Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ, ২০১৭

প্রকাশ : রবিবার, ১০ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৫৪
উগ্রপন্থি শক্তি প্রতিরোধে জাতির ঐক্য চাই
আবদুল আউয়াল মিন্টু
উগ্রপন্থি শক্তি প্রতিরোধে জাতির ঐক্য চাই

বিভক্ত সমাজের ফাটল দিয়ে রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় উগ্রপন্থি শক্তির উদ্ভব বা সৃষ্টি হয় বলে মনে করেন এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি আবদুল আউয়াল মিন্টু। এই উগ্রপন্থি শক্তি প্রতিরোধ লক্ষ্যে সবার আগে জাতীয় ঐক্য চান তিনি। তার মতে, দেশে রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় উগ্রতা আগামীতে আরও বাড়তে পারে। এতে অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। আবদুল আউয়াল মিন্টু গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে আরও বলেন, একটা দেশ যখন দুই ভাগে বিভক্ত হয়, সেখানে যদি ক্ষমতাধর একটা গ্রুপ অন্যদের রাজনৈতিক সুযোগ না দেয়, তাহলে দেশে ফাটল সৃষ্টি হয়। তখন বিভক্ত সমাজের ফাটল দিয়ে এই ধরনের উগ্রপন্থি শক্তির উদ্ভব বা সৃষ্টি হওয়াটা স্বাভাবিক। এই উগ্রপন্থিরা রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় হতে পারে। এরা সমাজকে বিভক্ত করতে চায়।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা এই ব্যবসায়ী নেতার দাবি, রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় উগ্রপন্থিরা সমাজকে অস্থিতিশীল করতে পারে। তাদের স্বাভাবিক রাখতে হলে দেশে সুষ্ঠু রাজনৈতিক সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে। এর জন্যে প্রয়োজন আস্থাভাজন সরকার। কারণ, গায়ের জোরে কথা বলার দিন শেষ। তাই দেশের শান্তির কথা বিবেচনায় নিয়ে নির্বাচন দিতে হবে।

আবদুল আউয়াল মিন্টু বলেন, গুলশান ও শোলাকিয়াতে হামলার মতো ঘটনায় দেশের অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। বিশেষ করে দেশের প্রধান খাত তৈরি পোশাকশিল্পে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। যার প্রভাব পড়তে পারে রপ্তানিতেও। কারণ এই খাতের সঙ্গে যুক্ত বিদেশি বিনিয়োগ।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow