Bangladesh Pratidin

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ২৩:৫১
ভারতের প্রেস কাউন্সিলের ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া পরিদর্শন
বাংলাদেশ-ভারত সাংবাদিকদের নিয়মিত যোগাযোগ জরুরি
নিজস্ব প্রতিবেদক
বাংলাদেশ-ভারত সাংবাদিকদের নিয়মিত যোগাযোগ জরুরি
বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের কনফারেন্স রুমে গতকাল মতবিনিময়ে অংশ নেন ভারতের প্রেস কাউন্সিল চেয়ারম্যান বিচারপতি চন্দ্রমৌলি কুমার প্রসাদের নেতৃত্বে আসা প্রতিনিধি দলের সদস্যরা —বাংলাদেশ প্রতিদিন

বাংলাদেশ ও ভারতের সাংবাদিকদের প্রায় একই ধরনের প্রতিকূল পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হয়। এজন্য দুই দেশের সাংবাদিকদের মধ্যে নিয়মিত যোগাযোগ স্থাপন প্রয়োজন।

তাহলে পারস্পরিক মতবিনিময়ের মাধ্যমে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে করণীয় সম্পর্কে আগাম প্রস্তুতি নেওয়া সম্ভব হবে উভয় দেশের সাংবাদিকদের। গতকাল ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের গণমাধ্যমগুলো পরিদর্শনে এসে ভারতের প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি চন্দ্রমৌলি কুমার প্রসাদ এসব কথা বলেন। তার নেতৃত্বে ১১ সদস্যের ভারতীয় প্রতিনিধি দল বাংলাদেশ প্রতিদিন, কালের কণ্ঠ, ডেইলি সান, বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোর ও নিউজ২৪ টেলিভিশনের কার্যালয় পরিদর্শন করেন। এ সময় পাঁচ গণমাধ্যমের সিনিয়র সাংবাদিকদের সঙ্গে তারা নিজেদের অভিজ্ঞতা বিনিময় করেন। বিচারপতি চন্দ্রমৌলি কুমার প্রসাদ বলেন, সারা বিশ্বের সাংবাদিকরা বিভিন্ন প্রতিকূল পরিস্থিতির মোকাবিলা করেই কাজ করছেন। এর মধ্যে রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন, উগ্রবাদ, সন্ত্রাসী চক্রের হুমকি-ধমকির মতো বিষয়গুলো বাংলাদেশ ও ভারতে প্রায় একই ধরনের। সব মিলিয়ে উপমহাদেশেই সাংবাদিকতা পেশা ইতিমধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে গেছে। সংবাদ প্রকাশের জের ধরে নির্যাতন ও খুনের ঘটনাও ঘটেছে। সামনে আরও চ্যালেঞ্জ আসতে পারে। তাই আগামী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সহযোগিতা জরুরি। তিনি বলেন, গণমাধ্যম-সংশ্লিষ্ট যে কোনো বিষয়ে ভারতে প্রেস কাউন্সিলের বক্তব্যই চূড়ান্ত। ‘প্রেস কাউন্সিল অব ইন্ডিয়া’ একটি স্বাধীন সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান। আইন নয়, কনভেনশন দ্বারা এটি পরিচালিত। ফলে ভারতের সুপ্রিমকোর্ট ও হাইকোর্ট ছাড়া অন্য কোনো সিভিল কোর্টে প্রেস কাউন্সিলের রায়কে চ্যালেঞ্জ করা যায় না। প্রেস কাউন্সিল ভারতের গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ নয়, বরং গণমাধ্যমের স্বাধীনতার জন্য নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। বিচারপতি চন্দ্রমৌলি কুমার প্রসাদ বলেন, উপমহাদেশের গণমাধ্যমের আরেকটি সংকট হলো ‘পেইড নিউজ’। ভারতেও প্রায়ই এ অভিযোগ উত্থাপিত হয়। তবে প্রেস কাউন্সিল থেকে তদন্ত করতে গিয়ে এর ৮০ ভাগেরই সত্যতা পাওয়া যায় না। অবশ্য রাজনৈতিক দলগুলোর বিষয়-সংশ্লিষ্ট অভিযোগের সত্যতা নিশ্চিত করাও বেশ দুরূহ। বিচারপতি প্রসাদ উদাহরণ হিসেবে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলেন বাংলাদেশের জাতির জনক। যে কোনো প্রতিবেদনে তার প্রশংসা করা হবে এটাই স্বাভাবিক। এটা যদি কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষে যায়, তাহলে সাংবাদিকদের করার কিছুই নেই। এটাকে আবার যদি বিপরীত রাজনৈতিক দল বা পক্ষগুলো ‘পেইড নিউজ’ হিসেবে অভিযোগ করে, তাহলে তা হবে অসত্য। ভারতের প্রেস কাউন্সিলের প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন কাউন্সিলের সেক্রেটারি পুনম সিব্বাল, কলকাতা থেকে প্রকাশিত হিন্দি দৈনিক ‘চাপতে চাপতে’র সম্পাদক বিপিন নেয়ার, লখনৌ থেকে প্রকাশিত হিন্দি দৈনিক ‘জনমোর্চা’র সম্পাদক ড. সুমন গুপ্তা, নাগপুর থেকে প্রকাশিত ভারতের দৈনিক ‘ভাস্কর’ সম্পাদক প্রকাশ দুবে, হায়দরাবাদভিত্তিক সিনিয়র সাংবাদিক কৌসুরি অমরনাথ, দিল্লির ‘আজ সমাজ’-এর রাজীব রঞ্জন নাগ, কলকাতার ‘আনন্দবাজার’ পত্রিকার প্রজ্ঞানন্দ চৌধুরী, ভারতের সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এস এম সিনহা ও কলকাতা থেকে প্রকাশিত ইংরেজি দৈনিক ‘স্টেটসম্যান’ সম্পাদক রবীন্দ্র কুমার। প্রতিনিধিরা জানান, আগামী ১৬ নভেম্বর বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিলের নয়াদিল্লি সফরে বাংলাদেশ ও ভারতের প্রেস কাউন্সিলের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে। এর ফলে সমস্যা ও সংকট সম্পর্কে উভয় দেশের মধ্যে তথ্য বিনিময় সম্ভব হবে। বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজামের সঞ্চালনায় ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপের কনফারেন্স কক্ষে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন মানবাধিকার কমিশনের সদস্য এনামুল হক চৌধুরী, বসুন্ধরা গ্রুপের মিডিয়া উপদেষ্টা আবু তৈয়ব, কালের কণ্ঠের নির্বাহী সম্পাদক মোস্তফা কামাল, ডেইলি সানের সম্পাদক জামিলুর রহমান ও উপদেষ্টা সম্পাদক আমির হোসেন, বাংলানিউজ টোয়েন্টিফোরের উপদেষ্টা সম্পাদক জুয়েল মাজহার ও হেড অব নিউজ মাহমুদ মেনন, নিউজ টোয়েন্টিফোরের হেড অব কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স সামিয়া রহমান ও হেড অব নিউজ ইব্রাহিম আজাদ, বাংলাদেশ প্রতিদিনের যুগ্ম-সম্পাদক আবু তাহের, উপ-সম্পাদক মাহমুদ হাসান, বার্তা সম্পাদক কামাল মাহমুদ, প্রধান প্রতিবেদক মন্জুরুল ইসলাম প্রমুখ। ২৫ সেপ্টেম্বর ঢাকায় আসা প্রেস কাউন্সিল অব ইন্ডিয়ার প্রতিনিধি দলটি গতকাল বিকালে বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। আজ তারা ভারতের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow