Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : রবিবার, ১০ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৯ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৫৭
পুলিশের দাবি রাশেদ ও নবী বন্দুকযুদ্ধে নিহত
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম
পুলিশের দাবি রাশেদ ও নবী বন্দুকযুদ্ধে নিহত

এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু খুনের অন্যতম অভিযুক্ত নুরুল ইসলাম রাশেদ ওরফে ভাগ্নে রাশেদ ও আবদুন নবী কথিত বন্দকযুদ্ধে নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় পুলিশের তিন উপ-পরিদর্শক আজহার, এনাম ও সিকান্দার আহত হয়েছেন। সোমবার রাতে চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়া উপজেলার রানীরহাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহতদের মধ্যে আবদুন নবী মিতুকে ছুরিকাঘাত করেন এবং রাশেদ ব্যাকআপ টিম হিসেবে ঘটনাস্থলে ছিলেন। রাশেদ ও নবী দুজনের বাড়িই রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কামরুজ্জামান বলেন, ‘মিতু হত্যা মামলার অন্যতম আসামি রাশেদ ও নবী রাঙ্গুনিয়ায় অবস্থান করছেন এমন তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালানো হয়। এ সময় একদল সন্ত্রাসী পুলিশের ওপর হামলা করে। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে। এ সময় দুই পক্ষের বন্দুকযুদ্ধে সন্ত্রাসী রাশেদ ও নবী নিহত হন। পরে ঘটনাস্থল থেকে দুটি পিস্তল, একটি এলজি, দুটি কিরিচ ও পাঁচ রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

তবে নিহত রাশেদের ছোট ভাই শহীদুল ইসলাম বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ‘২৩ জুন বোয়ালখালী থেকে রাশেদকে আটক করে পুলিশ। আটকের পর প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলেও পুলিশ রাশেদকে আটকের বিষয়টি অস্বীকার করে। এখন তাকে খুন করা হলো। ’ তিনি বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি, রাশেদ, ওয়াসিম ও আবদুন নবীকে আটকের পর একই কক্ষে রাখা হয়। তিন দিন তারা একই কক্ষে ছিলেন। পরে ওয়াসিমকে পুলিশ গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রেরণ করে। ’ প্রসঙ্গত, ৫ জুন নগরীর জিইসির মোড় এলাকায় ছেলেকে স্কুলবাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে দুর্বৃত্তদের হাতে খুন এসপি বাবুল আক্তারের স্ত্রী মাহমুদা খানম মিতু। এ ঘটনায় বাবুল আক্তার অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। পুলিশ এ পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে পাঁচজনকে গ্রেফতার করে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow