Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : বুধবার, ৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ৪ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:১০
অন্যকে ফাঁসাতে সন্তান হত্যায় বাবা-মা!
নিজস্ব প্রতিবেদক, সিলেট

এই আধুনিক মানবতার যুগে এ কেমন বর্বরতা। এ কেমন নৃশংসতা।

অন্যকে ফাঁসাতে গিয়ে নিজের সন্তানকে হত্যা করেছেন বাবা-মা! আঁতকে ওঠার মতো এমন ঘটনা ঘটেছে হবিগঞ্জ জেলার চুনারুঘাট থানার দক্ষিণ জারুলিয়া গ্রামে। প্রতিবেশী প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে গিয়ে বাবা-মা মিলে সাত বছর বয়সী সন্তান ইফা আক্তারকে হত্যা করেছেন! আরেক সন্তান রিফা আক্তারও তাদের নির্মমতা থেকে রক্ষা পায়নি, ধারালো অস্ত্রের আঘাতে হয়েছে ক্ষতবিক্ষত। পাষণ্ড সেই ঘাতক বাবা আবদুশ শহীদ লিটন (৩০) ধরা পড়েছে র‌্যাবের কাছে। জানা যায়, হাওরে মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে দক্ষিণ জারুলিয়া গ্রামের আবদুশ শহীদ লিটন ও তার ভাইদের সঙ্গে প্রতিবেশী আবদুর রউফ, সোহেল ও রফিক গংদের বিবাদ ছিল। এ বিবাদকে কেন্দ্র করে লিটনদের বাড়িতে হামলা চালায় প্রতিপক্ষ। এ সময় লিটনের সৎ ভাই শাওয়াল প্রতিপক্ষ রফিককে টেঁটাবিদ্ধ করে। এ ঘটনায় লিটনের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের হুমকি দেয় প্রতিপক্ষ। মামলা থেকে বাঁচতে এবং প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে লিটন স্ত্রী মিলন বেগমের সঙ্গে পরিকল্পনা আঁটে নিজ সন্তান ইফাকে হত্যার। পরিকল্পনা মতে ২১ আগস্ট রাতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ইফা আক্তারকে হত্যা করে লিটন। একইসঙ্গে আরেক সন্তান রিফাকেও কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। ঘটনার পর ইফাকে প্রতিপক্ষ আবদুর রউফসহ অন্যরা হত্যা করেছে বলে প্রচার করতে থাকে লিটন। কিন্তু তার ছলচাতুরী ধরা পড়ে যাওয়ায় আত্মগোপনে চলে যায় সে। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনার অনুসন্ধানে নামে র‌্যাব। একপর্যায়ে লিটনের অবস্থান শনাক্ত করতে সক্ষম হয় র‌্যাবের গোয়েন্দা টিম। সোমবার গভীর রাতে সিলেটের জকিগঞ্জ উপজেলার বীরশ্রী ইউনিয়ন থেকে আবদুশ শহীদ লিটনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। র‌্যাব-৯ এর এএসপি মোহাম্মদ জিয়াউল হক জানান, জিজ্ঞাসাবাদে নিজের সন্তানকে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেছে লিটন। প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে এবং নিজে প্রতিপক্ষের মামলা থেকে বাঁচতে হিতাহিত জ্ঞানশূন্য হয়ে এমনটি করেছে বলে স্বীকার করে লিটন।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow