Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৪৬
ধরা পড়ল ২ দুর্বৃত্ত
অপহরণ দ. আফ্রিকায় মুক্তিপণ টাঙ্গাইলে
টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

টাঙ্গাইলে মুক্তিপণের ৩০ লাখ টাকাসহ অপহরণচক্রের দুই সদস্যকে আটক করেছে র‌্যাব। দুর্বৃত্তরা নারায়ণগঞ্জের এক প্রবাসীকে দক্ষিণ আফ্রিকায় অপহরণ করে ৭০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেছিল।

৭০ লাখ টাকার মধ্যে ৩০ লাখ টাকা দেওয়ার সময় টাঙ্গাইল র‌্যাব-১২-এর সদস্যরা হাতেনাতে দুজনকে ধরে ফেলে এবং ওই টাকা উদ্ধার করে। গতকাল দুপুরে টাঙ্গাইল র‌্যাব কার্যালয়ের সামনে প্রেসবিফ্রিংয়ে র‌্যাবের কোম্পানি কমান্ডার মহিউদ্দিন ফারুকী জানান, নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার আজিবপুর এলাকার সুরুজ মিয়া ৪ সেপ্টেম্বর লিখিত অভিযোগ করেন যে, দক্ষিণ আফ্রিকায় তার শ্যালক মাহবুবুর রহমান দীর্ঘদিন ধরে ব্যবসা করেন। গত ২৯ আগস্ট সকালে অজ্ঞাতনামা একটি মোবাইল ফোন থেকে জানানো হয় মাহবুবুর রহমানকে দক্ষিণ আফ্রিকায় অপহরণ করা হয়েছে। তাকে জীবিত অবস্থায় পেতে চাইলে ৭০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দিতে হবে। একপর্যায়ে ৩০ লাখ টাকা দিতে রাজি হয় মাহবুবের পরিবার। অপহরণকারীরা মুক্তিপণের টাকা নিয়ে টাঙ্গাইলের একটি জায়গায় যেতে বলে।

র‌্যাবের একটি দল ফোনের সূত্র ধরে দক্ষিণ আফ্রিকায় অপহরণকারীদের সঙ্গে কথা বলে। টেলিফোনে দুর্বৃত্তরা বাদীকে বলে ঢাকা-মির্জাপুর বাইপাস সড়ক ধরে বামনহাটি আদালত পাড়া যেতে। সেখানে আগে থেকেই অপহরণকারী চক্রের দুই সদস্য উপস্থিত ছিল। আগে থেকেই জানিয়ে দেওয়া একটি কোড নম্বর বলে বাদী অপহরণকারীদের চিহ্নিত করেন। এরপর ৩০ লাখ টাকা লেনদেনের সময় র‌্যাবের সদস্যরা তাদের আটক করে। পরে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে দক্ষিণ আফ্রিকায় অপহরণকারীদের পরিচয় নিশ্চিত হয় র‌্যাব। মির্জাপুরের হালপাড়া গ্রামের মনির হোসেন ও তার সহযোগীরা মাহবুবকে অপহরণ করেছে। মনিরের বাবা জিয়াউর রহমানকে আটক করার খবর পেয়ে অপহরণকারীরা সোমবার রাতেই মাহবুবকে দক্ষিণ আফ্রিকার কেপটাউনের একটি রাস্তায় ফেলে রেখে যায়। আটককৃতদের নাম মো. কালাম ওরফে কালু এবং মো. জিয়াউর রহমান। ধৃত ব্যক্তিরা জানায়, দক্ষিণ আফ্রিকায় তাদের সহযোগীরা বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশিদের অপহরণ করে দেশে এভাবে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়ে থাকে। এ পর্যন্ত চক্রটি অন্তত ১০টি অপহরণের ঘটনা ঘটিয়ে প্রায় কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এ ঘটনায় টাঙ্গাইল মির্জাপুর থানায় একটি মামলার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন র‌্যাবের কমান্ডার মহিউদ্দিন ফারুকী।

up-arrow