Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : শনিবার, ২৫ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৫ জুন, ২০১৬ ০২:১৩
বিচিত্র সব পাঞ্জাবির সমাহার আজিজ সুপার মার্কেটে
মাহবুব খন্দকার
বিচিত্র সব পাঞ্জাবির সমাহার আজিজ সুপার মার্কেটে

এক ছাদের নিচে শত শত দোকান। সব দোকানেই থরে থরে সাজানো পাঞ্জাবি। একটার সঙ্গে আরেকটার মিল নেই। সৌন্দর্যে সবগুলোতেই চোখ আটকে যায়। বলা হচ্ছে শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের কথা। বাংলাদেশের পার্বণগুলো ঘিরে সাজের যে আয়োজন, বিশেষ করে ছেলেদের পোশাকের, তার ওপর ভিত্তি করেই মূলত গড়ে উঠেছে এই মার্কেট। আজিজ সুপার মার্কেটে বর্তমানে এ ধরনের পোশাকের দোকান রয়েছে প্রায় সাড়ে তিনশ। এ মার্কেটে সারা বছর যত বেচাকেনা হয় তার মধ্যে সবচেয়ে বেশি হয় ঈদুল ফিতরকে ঘিরেই। এবারও দোকানিরা ছেলেদের বৈচিত্র্যময় পাঞ্জাবির পসরা সাজিয়েছেন। ঈদের দিন যত ঘনিয়ে আসছে ততই বাড়ছে ক্রেতার ভিড়। উত্তরা থেকে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে গতকাল আজিজ মার্কেটে কেনাকাটা করতে এসেছেন পারভীন কণা। তিনি বলেন, বছর চারেক ধরে ঈদে পরিবারের সদস্যদের পাঞ্জাবিটা এখান থেকেই কেনা হয়। তিনি জানান, এবারে পাঞ্জাবিগুলো বেশ বৈচিত্র্যময় মনে হচ্ছে। ছেলে-স্বামী ও পরিবারের অন্য সদস্যদের পোশাক এখান থেকেই কিনবেন সে পরিকল্পনা রয়েছে।   আজিজ সুপার মার্কেটে অন্তত ১৪ বছর ধরে ব্যবসা করছে ফ্যাশন হাউস মেঘ। প্রতিষ্ঠানটি কর্ণধার অহিদুল ইসলাম মিল্টন জানালেন, এবারের বেচাবিক্রিতে তিনি খুশি। তরুণ ক্রেতাদের কথা মাথায় রেখে তিনি পাঞ্জাবিতে বৈচিত্র্য এনেছেন।   মার্কেটের দোতলায় ফ্যাশন হাউস ফাতিয়া। মুসলিম এবং বাঙ্গালিয়ানা উভয়ের সংমিশ্রণে এবার পাঞ্জাবির পসরা সাজিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। ভালো সাড়া পাচ্ছেন বলে জানালেন প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার রিজওয়ানা নাহার। ছোটদের জন্য বৈচিত্র্যময় পোশাক নিয়ে এসেছে ফ্যাশন হাউসগুলো। তবে মার্কেটের অনেক ব্যবসায়ী জানালেন, অন্য বছরের তুলনায় এবার বিকিকিনি কম। রমজান মাসের অর্ধেক চলে গেলেও সেই অনুযায়ী ক্রেতারা এখনো ভিড় জমাননি। তাই ব্যবসাও ঠিকমতো জমে ওঠেনি। ঈদ উপলক্ষে পাঞ্জাবি ও টি-শার্টের সমাহার সাজিয়েছে ‘খেয়া’। প্রতিষ্ঠানটির মালিক মোস্তাক আহমেদ জানালেন, এবারের বেচাকেনায় তিনি ততটা সন্তুষ্ট নন। তবে আশাবাদী তাদের লক্ষ্য পূরণ হবে। একই আশাবাদ ব্যক্ত করেন ফ্যাশন হাউস ‘কৃষ্ণকলির কর্ণধার শাহীনুর ইসলাম।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow