Bangladesh Pratidin || Highest Circulated Newspaper
শিরোনাম
প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২১ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা
আপলোড : ২০ জুন, ২০১৬ ২৩:৩৬

তদন্তেই পার এক মাস গ্রেফতার হয়নি কেউ

কুষ্টিয়ায় হোমিও চিকিৎসক হত্যা

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

তদন্তেই পার এক মাস গ্রেফতার হয়নি কেউ

কথিত আইএস জঙ্গি পরিচয়ে কুষ্টিয়ার হোমিও চিকিৎসক মীর সানাউর রহমান (৫৮) হত্যার এক মাস পেরিয়ে গেলেও পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। উদ্ঘাটন হয়নি হত্যারহস্য। তদন্ত চালিয়ে যাওয়ার কথা বললেও এখন পর্যন্ত এ ঘটনার কোনো কূলকিনারা করতে পারেনি পুলিশ। পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাবও এ হত্যাকাণ্ডের তদন্ত করছে। এক মাসেও কোনো আসামি গ্রেফতার বা আটক না হওয়ায় পরিবারের লোকজন ক্ষুব্ধ ও হতাশ।

কুষ্টিয়া শহর থেকে ছয় কিলোমিটার দূরে বটতৈল শিশিরপাড়া মাঠ এলাকায় মীর সানাউর রহমান তার বাগানবাড়িতে প্রতি শুক্রবার গ্রামের মানুষকে বিনামূল্যে চিকিৎসা দিতেন। ২০ মে সকালে মোটরসাইকেলে করে সেখানে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে হত্যা করে। এ সময় তার সঙ্গে থাকা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের শিক্ষক সাইফুজ্জামানকেও কুপিয়ে গুরুতর আহত করে দুর্বৃত্তরা।

হোমিও চিকিৎ?সক মীর সানাউর রহমান হত্যার দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস)। জঙ্গিগোষ্ঠীর অনলাইনকেন্দ্রিক তত্পরতার ওপর নজরদারি করা যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সাইট ইনটেলিজেন্স এ কথা জানিয়েছে। আইএসের নিজস্ব সংবাদমাধ্যম বলছে, কুষ্টিয়ায় খ্রিস্টধর্মীয় ভাবধারার সমর্থনে কাজ করায় আইএসের যোদ্ধারা বাংলাদেশের ওই চিকিৎসককে হত্যা করেছে। হত্যাকাণ্ডের পর মীর সানাউর রহমানের সেজো ভাই মীর আনিছুর রহমান বাদী হয়ে কুষ্টিয়া মডেল থানায় অজ্ঞাতনামা তিনজনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন।

মামলার বাদী মীর আনিসুর রহমান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দিনের বেলায় এত বড় একটি হত্যাকাণ্ড ঘটে গেল। এর পর এক মাস পেরিয়ে গেলেও পুলিশ এখনো কোনো হত্যাকারীকে গ্রেফতার করতে না পারা দুঃখজনক। পরিবারের সবাই হতাশ। এ মামলার তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে চাইলে কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ শাহাবুদ্দিন চৌধুরী বলেন, ‘পুলিশ তদন্ত চালিয়ে যাচ্ছে। আশা করছি দ্রুততম সময়ে হত্যাকাণ্ডের রহস্য জানা যাবে।’ তিনি বলেন, ঘটনার পর দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যাওয়ার সময় পার্শ্ববর্তী গ্রামের সড়কের পাশে একটি কাশবনে রক্তমাখা চাপাতি, পাঞ্জাবি, পাজামা ও জিন্সের প্যান্ট ফেলে যায়। সেসব পোশাক পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।


আপনার মন্তব্য

এই পাতার আরো খবর