Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১ অক্টোবর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৪ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১৩ জুন, ২০১৬ ২৩:৩৭
প্রকৃতি
পাখি রক্ষায় গাছে গাছে মাটির হাঁড়ি
ধামরাই প্রতিনিধি
পাখি রক্ষায় গাছে গাছে মাটির হাঁড়ি

জীববৈচিত্র্য রক্ষায় পাখিকে নিরাপদ আবাসস্থল দিতে হবে। বাড়াতে হবে তাদের বংশ বিস্তার। তাই কয়েকজন পাখি প্রেমিকের উদ্যোগে ধামরাইয়ে পাখিদের নিরাপদ বাসা ও বংশ বিস্তার করার  জন্য শুরু হয়েছে গাছে গাছে হাড়ি বাঁধা। যেখানে তারা নির্ভয়ে বসবাস করতে পারবে। গত কয়েকদিনে ধামরাই থানা বিভিন্ন গাছে কয়েকশ মাটির হাড়ি বিশেষ কৌশলে ডালে লাগানো হয়েছে। ইতিমধ্যে সেখানে বুলবুলি, দোয়েল, কোয়েলসহ বিভিন্ন প্রজাতির পাখিরা দল বেঁধে বসবাসও করতে শুরু করেছে। ধীরে ধীরে এ কার্যক্রম সারা ধামরাইয়ে চালানো হবে। পাখিদের নিরাপদ রাখতে প্রথমে ধামরাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রিজাউল হক উদ্যোগ নেন। তিনি প্রায় ৫ শতাধিক মাটির হাড়ি ক্রয় করে থানা চত্বরের গাছে বিশেষ কৌশলে বেঁধে দেন। কয়েকদিনের মধ্যে ওই হাড়িতে পাখিরা বসবাস করতে শুরু করে। তার এ উদ্যোগ দেখে ধামরাইয়ের আরও বেশ কয়েকজন পাখি প্রেমিক এ কার্যক্রম শুরু করেছেন।

তারা নিজেদের টাকা খরচ করেই পাখি রক্ষায় এগিয়ে আসছেন। রিজাউল হক জানান, মানুষের যেমন বাঁচার অধিকার আছে তেমনি অন্যান্য প্রাণীরও বাঁচার অধিকার রয়েছে। তাই নিজের বিবেকের তাড়নায় বিলুপ্তপ্রায় বিভিন্ন প্রজাতির পাখি রক্ষায় ও বংশ বিস্তারের জন্য বিভিন্ন গাছে হাড়ি বেঁধে দেওয়া হয়েছে। এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. খোরশেদ আলম বলেন, এভাবে যদি সমাজের কিছু মানুষ জীববৈচিত্র্য এগিয়ে আসে তাহলে প্রাণিকুল রক্ষা পাবে। পাখি মানুষের উচ্ছিষ্ট খাবার খেয়ে ফেলে। এতে খাবার পচন থেকে রক্ষা করে। দুর্গন্ধ কম ছড়ায়। অনুপকারী কীটপতঙ্গ খেয়ে ফেলে। গাছের বংশবৃদ্ধিতেও পাখির ভূমিকা রয়েছে। পাখি প্রেমিক পৌর মেয়র গোলাম কবির জানান, পাখি হত্যা কিংবা শিকারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ধামরাইয়ের পাখি রক্ষা করতে হবে।




up-arrow