Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৯ জুন, ২০১৬ ২৩:৪২
মিরপুরে হকার-পুলিশ সংঘর্ষ, গোলাগুলি
নিজস্ব প্রতিবেদক

রাজধানীর মিরপুরে ফুটপাথ থেকে হকার উচ্ছেদকে কেন্দ্র করে গতকাল দুপুরে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয় হকারদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় পুলিশ বেধড়ক লাঠিচার্জ করে। জবাবে হকাররা সংঘবদ্ধ হয়ে পুলিশকে লক্ষ্য করে বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল ছুড়তে থাকে। ফলে মিরপুর-১ গোলচত্বর থেকে শাহ আলী মাজার পর্যন্ত এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। এ সময় ওই এলাকাসহ আশপাশের সব রাস্তায় যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বন্ধ রাখা হয় মার্কেটের দোকানপাট। ঈদের কেনাকাটায় ব্যস্ত অনেকেই ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে নিরাপদ আশ্রয়ের উদ্দেশে ছোটাছুটি করতে থাকেন। বিপাকে পড়ে শিশু ও বয়স্ক নারী-পুরুষকে সঙ্গে নিয়ে বের হওয়া সাধারণ মানুষ। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, উচ্ছেদ শুরু হলে হকাররা প্রথমেই পুলিশকে লক্ষ্য করে ঢিল ছুড়তে থাকে। পুলিশও পাল্টা ঢিল ছুড়ে জবাব দেয়। বেশ কিছু সময় ধরে সেখানে কয়েক দফা হকার আর পুলিশের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া চলে। পরে পুলিশ লাঠিপেটা করে হকারদের সরিয়ে দিলে পরিস্থিতি ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হয়ে এলেও উত্তেজনা চলতে থাকে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মিরপুর বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মাসুদ আহমেদ বলেন, পুলিশ ফুটপাথে হকার উচ্ছেদ অভিযানে গেলে তারা ধাওয়া দেয়। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে ফাঁকা গুলি ছোড়া হলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। ট্রাফিক পুলিশের সহকারী কমিশনার আবু তৈয়ব মো. আরিফ হোসেন জানান, মুক্তিযোদ্ধা মার্কেটসহ আশপাশের যত মার্কেট আছে, সবকটির সামনে শত শত হকার অবৈধভাবে বসে সাধারণ মানুষের চলাচলে বাধা সৃষ্টি করছিল। সাধারণ মানুষের স্বাভাবিক চলাচলের সুবিধার্থে হকার উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। উচ্ছেদের সময় হকাররা নানাভাবে পুলিশের কাজে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করে বলে জানান তিনি। পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, হকারদের ছোড়া ঢিলে কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। এ অভিযান নিয়মিত চলবে বলেও তিনি জানান। হকাররা অভিযোগ করেন, ঈদ সামনে রেখে স্থানীয় প্রভাবশালীদের ম্যানেজ করেই তারা ফুটপাথে ব্যবসা চালিয়ে আসছিলেন। পুলিশের কয়েকজন কর্মকর্তা নিয়মিতভাবে তাদের কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়ে আসছেন। কিন্তু হঠাৎ করে এ উচ্ছেদ অভিযান চালানোয় তারা ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন। উচ্ছেদের সময় পুলিশ তাদের মালামাল রাস্তায় ছুড়ে মারে এবং নষ্ট করে ফেলে। সুবিধাভোগীরা এ সময় বহু মালামাল লুট করেছে বলে তাদের অভিযোগ।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow