Bangladesh Pratidin

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৭
প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২১ জুলাই, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২০ জুলাই, ২০১৬ ২৩:১৫
ট্রেন বন্ধ করে দিল ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতরা
নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম

ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) কমিটি ঘোষণাকে কেন্দ্র করে পদবঞ্চিতরা বন্ধ করে দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়মুখী সব শাটল ও ডেমু ট্রেন। এ ছাড়া পদবঞ্চিতদের হামলায় ষোলশহর স্টেশনে এক পুলিশসহ আহত হয়েছেন কয়েকজন। গতকাল সকালে এ ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে কমিটি স্থগিত হওয়ার বিষয়টি গুজব বলে জানিয়েছে সংগঠনটি। শিক্ষার্থীদের এ আন্দোলনের কারণে সকাল থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনো শিক্ষক ও কর্মকর্তাবাহী বাস নগরে আসতে পারেনি। একই সঙ্গে নগর ও ক্যাম্পাসে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের আন্দোলনে চরম বিপাকে পড়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়মুখী সাধারণ শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা। চবি ও ষোলশহর স্টেশন সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকালে নগরীর ঝাউতলা স্টেশনে ট্রেন আটকে শাটল ট্রেনের চালককে ধরে নিয়ে যায় পদবঞ্চিতরা। পরে পুলিশসহ অন্য চালকরা শাটলের চালককে উদ্ধার করেন। এরপর ট্রেনটি ষোলশহর স্টেশনের অদূরে বন গবেষণাগার এলাকায় পৌঁছলে আবারও অবরোধের চেষ্টা করে পদবঞ্চিতরা। এ সময় তারা ট্রেন থামাতে ইট-পাথর নিক্ষেপ করতে থাকে। বিক্ষুব্ধ কর্মীদের থামাতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে।

কিন্তু এতেও কাজ না হওয়ায় ট্রেনটি পুনরায় ষোলশহর স্টেশনে ফিরে যায়। এ সময় পদবঞ্চিতদের হামলায় ষোলশহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শ (এসআই) জাকির হোসেন গুরুতর আহত হন।

তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ষোলশহর পুলিশ ফাঁড়িতে দায়িত্বরত উপ-পরিদর্শক মো. হারুন বলেন, শাটল ট্রেন থামাতে ছাত্রলীগের একদল কর্মী ইট-পাথর নিক্ষেপ করলে এসআই জাকির হোসেন আহত হন। তাকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ষোলশহর রেলস্টেশনের ম্যানেজার সাহাবুদ্দিন বলেন, সকালে ছাত্রলীগের একদল কর্মী এক চালককে ধরে নিয়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করার পর ট্রেন চলাচল শুরু করলে বিক্ষুব্ধ কর্মীরা আবারও হামলা চালায়। এ জন্য কোনো ট্রেন বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে পারেনি।

ছাত্রলীগ চবি সূত্রে জানা যায়, গতকাল সকাল থেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় শাখার কমিটি স্থগিত করা হয়েছে বলে গুজব ওঠে। তবে এটি কেবলই গুজব বলে জানিয়েছেন সংগঠনের শীর্ষস্থানীয় নেতা। ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসাইন বলেন, কমিটি স্থগিত করা হয়নি। সৃষ্ট ঘটনা সমাধানে চবি শাখার সভাপতি, সাধারণ সম্পাদককে ডাকা হয়েছে। আন্দোলনকারীদেরও ডাকা হবে। প্রসঙ্গত, সোমবার সকালে ছাত্রলীগ চবি শাখার ২০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় সংসদ। ওই দিন দুপুর থেকেই পদবঞ্চিত হওয়া এবং প্রত্যাশিত পদ না পাওয়া নেতা-কর্মীরা আন্দোলনে নামে।

 

এই পাতার আরো খবর
up-arrow