Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২২:৩৮
শরিক দলে অসন্তোষ, বেড়েছে দূরত্ব
জোটের রাজনীতি ভোটের রাজনীতি - খুলনা
সামছুজ্জামান শাহীন, খুলনা
শরিক দলে অসন্তোষ, বেড়েছে দূরত্ব

২০০১ সালের সংসদ নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট ভোটের মাঠে অকল্পনীয় সাফল্য দেখিয়ে খুলনার ৬টি আসনের ৫টিতে জয়লাভ করে। এমনকি খুলনা-৫ আসনটি সংখ্যালঘু অধ্যুষিত হওয়া সত্ত্বেও সেখানে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জোট মনোনীত জামায়াতের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছিলেন।

আর ভরাডুবি হয়েছিল আওয়ামী লীগ প্রার্থীর। সেই সংকট কাটিয়ে আওয়ামী লীগ ১৪-দলীয় জোটের ব্যানারে ২০০৮ সালের নির্বাচনে ৬টির মধ্যে ৫টি এবং ২০১৪ সালের নির্বাচনে সব কটি আসনে বিজয় ছিনিয়ে নেয়। অবশ্য ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোট অংশ নেয়নি। খুলনার মাটিকে একসময় বিএনপির ঘাঁটি বলা হলেও দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকায় সে অবস্থান নড়বড়ে হয়ে গেছে। তবে সমন্বয়হীনতা ও শরিক দলের নেতাদের মূল্যায়ন না করায় ক্ষমতাসীন ১৪-দলীয় জোটেও বিরাজ করছে চরম অসন্তোষ। একই সঙ্গে জোটের রাজনীতির পাশাপাশি বদলেছে ভোটের মাঠের পুরনো সব হিসাব-নিকাশও।

তবে এ কথা মানতে নারাজ ১৪-দলীয় জোটের খুলনার সমন্বয়ক মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলহাজ মিজানুর রহমান মিজান এমপি। তিনি বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, জোট আগের মতোই সক্রিয়। সাংগঠনিক অবস্থাও ভালো। আগামী নির্বাচনে ভোটের মাঠে জোট তার সাবেক ভূমিকা পালন করবে। তিনি বলেন, জোটের বাইরেও দক্ষিণাঞ্চলে বর্তমান যে বৃহৎ উন্নয়নযজ্ঞ চলছে তা অকল্পনীয়-অভাবিত; যা এ অঞ্চলের মানুষের মুখে মুখে আলোচিত হচ্ছে। এর প্রভাব আগামী ভোটে ১৪-দলীয় জোটের অনুকূলেই যাবে। ১৪-দলীয় জোটের প্রধান দল আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে চলাফেরা জাসদের। অন্য শরিকদের  সঙ্গে তাদের তেমন বোঝাপড়া নেই। নানা কারণে দূরত্ব বেড়েছে জোটের শরিক দলগুলোয়। ফলে জোটের রাজনীতিতে ঐক্যের বদলে ‘একলা চলো নীতি’ প্রাধান্য পাচ্ছে। সর্বশেষ জাতীয় সংসদ, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে জোটগতভাবে প্রার্থী দিতে পারেনি ১৪ দল। জোটের শরিক দল জাতীয় পার্টির (জেপি) কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান ও খুলনা বিভাগে দলের দায়িত্বে থাকা শরীফ শফিকুল হামিদ চন্দন বলেন, খুলনায় মাঠপর্যায়ে জোটের তেমন কার্যক্রমই নেই। শুধু ‘ক্রাইসিসে’র সময় জোটের শরিকদের ডাকা হয়। কিন্তু ক্ষমতার সব সুবিধা নেয় আওয়ামী লীগ। শরিকরা বঞ্চিতই থাকছে। তিনি বলেন, বিগত জাতীয় সংসদ, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে খুলনায় জোটগত কোনো প্রার্থী ছিল না। সদ্য সমাপ্ত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তেরখাদা উপজেলার মধুপুরে চেয়ারম্যান পদে জেপি প্রার্থী দিয়েছিল, কিন্তু একই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগও পাল্টা প্রার্থী দেয়। ভোটের রাজনীতিতে শরিকদের কোনোভাবে ছাড় দেয়নি আওয়ামী লীগ। কাগজে-কলমে কমিটি থাকলেও দীর্ঘদিনেও এক টেবিলে বসতে পারেননি জোটের নেতারা। মন্ত্রী থাকার সুবাদে ১৪-দলীয় জোটের শরিক জাসদ খুলনায় তাদের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড জোরদার করতে পেরেছে। দলের মহানগর সাধারণ সম্পাদক খালিদ হোসেন দলকে সংগঠিত করতে কাজ করছেন। দীর্ঘদিন অকার্যকর থাকলেও দেশব্যাপী সন্ত্রাসী-জঙ্গি হামলার পর তার প্রতিবাদে কিছুটা চাঙ্গা হয় ১৪ দল। খুলনায় জঙ্গিবিরোধী কমিটিতে মহানগর জাসদের সাধারণ সম্পাদক খালিদ হোসেনকে সদস্যসচিব করে কমিটি গঠন করা হয়। কিন্তু দু-একটি সভা করার পর আবার হিমঘরে চলে যায় তাদের কর্মসূচি। জেলা পর্যায়ে জোটের কার্যক্রম না থাকায় হতাশা রয়েছে জাসদ নেতাদের মধ্যেও। জাসদ নেতা খালিদ হোসেন বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, জেলায় আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে জোটের কার্যক্রম শুরু করা যায়নি। জোটে আওয়ামী লীগ ছাড়া অন্য দলগুলোর সাংগঠনিক অবস্থা সন্তোষজনক নয়। ওয়ার্কার্স পার্টির কার্যালয় মহানগরীর ধর্মসভার সামনে একটি ছোট্ট পরিসরে। জাতীয় পার্টি (জেপি), জাসদ (ইনু), সাম্যবাদী দল, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, ন্যাপ (ভাসানী), ন্যাপ (মোজাফ্ফর), নেজামে ইসলাম পার্টি, খেলাফতে রব্বানী, গণতন্ত্রী পার্টি, জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর), পিএনপির কোনো দলীয় কার্যালয়ই নেই। নেতা-কর্মীদেরও নেই তেমন পরিচিতি। খুলনায় প্রায় একই অবস্থা বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটে। দীর্ঘদিন জোটের বৈঠক হয়নি। জামায়াত জোটে আছে কিন্তু বিএনপির কোনো কর্মসূচিতে তাদের উপস্থিতি নেই। মহানগরীর তারের পুকুর এলাকায় জামায়াতে ইসলামীর কার্যালয় দীর্ঘদিন তালাবদ্ধ। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচনের পর স্থানীয় পর্যায়ে প্রকাশ্যে জামায়াতের কার্যক্রম নেই। জোটের অন্য দলগুলোর রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডও দৃশ্যমান নয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জামায়াতের একাধিক নেতা বলেন, ২০ দলের শরিক হিসেবে জামায়াত এখনো বিএনপির সঙ্গেই আছে। কৌশলগত কারণে এখন জামায়াত বিএনপি থেকে কিছুটা দূরে আছে। তবে জামায়াতের সাংগঠনিক শক্তি আগের চেয়ে বেড়েছে দাবি নেতাদের। খুলনায় ২০-দলীয় জোটের সমন্বয়ক ও মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেন, ২০-দলীয় জোট আগের মতোই ঐক্যবদ্ধ। আগামীতে নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে খুলনার সব কটি আসনেই ২০-দলীয় জোটের প্রার্থীরা জয়লাভ করবেন। তিনি বলেন, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বাধার কারণে জোটগতভাবে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করা সম্ভব হচ্ছে না। তার মানে এই নয় যে জোটের রাজনৈতিক শক্তি-সামর্থ্য নেই। বরং আগের চেয়ে জোটের সাংগঠনিক শক্তি ও সামর্থ্য অনেক গুণ বেড়েছে। বেড়েছে কর্মীর সংখ্যাও। তিনি অভিযোগ করে বলেন, ২০০৮ সালের ফখরুদ্দীন-মইন উদ্দিন সরকারের টার্গেটই ছিল আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় বসানো। ওই সময় নিরপেক্ষ নির্বাচন হলে ফল উল্টো হতো। ২০-দলীয় জোট ক্ষমতায় বসত। জানা যায়, ছোটখাটো কিছু কর্মসূচি পালন ছাড়া খুলনায় বাম দলগুলোর কার্যক্রম রয়েছে মূলত কাগজে-কলমে। ন্যাপ, ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ, আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪-দলীয় জোটে। বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) ও বাসদ আলাদা জোট করে খুলনায় তাদের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড চালাচ্ছে। গণতান্ত্রিক বাম মোর্চা নামে বাম দলের আরও একটি জোটের কার্যক্রম রয়েছে খুলনায়। তবে ভোটের রাজনীতিতে বাম দলগুলোর প্রভাব নেই বললেই চলে। দিবস পালন ও মাঝেমধ্যে মিছিল-স্লোগানের মধ্যে তাদের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড সীমাবদ্ধ। স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোয় দু-একটি জায়গায় বাম দলগুলোর পক্ষ থেকে প্রার্থী দেওয়া হলেও তারা তেমন প্রভাব ফেলতে পারেনি। ফলে জোটের ভিতরে যারা আছে তাদের ভরসা বড় দলগুলো। আর জোটের বাইরে যারা আছে তাদের ভরসা কর্মসূচি।

up-arrow