Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : সোমবার, ১১ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১১ জুলাই, ২০১৬ ০০:১০
জঙ্গি হামলায় নিহত সাত
সাত দিনের মধ্যে নতুন কর্মকর্তা পাঠাচ্ছে জাপান
নিজস্ব প্রতিবেদক

বাংলাদেশ থেকে সরছে না এ দেশের অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী জাপান আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থা (জাইকা)। গত ১  জুলাই গুলশান হত্যাকাণ্ডে সাত জাপানি নিহত হন।

তারা সবাই মেট্রোরেল প্রকল্পের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন। ফলে এ প্রকল্পের কাজ দ্রুত এগিয়ে নিতে তাদের স্থলে আগামী সাত দিনের মধ্যে নতুন বিশেষজ্ঞ বা পরামর্শক পাঠাচ্ছে জাপান সরকার।   সংস্থাটি গতকাল সেতু বিভাগকে চিঠি দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে। এ বিষয়টি অর্থবিভাগকেও অবহিত করা হয়েছে। এ প্রসঙ্গে অর্থবিভাগের সিনিয়র সচিব মাহবুব আহমেদ গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, মেট্রোরেলের পরামর্শক হিসেবে কাজ করছিলেন এমন সাতজন জাইকা কর্মকর্তা গুলশান হত্যাকাণ্ডে নিহত হয়েছেন। এদের শূন্যতা পূরণ করতে এবং প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিতে সাত দিনের মধ্যে তারা নতুন লোক পাঠানোর কথা জানিয়েছে। দুই দেশের সম্পর্কের মধ্যে গুলশানের ওই ঘটনা তেমন কোনো নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারেনি বলে তিনি মনে করেন। সূত্র জানায়, মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ নির্দিষ্ট সময়ে শেষ করতে চায় জাইকা। এ জন্য নিহত কর্মকর্তাদের স্থলে দ্রুততম সময়ে নতুন কর্মকর্তা নিয়োগ করা হচ্ছে। গুলশান হত্যাকাণ্ডকে একটি নেহায়েত দুর্ঘটনা বলে মনে করে জাপান সরকার। তবে এ ধরনের ঘটনা যাতে আর না ঘটে সে জন্য বাংলাদেশ সরকারকে সজাগ থাকার পরামর্শ দিয়েছে জাপান সরকার। জানা গেছে, গুলশানের হলি আর্টিজানে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত সাত জাপানি মূলত জাইকার একাধিক উন্নয়ন প্রকল্পে কাজ করছিলেন, যাদের মধ্যে পাঁচজন পুরুষ ও দুজন নারী। তারা ঢাকায় মেট্রোরেল রুট ১ এবং মেট্রোরেল রুট ৫ প্রকল্পের সমীক্ষক হিসেবে কাজ করছিলেন। তাদের মধ্যে কোইও ওগাসাওয়ারা কাজ করতেন কাতাহিরা অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্টারন্যাশনালে। হিরোশি তানাকা, হিদেকি হাশিমতো ও নোবুহিরো কুরোসাকি কাজ করতেন অরিয়েন্টাল কনসালটেন্টস গ্লোবাল নামক প্রতিষ্ঠানে। ওকামুরা মাকোতো কর্মরত ছিলেন  আলমেক করপ নামক প্রতিষ্ঠানে। ইউকো সাকাই, শিমোদায়রা রুই আলমেক করপ নামক প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন বলে জানা গেছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow