Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ জানুয়ারি, ২০১৭

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ৫ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৪ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৫৮
ঈদে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে থাকবে কঠোর নজরদারি
মোস্তফা কাজল
ঈদে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে থাকবে কঠোর নজরদারি

ঈদের ছুটিতে জাতীয় চিড়িয়াখানা, শিশুপার্ক, বোটানিক্যাল গার্ডেন, জাতীয় জাদুঘরসহ রাজধানীর বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে থাকবে কঠোর নজরদারি। সাধারণত ঈদের ছুটিতে বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে নারী, পুরুষ ও শিশুদের ঢল নামায় প্রতিবছরই রুটিনমাফিক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়। তবে এবার দৃশ্যপট ভিন্ন। সম্প্রতি গুলশানের ঘটনায় এবার রাজধানীসহ সারা দেশের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা এসব বিনোদন কেন্দ্রে থাকবে র‌্যাব, পুলিশসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কঠোর নজরদারি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক বিনোদন কেন্দ্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, র‌্যাব ও পুলিশসহ    সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানান, শুক্রবার গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় সন্ত্রাসীদের হামলার ঘটনায় প্রেক্ষাপট পাল্টে গেছে। ফলে ঈদের ছুটিতে আগত দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিনোদন কেন্দ্রগুলোর ভিতরে ও বাইরে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। র‌্যাব, পুলিশ ও ডিবিসহ বিভিন্ন সংস্থার সদস্যরা সাদা পোশাকে এসব বিনোদন কেন্দ্রে নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন। এদিকে ইতিমধ্যে বিনোদন কেন্দ্রগুলো ঈদে দর্শনার্থীদের বরণ করে নিতে সর্বাত্মক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। রাজধানীর বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রের অন্যতম মিরপুরের জাতীয় চিড়িয়াখানা। বছরের অন্যান্য সময় গড়ে প্রতিদিন ১০ থেকে ১৫ হাজার দর্শনার্থী বেড়াতে যান। তবে ঈদের ছুটিতে এ সংখ্যা ৭০ থেকে ৮০ হাজার ছাড়িয়ে যাওয়ার রেকর্ড রয়েছে। সরকারি বিনোদন কেন্দ্রগুলোর মধ্যে সব শ্রেণির শিশুদের কাছে শাহবাগের শিশুপার্ক পছন্দের শীর্ষে। অল্প খরচে সময় আনন্দে কাটানোর অন্যতম সুযোগ রয়েছে এ শিশুপার্কে। ফলে ঈদের সময় শিশুপার্কটিতে ভিড় থাকে চোখে পড়ার মতো। নিরাপত্তার বিষয়ে জানতে চাইলে জাতীয় চিড়িয়াখানার কিউরেটর ডা. এস এম নজরুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ঈদকে সামনে রেখে এবারও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারসহ সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের পরিচালক গতকাল নিয়মিত পরিদর্শনে এসে প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। নিরাপত্তার বিষয়ে র‌্যাবের লিগ্যাল ও মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক মুফতি মাহমুদ খান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে জনসমাগম হতে পারে এমন সব স্থানে র‌্যাবের পর্যাপ্তসংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হবে। বাদ যাবে না বিনোদন কেন্দ্রগুলো। প্রায় সব বিনোদন কেন্দ্রের বাইরে র‌্যাব সদস্যরা নিরাপত্তা দেবেন। জনগণ নির্বিঘ্নে-নিশ্চিন্তে যাতে ঈদ করতে পারে সে জন্য একই সঙ্গে সব ব্যাটালিয়ন নিরাপত্তা দেবে বলেও জানান তিনি। উল্লেখ্য, শুক্রবার রাতে রাজধানীর গুলশান-২ নম্বরের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় অস্ত্রধারীদের হামলায় দেশি-বিদেশি ২০ জন নিহত এবং দুজন পুলিশ কর্মকর্তা শাহাদাত বরণ করেন। এ ছাড়া প্রায় ২২ জন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য আহত হন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow