Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১৩ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১২ জুন, ২০১৬ ২৩:০৬
এ প্রস্তাব অবাস্তব
এ প্রস্তাব অবাস্তব
মীর নাসির হোসেন

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি মীর নাসির হোসেন বলেছেন, এটা একটা অবাস্তব প্রস্তাব। বেসরকারি খাতের সব চাকরিজীবীর জন্য ই-টিআইএন বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। এটা হঠকারী সিদ্ধান্ত। এটা বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে না। আর সরকারি, আধাসরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত সংস্থার চাকরিজীবীদের জন্য ১৬ হাজার টাকা স্কেলে বেতন পেলে আয়কর রিটার্ন জমা বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। এটা মোটামুটি গ্রহণযোগ্য। তিনি বলেন, বেসরকারি চাকরিজীবীর সংজ্ঞা নতুন করে ঠিক করতে হবে। কেননা এখানে পিয়ন, ড্রাইভার, আয়াসহ আরও অনেক ছোট পদের লোক রয়েছেন। তাদের জন্য ই-টিআইএন নেওয়া বা আয়কর রিটার্ন দাখিল করা মোটেই যুক্তিসংগত নয়। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে এই ব্যবসায়ী নেতা বলেন, করের আওতা বাড়ানোর জন্য অর্থমন্ত্রী হয়তো এমন প্রস্তাব দিয়েছেন। কিন্তু নিম্নমধ্যবিত্তদের কথা মাথায় নিয়ে এটা করা দরকার ছিল। এখানে বেসরকারি খাতের ছোট চাকরিজীবীরা নানা ধরনের সমস্যায় পড়বেন। সেই সঙ্গে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) কর্মকর্তাদের হয়রানি তো থাকবেই। এ ধরনের প্রস্তাব রেখে বাজেট পাস করা ঠিক হবে না। সরকারের উচিত হবে এটাকে আরেকটু সহজ করে বেসরকারি খাতের চাকরিজীবী সবার জন্য ই-টিআইএন বাধ্যতামূলক না করা। এ ক্ষেত্রে একটা বেতনের লিমিট বেঁধে দেওয়া যেতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

তবে সরকারি, আধাসরকারি বা স্বায়ত্তশাসিত সংস্থায় কর্মরতদের জন্য ১৬ হাজার টাকা স্কেলের বেতনপ্রাপ্তরা তো এমনিতেই করের আওতাভুক্ত। কেননা তাদের আয়কর ফাঁকি দেওয়ার সুযোগ কম। এ ছাড়া সরকারের হাতেই হিসাব থাকে কে কত বেতন পায়। ফলে এ প্রস্তাবটা যুক্তিযুক্ত।




up-arrow