Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ১০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১০ জুন, ২০১৬ ০১:৫৬
ইফতার বাজার
বাহারি ইফতারে বেইলি রোড
মোস্তফা মতিহার
বাহারি ইফতারে বেইলি রোড

সারা দিনের সিয়াম সাধনা শেষে ইফতারের সময়ই হচ্ছে রোজাদারের জন্য সবচেয়ে আনন্দের। আর এই সময়ে ভোজনরসিক বাঙালিদের চাহিদার শেষ থাকে না।

সারা দেশে বিভিন্ন শ্রেণির মানুষ সাধ ও সাধ্যের সমন্বয় ঘটিয়েই ইফতার করে থাকেন। রাজধানীর বাসিন্দারা এক্ষেত্রে খানিকটা ব্যতিক্রম। নবাবী, শাহী, মোগলাই বিভিন্ন ধরনের খাবার না খেলে তাদের ইফতারের আনন্দটাই ভেস্তে যায়। তাই পুরান ঢাকার ঐতিহ্যকে অনুসরণ করতে গিয়ে নতুন  ঢাকার বাসিন্দাদের মধ্যেও ইফতার নিয়ে চলছে এক ধরনের অঘোষিত প্রতিযোগিতা। আর ভোজনরসিক নগরবাসীর কথা বিবেচনা করে রাজধানীর ইফতারে দিন দিন আইটেম বৃদ্ধি পাচ্ছে। পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ইফতারের স্বাদের কথা যখন মানুষের মুখে মুখে, তখন যান্ত্রিক জীবনের রোজাদারদের পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ইফতারের স্বাদ ও সেবা প্রদানের জন্য ১৭৮টি আইটেম নিয়ে এগিয়ে এসেছে বেইলি রোডের ইফতারের দোকানগুলো।

এই যাত্রার পথপ্রদর্শক ঐতিহ্যবাহী ক্যাপিটাল ইফতার বাজার। এই দোকানে কর্মরত বেশ কয়েকজন জানান, তাদের মালিক পুরান ঢাকার ৪ ভাই। ৩০ বছর আগে এই ৪ ভাই ঢাকার বেইলি রোডে নিজেদের প্রতিষ্ঠান ‘ক্যাপিটাল ফাস্টফুডের’ মাধ্যমে ইফতারি বিক্রি শুরু করেন। পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী ইফতার আইটেম, স্বাদ ও গুণগতমানের কারণে ৩০ বছর ধরেই  প্রতিষ্ঠানটি রাজধানীর এই অঞ্চলের ও আশপাশের মানুষের নির্ভরযোগ্য ও পছন্দসই ইফতারের দোকানে পরিণত হয়েছে। শুধু ক্যাপিটালেই রয়েছে ১০০টি ইফতার আইটেম। ক্যাপিটালের উল্লেখযোগ্য আইটেমগুলো হচ্ছে গ্রিল, রেশমি কাবাব, সুতি কাবাব, জাম্বো রোস্ট, ব্রেন মসল্লা, গরুর কালো ভুনা, ডিমের পুডিং, গ্রিল স্যান্ডউইচ, পুঁইপাতার চপ, ডিম চপ, আফলাতুন, বুন্দিয়া লাড্ডু, মাওয়া লাড্ডু, নিমকি, পনির পরটা, জাফরানি শরবত, মালাই সমুচা, চিকেন সমুচা, স্বামী কাবাব, শ্রীমস রোল, ফিশ কাটলেট, বিফ কোপ্তা, গোলাপ কাচুরি, টানা পরটা, বিফ বল, দেশি টিক্কা, গজা ইত্যাদি। দোকানিরা জানান, ক্যাপিটালের দেখাদেখি বেইলি রোডে পরবর্তী বিভিন্ন ফাস্টফুডের দোকানগুলোও ইফতারি বিক্রি শুরু করে। নবাবী ভোজে রয়েছে ২০ আইটেমের ইফতার। নবাবী ভোজের বিক্রয়কর্মী সজীব জানান, দুপুর ১২টা থেকে তারা হালিম বিক্রি শুরু করেন এবং জোহরের নামাজের পর থেকে ইফতার বিক্রয় শুরু করেন। দৈনিক লক্ষাধিক টাকার বিক্রি হয় বলে জানান এই বিক্রয়কর্মী।

জানা গেছে, বাহারি রঙের ও স্বাদের ইফতারের পসরায় রমজানের প্রতিটি বিকাল বেইলি রোড জমজমাট হয়ে ওঠে। উপচে পড়া ভিড়ের মধ্যে বিভিন্ন স্বাদের ইফতারি কিনে রোজাদাররা তৃপ্তির ঢেঁকুর তোলেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow