Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৫৫
অষ্টম কলাম
ঢাকা-জামালপুর রুটে নতুন তিস্তা ট্রেন
জামালপুর প্রতিনিধি

ঢাকা-জামালপুর রুটে চালু হলো আধুনিক সুযোগ-সুবিধাসম্পন্ন নতুনরূপে সজ্জিত আন্তনগর ট্রেন ‘তিস্তা এক্সপ্রেস’। এই ট্রেন চালুর মধ্য দিয়ে জামালপুরের সঙ্গে ঢাকার যোগাযোগের নতুন দিগন্ত স্থাপিত হলো।

ট্রেন চালু উপলক্ষে গতকাল জামালপুরের মানুষের মধ্যে ছিল ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা। সকাল থেকে জামালপুর জংশন স্টেশনে আনন্দমিছিল নিয়ে সমবেত হয়েছিল শত শত মানুষ। নতুনরূপে উন্নীত তিস্তা ট্রেনটির যাত্রী ছিলেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি। গতকাল দুপুরে জামালপুর জংশন স্টেশনে তিস্তা ট্রেন পৌঁছলে প্রাপ্তির আনন্দে উদ্বেলিত জামালপুরের মানুষ বিপুল উৎসাহে স্বাগত জানান তাদের প্রিয় নেতাকে। মির্জা আজমকে দেওয়া হয় নাগরিক সংবর্ধনা। স্টেশন প্লাটফরমে মঞ্চে পৌর মেয়র মির্জা সাখাওয়াতুল আলম মণির সভাপতিত্বে নাগরিক সংবর্ধনায় বক্তব্য দেন সাবেক ভূমিমন্ত্রী রেজাউল করিম হীরা, জেলা প্রশাসক মো. শাহাবুদ্দিন খান, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ চৌধুরী প্রমুখ। সংবর্ধনার জবাবে বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি বলেন, ‘জামালপুরের উন্নয়নে আমি সাধ্যমতো চেষ্টা করছি। জামালপুরের সঙ্গে ঢাকার যোগাযোগ উন্নয়নে প্রধানমন্ত্রীর উপহার অত্যাধুনিক ১৮টি কোচসমৃদ্ধ নতুন তিস্তা ট্রেন নিয়ে জামালপুর এসেছি। ’ মন্ত্রী বলেন, খুব শিগগির জামালপুর-ঢাকা ডাবল লাইন হবে। চট্টগ্রামগামী ‘বিজয় এক্সপ্রেস’ চলবে জামালপুর পর্যন্ত। জামালপুরের মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন। আধুনিক মানের তিস্তা ট্রেন চালুর মধ্য দিয়ে এ এলাকার মানুষের সেই দাবি পূরণ হওয়ায় খুশি এ অঞ্চলের মানুষ। ইন্দোনেশিয়া থেকে সদ্য আমদানি করা ১৮টি সুসজ্জিত কোচ যুক্ত করে চালু হয়েছে আন্তনগর তিস্তা। এই ট্রেনে এসি, এসি কেবিন, প্রথম শ্রেণি ও শোভন চেয়ার কোচের মাধ্যমে আরামদায়ক ভ্রমণের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। বাংলাদেশ রেলওয়ের আয়ের দিক থেকে দ্বিতীয় লাভবান জেলা জামালপুর। জেলা শহরগুলোর মধ্যে এ জেলায় রেলওয়ের রাজস্ব আদায় হয় সবচেয়ে বেশি। লাভবান হওয়া সত্ত্বেও এ রুটটি দীর্ঘদিন অবহেলিত ছিল। চারটি আন্তনগর ট্রেন চললেও সেগুলোর কোচ ছিল ভাঙাচোরা। এ অবস্থায় জেলাবাসীর দাবির পরিপ্রেক্ষিতে বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপির চেষ্টায় চালু হলো নতুনরূপে সজ্জিত আধুনিক তিস্তা ট্রেন। জামালপুরের মানুষ বিশ্বাস করে তাদের জেলার একমাত্র মন্ত্রীর চেষ্টায় জেলার যোগাযোগব্যবস্থার যেমন উন্নয়ন হবে, একই সঙ্গে গতি আসবে এ অঞ্চলের শিল্প কারখানা ও ব্যবসা-বাণিজ্যের।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow