Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বুধবার, ১৩ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১২ জুলাই, ২০১৬ ২৩:৫৪
প্রকৃতি
মেটে কাঠ ময়ূর
মোস্তফা কাজল
মেটে কাঠ ময়ূর

দেখা মিলল অনিন্দ্য সুন্দর কাঠ ময়ূর পাখির। কাঠগাছের ডালে স্থাপন করা গোপন ক্যামেরায় ধরা পড়ে বিপন্ন প্রজাতির পাখি কাঠ ময়ূর। গোপন ক্যামেরায় বন্যপ্রাণী ধরা পড়ার এ পদ্ধতির নাম ক্যামেরা ট্র্যাপ। কয়েক দিন আগে বান্দরবানের রুমা উপজেলার গহিন অরণ্যে ক্রিয়েটিভ কনজারভেশন অ্যালায়েন্স নামের একটি বন্যপ্রাণী     গবেষণা ও সংরক্ষণ প্রতিষ্ঠানের স্থাপিত ক্যামেরায় ধরা পড়ছে বিপন্ন এ পাখি। ফলে বাংলাদেশের পাখির তালিকা থেকে এখনো হারিয়ে যায়নি কাঠ ময়ূর। বন্যপ্রাণী গবেষণা ও সংরক্ষণের কাজে এমন পদ্ধতি ব্যবহার করা হচ্ছে। ক্রিয়েটিভ কনজারভেশন অ্যালায়েন্সের চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) ও সরীসৃপ গবেষক শাহরিয়ার সিজার রহমান বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, কয়েক দিন আগে ক্যামেরা ট্র্যাপে ধরা পড়েছে এ মহাবিপন্ন কাঠ ময়ূর পাখিটি। বান্দরবানের দুর্গম পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর মধ্যে বন্যপ্রাণীর প্রতি ভালোবাসা ও সংরক্ষণে সচেতনতা বাড়াতে নিয়মিতভাবে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। বন্যপ্রাণী গবেষণা সূত্র জানায়, এ পাখিটি বাংলায় মেটে কাঠ ময়ূর বা মেটে কাঠ মৌর নামেও পরিচিত। এটি মোরগ-মুরগির মতো মাটিতে পা দিয়ে আঁচড় টেনে খাদ্যের সন্ধান চালায়। বাংলাদেশ ছাড়াও ভারত, ভুটান, মিয়ানমার, ভিয়েতনাম, কম্বোডিয়া, থাইল্যান্ড ও চীন পর্যন্ত এ পাখিটির বিস্তৃতি রয়েছে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক, গবেষক ও লেখক ড. মনিরুল খান বলেন, আইইউসিএনের তালিকা অনুযায়ী এ পাখিটি পৃথিবীব্যাপী ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত হলেও আমাদের দেশে কাঠ ময়ূর মহাবিপন্ন তালিকাভুক্ত পাখি। পার্বত্য চট্টগ্রামে কয়েক দিন আগে দু-একবার এ পাখিটিকে দেখা গেছে। কাগজপত্রে সিলেট বিভাগে পাওয়ার রেকর্ড থাকলেও বন বিভাগের বনগুলোতে এ পাখিকে দেখা যাওয়ার কোনো তথ্য নেই। পাখি বিশেষজ্ঞ ড. মনিরুল বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, কাঠ ময়ূর আমাদের চিরচেনা পেখম তোলা ময়ূরের মতো সুন্দর না হলেও অনেকখানি সুন্দর। পুরুষ পাখির পেখম রয়েছে। স্ত্রী পাখির পেখম নেই। দেখতে খুব সাধারণ। দৈর্ঘ্য প্রায় ৫৬ সে.মি. এবং ওজন ৭৫০ গ্রাম। দেহের তুলনায় লেজ বেশ লম্বা। এদের প্রজনন মৌসুম মার্চ-জুন। প্রজনন মৌসুমে দুই থেকে পাঁচটি ডিম পাড়ে। ২১-২২ দিন পর ছানা বের হয়। এদের খাদ্য তালিকায় রয়েছে বিভিন্ন প্রকার শস্যদানা, ফল, পোকামাকড় ও ছোট শামুক।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow