Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : সোমবার, ১৩ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ জুন, ২০১৬ ২৩:১৮
প্রকৃতি
মারা গেল টোকিও
নিজস্ব প্রতিবেদক
মারা গেল টোকিও

বাঘ শাবক টোকিও মারা গেছে। জটিল রোগে আক্রান্ত তার ছোট ভাই ইয়েন।

রাজধানীর মিরপুরে জাতীয় চিড়িয়াখানার রয়েলবেঙ্গল টাইগার রণবীর ও জ্যোতি জুটির প্রথম শাবক টোকিও। ইয়েন দ্বিতীয় শাবক। টোকিওর মৃত্যু ও ইয়েনের অসুস্থতার খবর নিশ্চিত করেছে চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডা. এস এম নজরুল ইসলাম। তিনি বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ট্রিপানোসোমিয়াসিস নামের এক রোগে গত ১২ মে টোকিও মারা গেছে। প্রাণী চিকিৎসকরা বলছেন, এটি এক ধরনের বিশেষ মাছি বা পোকাবাহিত প্রাণঘাতী রোগ। একই  রোগে আক্রান্ত হয়েছে ছোট ভাই ইয়েনও। সরকারের কেন্দ্রীয় রোগ গবেষণাগার (সিডিআইএল) ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারাসাইটোলজি বিভাগের পরীক্ষায় টোকিও ও ইয়েনের রক্তে ট্রিপানোসোমিয়াসিসের জীবাণু পাওয়া গেছে। এর আগে ১৯৯০ সালে এ রোগে চিড়িয়াখানায় চারটি বাঘ মারা গেছে। প্রাণী বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি বহিরাগত জটিল রোগ। দক্ষিণ আফ্রিকায় এ রোগের প্রাদুর্ভাব আছে। সম্প্রতি ভারতের ওডিশার নন্দনকানন চিড়িয়াখানায় ট্রিপানোসোমিয়াসিস রোগে আক্রান্ত হয়ে ১১টি বাঘ মারা গেছে। জাতীয় চিড়িয়াখানায় ট্রিপানোসোমিয়াসিস রোগের অস্তিত্ব ধরা পড়ায় সেখানকার বাঘ, সিংহ, জেব্রা, জিরাফসহ হরিণ জাতীয় প্রাণীর মধ্যেও ছড়ানোর আশঙ্কা আছে। জাতীয় চিড়িয়াখানার কিউরেটর আরও বলেন, টোকিও মারা যাওয়ার ২৫ দিনের মাথায় (৫ জুন) ইয়েন অসুস্থ হয়। কয়েক দিনের চিকিৎসায় গতকাল থেকে ইয়েন উঠে দাঁড়াতে পারছে। কিছুটা হাঁটাচলা করতে পারছে। চিড়িয়াখানার মাংসাশী শাখার জু কর্মকর্তা গোলাম আজম বলেন, ইয়েনের অবস্থা কিছুটা ভালো। তাকে চিড়িয়াখানার ভেটেরিনারি হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (সিসিইউ) রাখা হয়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলেন, ট্রাইপানোসোমিয়াসিস রোগে আক্রান্ত হলে রক্তের হিমোগ্লোবিন নষ্ট হয়। এতে প্রাণীর দেহে দ্রুত রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। খাবারদাবার কমে যায়। পাশাপাশি পক্ষাঘাতে আক্রান্ত হয়। চিড়িয়াখানা সূত্র বলছে, রোগটির বিস্তার রোধে প্রাণীদের মশা-মাছি থেকে রক্ষা করতে প্রকোষ্ঠের আশপাশে তারপিন তেল ও নেগোভেট ওষুধ ছিটানো হচ্ছে। তবে এই ওষুধের কারণে প্রাণী ও দর্শনার্থীদের যাতে কোনো ক্ষতি না হয়, সে জন্য খুব সকালে সতর্কতার সঙ্গে তা ব্যবহার করা হচ্ছে। জাতীয় চিড়িয়াখানার বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও ইয়েনের চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের সদস্য আনোয়ার শাহাদাৎ বলেন, জন্মের পর থেকে টোকিও ও ইয়েন মায়ের দুধ পায়নি। তারা বিশেষ খাবার ও পরিচর্যায় বড় হয়ে উঠছিল। এর আগে ২০১১ সালে রাজধানীর শ্যামলী থেকে র‌্যাব তিনটি চোরাই বাঘ শাবক উদ্ধার করে। পরে সেগুলোকে রাজধানীর ২২/২ ফিকামলি মিনি চিড়িয়াখানার মালিক ও বাঘ বিশেষজ্ঞ ড. আবদুল ওয়াদুদের কাছে হস্তান্তর করা হলে তিন শাবকের প্রাণ রক্ষা পায়। পরে তাদের স্থান হয় কক্সবাজারের বঙ্গবন্ধু ডুলাহাজরা সাফারি পার্কে। ওই তিন শাবকের একটি হচ্ছে জ্যোতি। প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় জানায়, রাষ্ট্রীয় বন্ধুত্বের নিদর্শন হিসেবে জাপানে পাঠানোর উদ্দেশ্যে জ্যোতিকে সাফারি পার্ক থেকে এনে জাতীয় চিড়িয়াখানার বেঙ্গল টাইগার রণবীরের সঙ্গে একত্র করা হয়। জাপান যাওয়ার বিলম্বে এক খাঁচায় এই জুটির ছয় মাসের অপেক্ষায় গত বছরের ২৩ আগস্ট জ্যোতি প্রথম মা হয়। প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের তৎকালীন সচিব (বর্তমানে অবসরে) শেলিমা আফরোজা জাপানের রাজধানীর নামানুসারে শাবকটির নাম রাখেন টোকিও। জ্যোতি দ্বিতীয়বার মা হলে নতুন শাবকের নাম রাখা হয় ইয়েন। জাপানের মুদ্রার নাম ইয়েন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow