Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৩৯
জবাবে ইউনেসকো খুশি হলেই হলো
——— অধ্যাপক ম. তামিম
জবাবে ইউনেসকো খুশি হলেই হলো

সুন্দরবনের কাছে রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণে জাতিসংঘের পরিবেশবিষয়ক সংস্থা ইউনেসকোর আপত্তি ও উদ্বেগ প্রকাশ প্রসঙ্গে জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক  ড. ম. তামিম বলেছেন, ইউনেসকো যতখানি খারাপ বলছে, ততটা না। এখন দেখা যাক সরকার কী উত্তর দেয়।

সরকারের জবাবে যদি ইউনেসকো খুশি থাকে, তাহলে তো হয়েই গেল। আর যদি ইউনেসকো বলে তা গ্রহণযোগ্য নয়, তাহলে আমি মনে করি তৃতীয়পক্ষীয় কাউকে দিয়ে পরিবেশগত ইমপ্যাক্ট অ্যাসেসমেন্ট বা ইআইএ করানোই সরকারের জন্য ভালো হবে। গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিনের সঙ্গে আলাপকালে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও জ্বালানি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ড. ম. তামিম বলেন, যেহেতু এত সন্দেহ হচ্ছে, তাই একটা নিরপেক্ষ কোনো কোম্পানি দিয়ে আইইএ করানোই ভালো। আবার যেহেতু সরকার অনড় এবং পরিবেশগত কোনো ক্ষতি হবে কি না সেটাই মূল বিতর্ক, তাই তৃতীয়পক্ষীয় ইআইএ করানো উচিত। বাংলাদেশ যে ইআইএ করেছে এটা লোকাল কোম্পানি দিয়ে করানো। এখানে অনেক দুর্বলতা আছে। ইউনেসকো এই ইস্যুটা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে। এখন সরকার বলছে, আমরা যা করছি ঠিক আছে। বিরোধী দলও বলছে ঠিক নাই। তাই সবার কাছে গ্রহণযোগ্য বিশ্বে এমন অনেক কোম্পানি আছে, তাদের কাউকে দিয়ে ইআইএ প্রতিবেদন তৈরি করা স্বল্প সময়ে সম্ভব। আর সিরিয়াস কোনো সমস্যা থাকলেও সরকার চিন্তা করতে পারে কী করবে।

তার মতে, ইউনেসকো গ্লোবাল দূষণ যতটা খারাপ বলছে, ততটা সঠিক না। তবে ইউনেসকো কী বলেছে, আমি জানি না। এগুলোর হিসাব-নিকাশ আমি বুঝিও না। বিস্তারিত জানি না। জানার ভানও করতে পারছি না।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow