Bangladesh Pratidin

ঢাকা, রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:০৪
তদন্ত কর্মকর্তাকে আসামি পক্ষের জেরা শুরু
৭ খুন মামলা
নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি

নারায়ণগঞ্জের চাঞ্চল্যকর সাত খুন মামলার তদন্ত কর্মকর্তাকে জেরা শুরু করেছেন আসামিপক্ষের আইনজীবীরা। নারায়ণগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক সৈয়দ এনায়েত হোসেনের আদালতে তদন্ত কর্মকর্তার জেরা শুরু হয়। গতকাল প্রথম দিনে তদন্ত কর্মকর্তা মামুনুর রশীদ মণ্ডলকে জেরা করেন মামলার অন্যতম আসামি মেজর আরিফ হোসেনের (অব.) আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবদুর রশিদ ভূঁইয়া। গতকাল জেরা শেষ না হওয়ায় আরিফ হোসেনের আইনজীবী আগামী কর্মদিবসেও তদন্ত কর্মকর্তাকে জেরা করবেন বলে জানা গেছে। মামলার পরবর্তী তারিখ ধার্য করা হয়েছে ২৪ সেপ্টেম্বর। বাদীপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সাখাওয়াত হোসেন খানের অভিযোগ, আসামিপক্ষের আইনজীবীরা তদন্ত কর্মকর্তাকে জেরার সময় শালীনতা বজায় রাখেননি। আরিফ হোসেনের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবদুর রশিদ ভূঁইয়া জেরার সময় মামলার প্রাসঙ্গিকতায় না গিয়ে অপ্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে আদালতে সময় ক্ষেপণ করেছেন বলেও রাষ্ট্র ও বাদীপক্ষের আইনজীবীদের অভিযোগ। এদিকে আরিফ হোসেনের পক্ষে জেরার সময় তার আইনজীবী তদন্ত কর্মকর্তার কাছে জানতে চান, ঘটনার সময় র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন)   কর্নেল জিয়াউল আহসান পুরো ঘটনা মনিটরিং করেছেন। তাকে আপনি এ মামলায় সাক্ষী বা আসামি করেছেন? উত্তরে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, আমি প্রয়োজন মনে করিনি। তা ছাড়া কর্নেল জিয়াউল আহসান ঘটনার পর মেজর আরিফের সঙ্গে যোগাযোগ করে ঘটনা জানতে চেয়েছেন। এ ক্ষেত্রে তাদের মধ্যে কোনো ব্যক্তিগত যোগাযোগ ছিল না। জেরার সময় আরিফের আইনজীবী তদন্ত কর্মকর্তার কাছে জানতে চান, র‌্যাব-১১-এর আদমজী প্রধান কার্যালয়ে থেকে ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল যখন মেজর আরিফের নেতৃত্বে অপারেশনাল টিম বের হয় তখন কোনো সিসি তারা নিয়েছিল কিনা? যে গাড়ি ব্যবহার করেছেন লগ বইতে তা এন্ট্রি ছিল কিনা? উত্তরে তদন্ত কর্মকর্তা বলেন, ঘটনার দিন তারা কোনো সিসি নিয়ে বের হননি। তা ছাড়া রেজিস্ট্রেশন করা গাড়ি হলেও ঘটনার দিন নম্বর প্লেট খুলে গাড়ি নিয়ে যাওয়ায় তা লগ বইয়ে এন্ট্রি হয়নি। এ কারণে সিসির কপি বা লগ বই জব্দ করা সম্ভব হয়নি। আদালতের পিপি অ্যাডভোকেট ওয়াজেদ আলী খোকন বলেন, জেরার প্রথম দিন তদন্ত কর্মকর্তাকে আরিফ হোসেনের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবদুর রশিদ ভূঁইয়া জেরা করেছেন। তবে তার জেরা পুরোপুরি শেষ হয়নি। ২৪ সেপ্টেম্বর মামলার পরবর্তী ধার্য তারিখেও আরিফ হোসেনের আইনজীবীই তাকে জেরা করবেন। উল্লেখ্য, ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল দুপুরে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ লিঙ্ক রোড থেকে নাসিকের প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দন কুমার সরকারসহ সাতজন অপহূত হন। তিন দিন পর ৩০ এপ্রিল শীতলক্ষ্যা নদীর বন্দর উপজেলার শান্তিরচর এলাকা থেকে ছয়জনের এবং পরদিন ১ মে একই স্থান থেকে আরও একজনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওই ঘটনায় ফতুল্লা মডেল থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেন নিহত নজরুল ইসলামের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম বিউটি ও অ্যাডভোকেট চন্দন কুমার সরকারের বড় মেয়ের জামাতা ডা. বিজয় কুমার পাল।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow