Bangladesh Pratidin

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ জুলাই, ২০১৬ ২৩:০৭
ত্রিশাল ঘটনায় জড়িত চার জঙ্গি দেশ ছেড়েছে
আলী আজম

ময়মনসিংহ জেলার ত্রিশালে পুলিশের ওপর আক্রমণ চালিয়ে জঙ্গি ছিনিয়ে নেওয়ার ঘটনায় জড়িত চার জঙ্গি দেশ ছেড়েছে। তবে তাদের মধ্যে একজন ইতিমধ্যে ভারতে গ্রেফতার হয়েছে। জঙ্গি ছিনিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে পুলিশের গাফিলতি ছিল। কারাগারে বসেই জঙ্গিরা পালিয়ে যাওয়ার ছক তৈরি করে। সেখান থেকেই তারা মোবাইল ফোন ব্যবহার করে অন্য জঙ্গিদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) তদন্তে এসব তথ্য বেরিয়ে এসেছে। সিআইডির তদন্ত সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, ২০১৪ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি ত্রিশাল ও ভালুকার মাঝামাঝি সাইনবোর্ড এলাকায় পুলিশের প্রিজন ভ্যানে ঝটিকা আক্রমণ চালিয়ে এবং এক পুলিশকে হত্যা করে জেএমবির দণ্ডপ্রাপ্ত তিন নেতাকে ছিনিয়ে নেয় তাদের সহযোগীরা। এদের মধ্যে সালাউদ্দিন সালেহীন ওরফে সানি ও রাকিবুল হাসান ওরফে হাফেজ মাহমুদ মৃত্যুদণ্ডে এবং জাহিদুল ইসলাম ওরফে বোমারু মিজান যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত। ঘটনার সময় জঙ্গিদের হামলায় নিহত হয় পুলিশ কনস্টেবল আতিকুল ইসলাম। আহত হয় আরও দুই পুলিশ সদস্য। পরে ওইদিনই ছিনিয়ে নেওয়া জঙ্গিদের একজন রাকিব টাঙ্গাইলে ধরা পড়ে এবং ওই রাতে পুলিশের বন্দুকযুদ্ধে নিহত হয়। এ ঘটনায় হত্যা ও অস্ত্র আইনে দুটি মামলা হয়। গত মাসে হত্যা মামলার চার্জশিট দিয়েছে সিআইডি। এ মাসেই অস্ত্র আইনে করা মামলার চার্জশিট দেওয়া হচ্ছে। দুই মামলায়ই ১১ জনকে আসামি করা হয়েছে। এদের মধ্যে ছয়জন এজাহারভুক্ত। বাকিরা তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। ত্রিশালের ঘটনায় হিমেল, রাসেল, আল আমিন, জিয়াউল হক জিতু, অমিত ও গোলাম সারওয়ার রাহাতকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সালাউদ্দিন, বোমা মিজান, ফারুক ও মাসুম ওরফে সাজিদ পলাতক। এদের মধ্যে ভারতীয় পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়ে জঙ্গি সাজিদ এখন সে দেশের কারাগারে। অন্যরা বিভিন্ন দেশে পলাতক রয়েছে। এরা সবাই নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন জামাআ’তুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) সদস্য। তদন্ত সূত্র জানায়, ফারুক কারাগারে থাকা অবস্থায় তিন জেএমবি সদস্যকে কীভাবে ছিনিয়ে নেওয়া যায় তার পরিকল্পনা করে। সে কারাগার থেকে বেরিয়ে আসার পর কারাগারে আটক তিন জঙ্গি সালাউদ্দিন, রাকিব ও বোমারু মিজানের সঙ্গে একাধিকবার মোবাইল ফোনে কথা বলে। পুলিশ ভ্যানে নেওয়ার সময় দুর্বল নিরাপত্তার কারণে হামলা চালানো হয়। এ ব্যাপারে অস্ত্র আইনে করা মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডির পরিদর্শক আশরাফুজ্জামান বলেন, অস্ত্র মামলার চার্জশিট প্রস্তুত করা হয়েছে। এতে ১১ জনকে আসামি করা হয়েছে। এদের মধ্যে একজন বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছে। ছয়জন গ্রেফতার এবং চারজন পলাতক রয়েছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow