Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : শনিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৪৮
শিশু জান্নাতকে নির্যাতনের ঘটনায় গৃহকর্ত্রী গ্রেফতার
চাঁদপুর ও গাজীপুর প্রতিনিধি

চাঁদপুরের হাইমচরের নয় বছরের শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতনের ঘটনায় গৃহকর্ত্রী মণি বেগমকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গত রাত সাড়ে ১০টার দিকে হাইমচর ও গাজীপুরের জয়দেবপুর থানার পুলিশ রাজধানীর বাড্ডায় এক আত্মীয়ের বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে। চাঁদপুরের পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

হাইমচর থানার পুলিশ ও শিশুটির পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পাঁচ সন্তানকে রেখে শিশুটির বাবা অন্যত্র চলে গেছেন। অভাবের তাড়নায় পরে মা শিশুটিকে অন্যের বাসায় কাজের জন্য দেন। এক বছর আগে হাইমচরের মোস্তফা সরদার নামের একজন শিশুটিকে গাজীপুরের জয়দেবপুরে ওমর ফারুক-মণি বেগম দম্পতির বাসায় নিয়ে যান। সম্প্রতি শিশুটি বাড়ি যাওয়ার জন্য গৃহকর্তা-গৃহকর্ত্রীর কাছে আবদার করে। এ কারণে তারা তাকে প্রচণ্ড মারধর ও নির্যাতন করেন। এ ঘটনায় শিশুটির প্রতিবেশী চাঁদপুরের হাইমচর এলাকার শাহজাহান ভূঁইয়া বাদী হয়ে গতকাল সন্ধ্যার পর জয়দেবপুর থানায় শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলায় ওমর ফারুক, মণি বেগম ও মোস্তফা সরদারকে আসামি করা হয়। এদিকে শিশুটির চিকিৎসার জন্য ২৫ হাজার টাকা আর্থিক সহায়তা পাঠিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী পল্লবী চৌধুরী। গতকাল তিনি জেলা প্রশাসক আবদুস সবুর মণ্ডলের মাধ্যমে এ সহায়তা পাঠান।

সরেজমিনে গতকাল দুপুরে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের তিন তলার ৫ নম্বর পেয়িং বেডে গিয়ে দেখা গেছে শিশু জান্নাতুল ফেরদৌসের শরীরের ব্যথা কমলেও আতঙ্ক কাটেনি। কাউকে দেখলেই ভয়ে মায়ের আঁচলে মুখ লুকিয়ে রাখে।

জান্নাতের মা ফিরোজা বেগম কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ‘আমার অবুঝ মেয়ের এ অবস্থা কেমনে করল তারা? ওই পাষণ্ডদের মনে একটুও দয়ামায়া নেই! ঘুম ভাঙলে আর মানুষ দেখলে আমারে জড়াইয়া ধরে।’

এদিকে, গৃহকর্তা ওমর ফারুক ও তার ভায়রা মোস্তফা সরদারকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। গতকাল দুপুরে পুলিশ তাদের গাজীপুরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠালে বিচারক জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow