Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ১৪ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপডেট : ১৪ জুন, ২০১৬ ০০:২৫
আশ্রমসেবক ও খ্রিস্টান খুন
রহস্য কাটেনি, আটক দুজন রিমান্ডে
প্রতিদিন ডেস্ক

বড়াইগ্রাম উপজেলার বনপাড়ায় খ্রিস্টাান মুদি দোকানি সুনীল দানিয়েল গোমেজ ও পাবনার হেমায়েতপুরে আশ্রমের সেবক নিত্যরঞ্জন পাণ্ডে হত্যার রহস্য এখনো কাটেনি। পৃথক দুই ঘটনায় দুজনকে রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ।

নাটোর প্রতিনিধি জানান, সুনীল দানিয়েল গোমেজকে (৬০) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় গ্রেফতারকৃত ভাড়াটিয়া মনোয়ারা বেগম মণিকে (৩৫) পুলিশ তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি পেয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, মনোয়ারাকে গতকাল দুপুরে নাটোরের গোয়েন্দা পুলিশের ওসি ও মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আবদুল হাই সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করেন। বিচারক শামসুল আল আমিন শুনানি শেষে তার ৩ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গোয়েন্দা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সুনীল গোমেজ হত্যাকাণ্ডের পর বিভিন্ন তথ্যের ভিত্তিতে মনোয়ারা সন্দেহের তালিকায় আসে। পরে মোবাইল ফোন ট্র্যাকিং করে ঢাকার গুলশান থানার বাড্ডা এলাকায় গত শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে তার স্বামী রফিকুল ইসলামের ভাড়া বাসা থেকে মনোয়ারা বেগম মনিকে গ্রেফতার করা হয়। পাবনা প্রতিনিধি জানান, পাবনার হেমায়েতপুরে আশ্রমের সেবক নিত্যরঞ্জন পাণ্ডে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আবুল হাশেম ওরফে গালকাটা হাশেম (৫৪) নামে একজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রবিবার রাতে পাবনা সদর উপজেলার হেমায়েতপুর তপোবন আশ্রয়ন প্রকল্প এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। হাশেম হেমায়েতপুর গ্রামের মৃত ফকির শেখের ছেলে। গতকাল পুলিশ তাকে পাবনা আমলী আদালত-১-এ হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করলে বিচারক মো. নাজিমুদ্দৌলা পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এ নিয়ে সেবায়েত নিত্যরঞ্জন হত্যায় ছাত্রশিবিরের এক নেতাসহ দুজনকে আটক করল পুলিশ। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পাবনা সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মুন্সী আবু কুদ্দুস জানান, তার বিরুদ্ধে হত্যা ও অস্ত্র আইনে বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে। অন্যদিকে আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবু বকর সিদ্দিক জানান, সম্পূর্ণ সন্দেহের বশবর্তী হয়ে হাশেমকে আটক করেছে পুলিশ।




up-arrow