Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ৮ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ৮ জুন, ২০১৬ ০২:০৯
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সেমিনার
জামায়াতের গোড়ায় গলদ সহিংস আদর্শে
প্রতিদিন ডেস্ক

জামায়াতে ইসলামী নিয়ে রাজধানীতে এক সেমিনারে রাষ্ট্রবিজ্ঞানী অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান দলটির মূল রাজনৈতিক মতাদর্শে ভ্রান্তি রয়েছে মন্তব্য করে বলেন, তারা ইসলামের সহিংস ধারার আদর্শে দীক্ষিত। গতকাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত ওই সেমিনারে রাষ্ট্রবিজ্ঞানের একজন শিক্ষক তার প্রবন্ধে পরিস্থিতির সুযোগ নিতে জামায়াতে ইসলামী বহুবার মতাদর্শের বদল ঘটিয়েছে বলে অভিমত দিলে অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান বলেন, ধর্মনিরপেক্ষ আদর্শ ধারণ করলেও তাদের চরিত্রের হেরফের হবে না। খবর বিডিনিউজের। বিশ্ববিদ্যালয়ের আর সি মজুমদার মিলনায়তনে সেমিনারটি অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চতর সামাজিক বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রের উদ্যোগে আয়োজিত সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন কেন্দ্রের পরিচালক অধ্যাপক সাদেকা হালিম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক নাসরীন আহমাদ। প্রবন্ধের ওপর আলোচনা করেন অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান। সেমিনারে ‘হোয়েন কনফেশনাল পার্টিজ কম্প্রোমাইজ ইডিওলজি : এ কম্পারেটিভ স্টাডি অব জামায়াত-ই-ইসলামী ইন পাকিস্তান, বাংলাদেশ অ্যান্ড ইন্ডিয়া’ শীর্ষক প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মামুন আল মোস্তফা। তিনি তার প্রবন্ধে বলেন, ১৯৪১ সালে কার্যক্রম শুরুর পর থেকে রাষ্ট্রকাঠামো, জাতীয়তাবাদ, গণতন্ত্র, পুঁজিবাদসহ বিভিন্ন বিষয়ে নিজেদের অবস্থান সুবিধা পেলেই বদলে ফেলেছে জামায়াত। তার ভাষায়, বাংলাদেশে বিএনপিসহ ডানপন্থিরা জামায়াতের ‘পরীক্ষিত বন্ধু’। আর তাদের ‘শত্রু’ হলো তারা, যারা ধর্মনিরপেক্ষতার পক্ষে।

মামুন মোস্তফার প্রবন্ধের ওপর আলোচনায় অধ্যাপক সলিমুল্লাহ খান বলেন, ইসলামে যেমন একটি বিপ্লবী ঐতিহ্য আছে, তার বিপরীতে একটি প্রতিক্রিয়াশীল ঐতিহ্যও রয়েছে। ইসলামের ডানপন্থি প্রতিক্রিয়াশীল ঐতিহ্যের সন্তান জামায়াত। ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে তিনি বলেন, জামায়াত ১৯৪৭ সালে যে পাকিস্তানের বিরোধিতা করেছিল, ১৯৭১ সালে সেই পাকিস্তানের পক্ষে দাঁড়াল। দলটির বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতা করার ইতিহাস তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘তাহলে জামায়াত প্রতিবার ভুল করছে। জামায়াত বদলাচ্ছে। তাহলে প্রতিবারই ভুল করবে। কারণ তাদের কাঠামোর মধ্যে ভুল আছে।’ অধ্যাপক সাদেকা হালিম বলেন, ‘এই প্রবন্ধে একটি আলোচনার সূত্রপাত হয়েছে। এখানে অনেক বিষয় এসেছে। অনেকে মন্তব্য করেছেন। এ বিষয়গুলোকে যুক্ত করে আগামী ডিসেম্বরে আমরা জার্নালে এটি প্রকাশ করব।’ অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক এম এম আকাশ প্রমুখ।




up-arrow