Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০৮
দুই সতিনকে ধর্ষণ
লাখ টাকায় পুলিশ কর্মকর্তাকে রেহাই
সিদ্ধিরগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে একটি ডাকাতি মামলায় রিমান্ডে নেওয়া আসামির দুই স্ত্রীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণের ঘটনায় এক লাখ টাকার সমঝোতায় পুলিশ কর্মকর্তা আতাউর রহমানকে রেহাই দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার শুরুতে ধর্ষণের শিকার দুই নারী গণমাধ্যমের কাছে এসআই আতাউরের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙ্গুল তুললেও শুক্রবার বিকালে এক লাখ টাকায় সমঝোতা হয়। পরে রাতে এসআই আতাউরের নাম বাদ দিয়ে দুই সোর্স নজরুল ও শুভকে আসামি করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা করেন ধর্ষিতা দুই সতিনের একজন। ওই দিন রাত সাড়ে ১১টা পর্যন্ত জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় অবস্থান করে এসআইকে বাদ দিয়ে সোর্সদের বিরুদ্ধে ধর্ষণের মামলাটি করান। গতকাল সকালে নারায়ণগঞ্জের ১০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে ধর্ষিতা দুই সতিনের মেডিকেল পরীক্ষা করা হয়েছে। এদিকে মামলা থেকে রেহাই পেলেও গতকাল এসআই আতাউর রহমানকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা থেকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনে পাঠানো হয়েছে। তবে ধর্ষিতাদের পরিবারের সদস্যরা চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন বলে জানা গেছে। সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সরাফত উল্লাহ জানান, শুক্রবার রাতেই ধর্ষিতা দুই সতিনের একজন বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা করেছেন। মামলায় গ্রেফতার পুলিশের দুই সোর্স নজরুল ও শুভকে আসামি করা হয়েছে। নজরুল ও শুভকে ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। পরে আদালত প্রত্যেকের তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। নারায়ণগঞ্জ কোর্টপুলিশের পরিদর্শক সোহেল আলম রিমান্ডের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। ১০০ শয্যার হাসপাতালের আরএমও ডা. আসাদুজ্জামান জানান, গতকাল ধর্ষিতা দুই সতিনের মেডিকেল পরীক্ষার নমুনা সংশ্লিষ্ট দফতরে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট আসার পর বিস্তারিত জানা যাবে। তবে তাদের কারা ধর্ষণ করেছে তা জানতে হলে ডিএনএ টেস্ট করাতে হবে। তিন সদস্যবিশিষ্ট তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) ফারুক হোসেন জানান, তদন্তে পুলিশের এসআই আতাউর রহমানের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি। ঘটনাটির মূল হোতা ছিলেন সোর্স নজরুল। তবে দায়িত্বে অবহেলার কারণে এসআই আতাউর রহমানকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। প্রসঙ্গত, ৩১ আগস্ট রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি ডাকাতি মামলায় রিমান্ডে নেওয়া আসামির দুই স্ত্রীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে এসআই আতাউর রহমান এবং পুলিশের দুই সোর্স নজরুল ও শুভর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া যায়।

up-arrow