Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৪৪
কেউ হয়নি গ্রেফতার দোষীরা অধরা
নিজস্ব প্রতিবেদক
কেউ হয়নি গ্রেফতার দোষীরা অধরা

রাজধানীর কাফরুলে প্রাইভেটকারের ধাক্কায় বৃদ্ধ দম্পতি আতাউর রহমান ও রওশন আরার মৃত্যুর ঘটনায় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। বুধবার সকালের ঘটনায় ওই বৃদ্ধ দম্পতির ছেলে রায়হান বাদী হয়ে মামলা করেন। পুলিশ বলছে, তদন্তে গাড়িটির মালিক ও গাড়িতে থাকা তার ছেলেকে শনাক্ত করা হয়েছে। গাড়িতে থাকা চালক ও যাত্রীরা মদ্যপ ছিল। ওই গাড়ি থেকে একটি অক্ষত ও তিনটি ভাঙা মদের বোতল জব্দ করা হয়েছে। গাড়ির মালিকের ছেলে নাফিস খান অনি ও তার সহযোগীদের ধরতে অভিযান চলছে। বুধবার ভোরে শেওড়াপাড়া বাসস্ট্যান্ড-সংলগ্ন হাজি আশরাফ আলী মার্কেটের সামনে বেপরোয়া গতির একটি প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো গ-২১-৮৫৭১) নিয়ন্ত্রণ হারালে কৃষি মন্ত্রণালয়ের সাবেক কর্মকর্তা আতাউর রহমান ও তার স্ত্রী ওরশন আরা নিহত হন। আতাউর রহমান পূর্ব শেওড়াপাড়ার ৯২১ নম্বর বাসায় থাকতেন। ঘটনার দিন কোরবানির মাংস নিয়ে মোহাম্মদপুরে মেয়ের বাসায় যাওয়ার জন্য এ বৃদ্ধ দম্পতি বের হন। ঘটনার পর দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া গাড়িটি জব্দ করে পুলিশ। ওই গাড়ির ভেতর মদের বোতল পাওয়ায় চালক ও আরোহীরা নেশাগ্রস্ত ছিলেন বলে ধারণা করছে পুলিশ।

জানা গেছে, কয়েক দফায় হাত-বদল হয়ে গাড়িটির বর্তমান মালিক ঠিকাদার আশিকুর রহমান খান। তিনি তেজগাঁওয়ের শাহীনবাগ এলাকার বাসায় পরিবার নিয়ে থাকেন। দুর্ঘটনার সময় গাড়িতে ছিল তার ছেলে নাসিফ খান অনি। মঙ্গলবার রাতে কয়েকজন বন্ধুর সঙ্গে গাড়ি নিয়ে বের হয় নাফিস। গাড়িটি নাফিস, নাকি তার বন্ধুদের কেউ চালাচ্ছিল, তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। দুর্ঘটনার পর তারা গাড়ি থেকে নেমে পালিয়ে যায়। বুধবার সকালেই পরিবারের সবাইকে নিয়ে বাড়ি ছাড়েন নাফিসের বাবা আশিকুর রহমান খান।

পুলিশের মিরপুর বিভাগের ডিসি মাসুদ আহাম্মদ বলেন, কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই গাড়ির মালিককে শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের বাসাসহ সম্ভাব্য দুই-তিনটি ঠিকানায় অভিযান চালানো হয়েছে। তবে তাদের পাওয়া যায়নি। ওই দম্পতির ছেলে রায়হান জানান, বুধবার ভোরে শেওড়াপাড়ার বাসা থেকে বেরিয়ে বাবা-মা মোহাম্মদপুরে মেয়ের বাড়িতে যাচ্ছিলেন। মেয়ের জন্য কোরবানির গরুর মাংস নিয়ে বের হন তারা। সেখান থেকে মেয়ে ও জামাতাকে সঙ্গে নিয়ে পদ্মায় যাওয়ার কথা ছিল। পরে তাদের সঙ্গে যোগ দিতেন রায়হানও। কিন্তু এর আগেই বেপরোয়া প্রাইভেটকার ধাক্কায় তার বাবা-মা নিহত হলেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow