে এবারও পোশাক কারখানাগুলোয় ধাপে ধাপে ছুটি দিয়ে ঈদের পর ভিন্ন ভিন্ন তারিখে কারখানা খোলার অনুরোধ জানানো হচ্ছে। গার্মেন্ট মালিকরা নিজেদের মধ্যে সমন্বয় করে ঠিক করবেন কোন পোশাক কারখানায় আগে ও কোনটিতে পরে ছুটি হবে। তিনি জানান, অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধে ভিজিল্যান্স টিম, চাঁদাবাজি বন্ধে ব্যবস্থা, মহাসড়ক মনিটরিংসহ নানা উদ্যোগ থাকবে। এ ছাড়া রেলমন্ত্রী মুজিবুল হক বলেন, রেলবহরে নতুন কোচ যোগ হয়েছে। তাই গতবারের চেয়ে এবার ঈদে বিশেষ ট্রেনের সংখ্যা বাড়ানো হবে। এ ছাড়া স্টেশনগুলোর নিরাপত্তাব্যবস্থাও জোরদার করা হবে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow