Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শুক্রবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৫৪
সপরিবারে হজ পালন
খালেদা দেশে ফিরতে পারেন ২২ সেপ্টেম্বর
নিজস্ব প্রতিবেদক

হজ পালন শেষে আগামী ২২ সেপ্টেম্বর সৌদি আরব থেকে দেশে ফিরতে পারেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। সবকিছু ঠিক থাকলে আগামী ২১ সেপ্টেম্বর দেশের উদ্দেশে রওনা হবেন তিনি।

অন্যদিকে তার পুত্র দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান পরিবারের সদস্যদের নিয়ে একই দিন সৌদি থেকে যুক্তরাজ্যের উদ্দেশে যাত্রা করবেন বলে চেয়ারপারসনের প্রেস উইংয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন।

জানা যায়, পবিত্র হজ পালন শেষে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ঘরোয়াভাবে পবিত্র ঈদুল আজহা উদযাপন করেছেন সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী। ঈদের দিন সকালে স্থানীয় কয়েকজন নেতা রয়েল প্যালেস হোটেলে খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করলেও আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করেননি তিনি। তবে দেশে ফেরার আগে প্রবাসী নেতা-কর্মীদের সঙ্গে একটি মতবিনিময় অনুষ্ঠান হওয়ার কথা রয়েছে। আগামীকাল শনিবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্তও বেগম জিয়া সপরিবারে মদিনাতে অবস্থান করবেন এবং সেখানে বিশ্বনবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর রওজা মোবারক জিয়ারত ও নফল ইবাদত করবেন।

এর আগে সপরিবারে পবিত্র হজ পালন করেন বেগম খালেদা জিয়া। গত সোমবার তারেক রহমানসহ পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সৌদি আরবের মক্কায় ঐতিহাসিক আরাফাত ময়দানে পবিত্র হজ পালন শেষে মিনায় হজের সর্বশেষ আনুষ্ঠানিকতা শেষ করেন। এর আগে তিনি সৌদি বাদশা সালমান বিন আবদুল আজিজের আমন্ত্রণে সে দেশের রাজকীয় অতিথি হিসেবে স্থানীয় সময় সকাল ৬টায় রাষ্ট্রীয় প্রটোকলের মধ্য দিয়ে মুজদালিফা থেকে মিনায় পৌঁছেন। বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান পরিবারের সদস্যদের নিয়ে আরাফাত ময়দান থেকে ৮ কিলোমিটার দূরে মুজদালিফায় রবিবার রাতে নফল ইবাদত-বন্দেগি, দোয়া-দরুদ, জিকির-আজকার, তাসবিহ-তাহলিল ও কোরআন তেলাওয়াত করেন। সোমবার সকালে মুজদালিফা থেকে মিনায় ফিরে বড় শয়তানকে পাথর মেরে, কোরবানি করেন তারা। পরে পবিত্র কাবা শরিফ তাওয়াফে জিয়ারা ও সায়ী করেন।

খালেদা জিয়ার সঙ্গে তারেক রহমান ছাড়াও তার স্ত্রী ডা. জোবায়েদা রহমান, মেয়ে জায়মা রহমান, ছোট ছেলে মরহুম আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শার্মিলা রহমান সিঁথিসহ পরিবারের সদস্যরা পবিত্র হজ পালন করেন। এ ছাড়াও ঢাকা থেকে খালেদা জিয়ার সফরসঙ্গী হিসেবে মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক উপদেষ্টা এনামুল হক চৌধুরী, বিএনপির তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক শাহ শরীফ কামাল তাজ, চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব আবদুস সাত্তার, আলোকচিত্রী নুরুউদ্দিন আহমেদসহ একজন গৃহকর্মীও হজ পালন করেন।

এ ছাড়াও মিনায় জুমারাতে কঙ্কর নিক্ষেপ ও কোরবানি, বাইতুল্লা শরিফ তাওয়াফে জিয়ারা ও সায়ী করার সময় সৌদি আরব বিএনপির সভাপতি আহমদ আলী মুকিব, সৌদি আরব বিএনপির প্রধান উপদেষ্টা আবদুর রহমান, মক্কা বিএনপির সভাপতি খন্দকার হেলাল সিআইপি, সাধারণ সম্পাদক নূরুল আফছার চৌধুরীসহ অর্ধ শতাধিক স্থানীয় বিএনপি নেতা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, বেগম খালেদা জিয়া এবার তৃতীয় বারের মতো হজ পালন করেন। ১৯৯১ সালে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে একবার এবং ১৯৯৭ সালে বিরোধী দলে থাকাকালে তিনি হজ পালন করেন। তবে প্রায় প্রতিবছরই রমজানে তিনি ওমরাহ পালন করছেন। নয় বছর ধরে যুক্তরাজ্যে থাকা ছেলে তারেককে নিয়ে ২০১৪ সালের জুলাই মাসেও ওমরাহ পালন করেন।

অসহায় মানুষের প্রতি সাহায্যের আহ্বান খালেদা জিয়ার : দরিদ্র ও অসহায় মানুষের দিকে সাহায্য-সহমর্মিতার হাত বাড়াতে বিত্তবান ও সামর্থ্যবানদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বাণীতে তিনি এ আহ্বান জানান। খালেদা জিয়া বলেন, দেশে এখন ভয়ঙ্কর নৈরাজ্য চলছে। মানুষের জানমাল, সহায়-সম্পদের কোনো নিরাপত্তা নেই। আইনের শাসন অনুপস্থিত থাকায় কোথাও কারও কোনো জবাবদিহিতা নেই। দ্রব্যমূল্যের লাগামহীন ঊর্ধ্বগতি দরিদ্র ও কম আয়ের মানুষকে চরম দুর্ভোগের মুখে ঠেলে দিয়েছে। এ অবস্থায় সবার পক্ষে ঈদের আনন্দ যথাযথভাবে উপভোগ করা সম্ভব হবে না।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow