Bangladesh Pratidin

ঢাকা, শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬

প্রকাশ : রবিবার, ১৬ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০ টা আপলোড : ১৫ অক্টোবর, ২০১৬ ২৩:৪৯
বিশাল আশার আলো ইতিবাচক বার্তা
---------এ কে আজাদ
বিশাল আশার আলো ইতিবাচক বার্তা

চীনের রাষ্ট্রপতি ঢাকা আসাতে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের বিনিয়োগকারীদের মাঝে বাংলাদেশে বিনিয়োগ সম্পর্কে ইতিবাচক বার্তা পৌঁছে গেছে বলে মনে করেন শিল্পপতিদের সংগঠন বাংলাদেশ চেম্বার অব ইন্ডাস্ট্রিজ-বিসিআই সভাপতি ও এফবিসিসিআই সাবেক সভাপতি এ কে আজাদ। তার মতে, প্রায় ৩৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের এই বিনিয়োগ, ঋণ চুক্তি ও অন্যান্য সহায়তার বার্তা বাংলাদেশের অর্থনীতি ও ব্যবসা-বাণিজ্যে বিশাল আশার আলো দেখিয়েছে।

গতকাল বাংলাদেশ প্রতিদিন-এর সঙ্গে আলাপকালে তিনি আরও বলেন, চীনের রাষ্ট্রপতি আসাতে অবকাঠামো ও জ্বালানি খাতের অনেক সমস্যা দূর হবে। আমাদের মধ্যআয়ের দেশে যেতে হলে প্রায় ৪০ বিলিয়ন ডলারের বিদেশি বিনিয়োগ প্রয়োজন। ফলে আগামী ৫ বছরে চীনের যে বিনিয়োগ আসছে, তা ভব্যিষতে আরও বাড়াতে পারব। পাশাপাশি ২০১০ সালে চীন আমাদের ৪ হাজার ৭৫০টি পণ্যে শুল্কমুক্ত সুবিধায় প্রবেশাধিকার দিয়েছে। আমরা চীনে গত ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৮০৮ দশমিক ১৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছি। তার মধ্যে তৈরি পোশাক, পাট ও পাটজাত পণ্য আছে। চীনে তৈরি পোশাক পণ্য রপ্তানির সম্ভাবনা তুলে ধরে এ কে আজাদ বলেন, প্রতিবছর আমাদের পোশাকশিল্পের প্রবৃদ্ধি হচ্ছে ১২ শতাংশ। আমি মনে করি আগামী ৫ বছর পরে চীনে আমাদের পোশাক রপ্তানিতে প্রবৃদ্ধি আরও বাড়বে। কারণ, চীনের অভ্যন্তরীণ বাজারই ২০০ বিলিয়ন ডলারের। চীনে প্রতিবছর মধ্যবিত্ত বাড়ায় ইউরোপ ও আমেরিকাতে আমাদের যে ধরনের পোশাক পণ্য রপ্তানি হচ্ছে, তেমনি চীনেও বিশাল অঙ্কের পণ্য রপ্তানি করতে পারব। আগামীতে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য ব্যবধান কমে যাবে উল্লেখ করে হা-মীম গ্রুপের এই কর্ণধার বলেন,  চীন থেকে আমরা কয়েক বিলিয়ন ডলারের পণ্য আমদানি করছি। বাংলাদেশ গত ২০১৫-১৬ অর্থবছরে চীন থেকে ৯ হাজার ৬৪৫ দশমিক ৮০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের পণ্য আমদানি করেছে। পাশাপাশি চীনের সঙ্গে আমাদের সোনাদিয়া গভীর সমুদ্রবন্দর নির্মাণের কথা চলছে, এটারও বাস্তবায়ন এগিয়ে যাবে। এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি এ কে আজাদ মনে করেন, বিশ্বের দ্বিতীয় অর্থনৈতিক শক্তিধর রাষ্ট্র চীনের রাষ্ট্রপতির বাংলাদেশ সফর অত্যন্ত ইতিবাচক। এতে বিরাট আশার আলো দেখছে বাংলাদেশ। কেবলমাত্র চীনের বিনিয়োগকারীই নয়, পুরো বিশ্বের বিনিয়োগকারীদের মাঝে একটা ইতিবাচক বার্তা পৌঁছে গেছে।

এই পাতার আরো খবর
up-arrow