Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭

ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর, ২০১৭
প্রকাশ : শুক্রবার, ১৫ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৪ জুলাই, ২০১৬ ২৩:২৫
মানবতাবিরোধী অপরাধ
সাখাওয়াতসহ আট জনের রায় যে কোনো দিন
নিজস্ব প্রতিবেদক

মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত যশোর-৬ আসনে জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য সাখাওয়াত হোসেনসহ আটজনের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলার রায় ঘোষণা করা হবে যেকোনো দিন।

উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে গতকাল বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখেন।

এ মামলার অন্য সাত আসামি হলেন বিল্লাল হোসেন, ইব্রাহিম হোসেন, শেখ মো. মজিবুর রহমান, আবদুল আজিজ সরদার, আজিম সরদার, কাজী ওয়াহেদুল ইসলাম ও আবদুল খালেক মোড়ল। এদের মধ্যে কারাগারে রয়েছেন সাখাওয়াত হোসেন ও বিল্লাল হোসেন। নয় আসামির মধ্যে লুত্ফর মোড়ল গ্রেফতার হওয়ার পর অসুস্থ হয়ে কারাগারে মারা যাওয়ায় তাকে আসামির তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। অন্য আসামিরা পলাতক রয়েছেন। প্রসিকিউশনের পক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম ও রেজিয়া সুলতানা চমন। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী আবদুস সাত্তার পালোয়ান, পলাতক আসামিদের পক্ষে ছিলেন রাষ্ট্রনিযুক্ত আইনজীবী আবদুস শুকুর খান। প্রসিকিউশন আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড চেয়েছে। অন্যদিকে অভিযুক্তদের খালাস চেয়েছেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা। গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, অগ্নিসংযোগসহ পাঁচটি মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযোগ গঠন করেন ট্রাইব্যুনাল। সাখাওয়াতসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০০৯ সালে যশোরে মামলা করা হয়। প্রসিকিউশনের আবেদনে ২০১৪ সালের ২৬ নভেম্বর সাখাওয়াত হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন ট্রাইব্যুনাল। পরে ২৯ নভেম্বর রাজধানীর উত্তরখান থেকে সাখাওয়াতকে গ্রেফতার করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ২০১৪ সালের ১ এপ্রিল থেকে এ মামলায় তদন্ত শুরু করে গত বছরের ১৩ জুন শেষ করেন তদন্ত কর্মকর্তা আবদুর রাজ্জাক খান।

কক্সবাজারের ১৯ জনের শুনানি ৩১ আগস্ট : একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে কক্সবাজারের মহেশখালী উপজেলার আবদুর রশিদ মিয়াসহ ১৯ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনে শুনানির জন্য ৩১ আগস্ট দিন ধার্য করা হয়েছে। বিচারপতি আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ দিন ধার্য করেন। একই সঙ্গে পলাতক আসামিদের পক্ষে মামলা পরিচালনার জন্য রাষ্ট্রীয় খরচে তিনজন আইনজীবী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এই তিন আইনজীবী হলেন আবদুস সোবহান তরফদার, আবদুস সাত্তার পালোয়ান ও আবুল হাসান। মামলার অন্য আসামিরা হলেন সালামতউল্লাহ খান, মৌলভী জাকারিয়া শিকদার, অলি আহমদ, জালাল উদ্দিন, মৌলভী নুরুল ইসলাম, মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম সাবুল, মমতাজ আহম্মদ, হাবিবুর রহমান, মৌলভী আমজাদ আলী, মৌলভী আবদুল মজিদ, বাদশা মিয়া, ওসমান গণি, আবদুস শুক্কুর, মৌলভী সামসুদ্দোহা, মো. জাকারিয়া, মো. জিন্নাহ ওরফে জিন্নাত আলী, মৌলভী জালাল ও আবদুল আজিজ।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow