Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৪১
উচ্চশিক্ষার সুযোগ পাচ্ছেন না কারিগরির সিংহভাগ শিক্ষার্থী
আকতারুজ্জামান

উচ্চশিক্ষার সুযোগ পাচ্ছেন না সিংহভাগ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার। কারণ বিএসসি ডিগ্রি পেতে তাদের জন্য রয়েছে মাত্র একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, কারিগরি শিক্ষায় ছাত্র-ছাত্রীদের দক্ষ করে গড়ে তুলতে দেশে সরকারি ৪৯টি পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট রয়েছে। এ ছাড়া বেসরকারি ইনস্টিটিউট রয়েছে প্রায় ৪৫০টি। এসব প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতি বছর প্রায় ১৭ হাজার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার বের হন। ডিপ্লোমা ডিগ্রিধারী এই শিক্ষার্থীদের ভালোমানের বিভিন্ন চাকরির জন্য অর্জন করতে হয় বিএসসি ডিগ্রি। কিন্তু এই ডিগ্রি লাভের সুযোগ পাচ্ছেন না সিংহভাগ ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার। শিক্ষার্থীদের জন্য মাত্র একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান থাকার কারণেই এ অবস্থা হচ্ছে। সূত্র জানায়, এই একটি সরকারি প্রতিষ্ঠান হলো গাজীপুরের ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। দেশে সরকারি বিভিন্ন প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থাকলেও সেগুলোয় ডিপ্লোমাধারী শিক্ষার্থীদের ভর্তি নেওয়া হয় না। সরকারি সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতেও তাদের কোনো ‘প্রবেশাধিকার’ রাখা হয়নি। এ ক্ষেত্রে এইচএসসি ও সমমানের ডিগ্রি থেকেও বঞ্চিত তারা।

জানা গেছে, ডুয়েটে প্রথম বর্ষে শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য আসন রয়েছে প্রায় ৫৫০টি। ভর্তি পরীক্ষার ক্ষেত্রে একজন ভর্তিচ্ছু তিনবার ভর্তি পরীক্ষা দিতে পারেন। এ ক্ষেত্রে প্রতিযোগীর সংখ্যা আরও বেড়ে যায়। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকটি বিভাগে ডিপ্লোমাধারী কিছু শিক্ষার্থী বিএসসি করতে ভর্তির আবেদন করতে পারলেও এই ছাত্র-ছাত্রীদের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে হয় উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় পাস করা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে। ভর্তির প্রশ্নাবলিও দেওয়া হয় কলেজের সিলেবাস থেকেই। এই সিলেবাসের অধীনে করা প্রশ্নে ভালো করতে পারেন না ডিপ্লোমাধারীরা। অভিযোগ রয়েছে, বিভিন্ন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি অর্জন করার সুযোগ থাকলেও এখানে চলে কেবলই টাকার খেলা। এ ক্ষেত্রে অনেক বিশ্ববিদ্যালয়েই নামমাত্র শিক্ষা দিয়ে গলা কাটা ফি আদায় করা হয়। চার বছরের কোর্স শেষ করতে হলে গুনতে হয় ৫ থেকে ১০ লাখ টাকা। অনেক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েও ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারের ভর্তি নেওয়া হয় না। অনেক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে কারিগরি প্রশিক্ষণ দেওয়ার প্রয়োজনীয় উপকরণও নেই। এ কারণে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের বিএসসি ডিগ্রিপ্রাপ্তির জন্য দেশের বিভিন্ন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ দেওয়ার দাবি জানান শিক্ষার্থীরা। পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে পাঠ সম্পন্ন করা ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের উচ্চশিক্ষার সংকটসহ নানা বিষয়ে কারিগরি শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অশোক কুমার বিশ্বাসের সঙ্গে কথা বলতে চাইলে তিনি কথা বলতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে তিনি ঈদের পরে অফিসে যেতে বলেছেন। ময়মনসিংহ পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট থেকে পাস করা ডিপ্লোমা ইন পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্স শেষ করা আরিফ হাসান শাওন বলেন, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি নিয়ে এখন বিএসসির জন্য ডুয়েট ছাড়া অন্য কোনো প্রতিষ্ঠান নেই। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এই ডিগ্রির ওপর উচ্চশিক্ষা নেওয়ার সুযোগও নেই। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে কিছু বিভাগে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে আমাদের ভর্তির সুযোগ দেওয়া হলেও ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে হয় এইচএসসি পাস করা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে। এইচএসসির সিলেবাসেই ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। তাই এখানে চান্স পাওয়াটা কষ্টসাধ্য ব্যাপার। ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (ডুয়েট) উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের উচ্চশিক্ষার জন্য সরকারি প্রতিষ্ঠান ডুয়েট। প্রতি বছর এখানে প্রায় ৫৫০ জন শিক্ষার্থীর ভর্তির সুযোগ রয়েছে। অধিকাংশ শিক্ষার্থীই উচ্চশিক্ষার জন্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে বাধ্য হন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow